ঢাকা, শনিবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৮ মে ২০২৪, ০৯ জিলকদ ১৪৪৫

বাজেট

স্বাস্থ্যখাতে ২৮ শতাংশ বরাদ্দ বাড়ানোর প্রস্তাব

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৩৯ ঘণ্টা, জুন ১, ২০২৩
স্বাস্থ্যখাতে ২৮ শতাংশ বরাদ্দ বাড়ানোর প্রস্তাব

ঢাকা: প্রস্তাবিত বাজেটে স্বাস্থ্য খাতে ৩৮ হাজার ৫২ কোটি টাকা বরাদ্দের উল্লেখ করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। যা প্রস্তাবিত বাজেটের মোট ৫ দশমিক ৯ শতাংশ।

২০২২-২০২৩ অর্থ বছরে স্বাস্থ্যখাতে সংশোধিত বাজেট ছিল ২৯ হাজার ৭৪৯ কোটি টাকা। অর্থাৎ প্রস্তাবিত বাজেটে এই খাতে বরাদ্দ বাড়তে পারে ২৭ দশমিক ৯১  শতাংশ বা ৮ হাজার ৩০৩ কোটি টাকা।

প্রস্তাবিত বাজেটে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগে ২৯ হাজার ৪৩১ কোটি ও স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগে ৮ হাজার ৬২১ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগে ২৩ হাজার ৫২ কোটি এবং স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগে ৬ হাজার ৬৯৭ কোটি টাকা বরাদ্দ ছিল। অর্থাৎ প্রস্তাবিত বাজেটে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগে বরাদ্দ বেড়েছে ২৭ দশমিক ৬৭ শতাংশ বা ৬ হাজার ৩৭৯ কোটি টাকা। স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগে বরাদ্দ বেড়েছে ২৮ দশমিক ৭২ শতাংশ বা  ১ হাজার ৯২৪ কোটি টাকা।

বৃহস্পতিবার (১ জুন) সংসদে বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী স্বাস্থ্য খাতের জন্য এই বাজেট বরাদ্দ পেশ করেন। বিকেল ৩টায় জাতীয় সংসদে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে তিনি এ বাজেট উপস্থাপন করেন।

আ হ ম মুস্তফা কামাল বাজেট বক্তব্যে বলেন, ২০২২-২০২৩ অর্থ বছর হবে অতিমারির প্রভাব কাটিয়ে ওঠার জন্য শেষ বছর। অতিমারির প্রভাব আমরা পুরোটাই কাটিয়ে উঠতে পেরেছি। তাই এ বাজেটে আমাদের লক্ষ্য থাকবে চলমান প্রণোদনা প্যাকজগুলোর বাস্তবায়ন  সফলভাবে শেষ করার মাধ্যমে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের ধারাকে টেকসই করা।

প্রস্তাবিত বাজেটে কোভিড-১৯ রোগীদের সেবায় নিয়োজিত চিকিত্সক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীসহ মোট ২৯ হাজার ৮৯০ জনকে ১৩৮ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করেন আ হ ম মুস্তফা কামাল।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ওষুধ, চিকিত্সা সামগ্রী ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী উত্পাদনে প্রয়োজনীয় কাঁচামাল আমদানিতে বিদ্যমান রেয়াতি সুবিধা বৃদ্ধি করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও ক্যান্সার রোগীদের চিকিত্সা আরও সূলভ করার উদ্দেশ্যে এর চিকিত্সায় ব্যবহৃত ওষুধের আরও ১০০টি কাঁচামাল অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব করা হয়েছে। আইভি ক্যানুলা উত্পাদনের অন্যতম প্রধান উপাদান সিলিকন টিউব রেয়াতি সুবিধায় আমদানির সুযোগ দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। ডায়াবেটিস ম্যানেজমেন্টে অতীব প্রয়োজনীয় ওষুধ তৈরিতে ব্যবহার্য তিনটি কাঁচামাল বিদ্যমান প্রজ্ঞাপনে অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব করা হয়।

তামাক জাতীয় পন্য যেমন তরল নিকোটিনের ওপর ১৫০% সম্পূরক শুল্ক আরোপ করার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। এছাড়া ইলেকট্রনিক সিগারেট ও সমজাতীয় ইলেকট্রিক ভ্যাপোরাইজার ডিভাইসের যন্ত্রাংশের শুল্কহার বাড়িয়ে মূল পণ্যের সমান ২১২.২০% করার প্রস্তাব করা হয়। এটি সাধারণ ভ্যাপ নামে পরিচিত।

বাংলাদেশ সময়: ২১৩০ ঘণ্টা, জুন ১, ২০২৩
ইএসএস/এমএমজেড

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।