ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩ বৈশাখ ১৪৩১, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৬ শাওয়াল ১৪৪৫

ক্রিকেট

নিজের সঙ্গে ‘চিট’ না করে অপেক্ষায় ছিলেন রনি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, স্পোর্টস | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১১৩৭ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২৪
নিজের সঙ্গে ‘চিট’ না করে অপেক্ষায় ছিলেন রনি

চট্টগ্রাম থেকে: একসময় বিপিএলের সেরা বোলারদের কাতারেই থাকতো আবু হায়দার রনির নাম। এখন দিন বদলেছে।

ফরচুন বরিশাল ম্যাচের আগে কেবল একটি ম্যাচই খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন রংপুর রাইডার্সের হয়ে। ওই ম্যাচেও রনি করেছেন স্রেফ এক ওভার।

বরিশালের বিপক্ষে সুযোগ পেয়েই সেটি কাজে লাগিয়েছেন রনি। ৪ ওভারে মাত্র ১২ রান দিয়ে ৫ উইকেট নিয়ে ম্যাচের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতেছেন তিনি। এর মধ্যে এক ওভারেই নিয়েছেন তিন উইকেট। বিপিএলে বড় তারকা থেকে প্রায় পুরো মৌসুম বেঞ্চে বসে থাকা, কীভাবে নিজেকে তৈরি রেখেছেন রনি?

তিনি বলেন, ‘বাইরে বসে থাকা কখনওই সুখকর না। এটা ব্যাক অব দ্যা মাইন্ডে কাজ করে যে বাইরে বসে আছি। আমি চেষ্টা করছিলাম প্র্যাকটিসে যেন ভালো করে ম্যানেজমেন্ট যেন আমার উপর বিশ্বাস করে যে আমি পারব। আমি আমার চেষ্টাটাই হয়তো বা উনারা ভালোভাবে নিয়েছেন। আমি সবসময় চেষ্টা করি যেখানেই সুযোগ পাব আমি যেন আমার সেরাটা দিতে পারি নিজের সঙ্গে কখনও চিট করি না। ’

‘ম্যাচ শুরুর আগে কেউই চিন্তা করে না আজকে আমি এত ভালো করবো বা ম্যাচসেরা হবো। ব্যাক অব দ্যা মাইন্ডে থাকে আমি ভালো করার জন্য নেমেছি। আমি যেন দলকে ইমপ্যাক্ট পারফরম্যান্স দিতে পারি। আমার এক ওভারেই হয়ত আজকে ম্যাচ ঘুরে গেছে। এইটাই আসলে সবাই চিন্তা করে আমি যেন দলকে সাহায্য করতে পারি। যদি ম্যাচ হেরে যেতাম তাহলে আমার ৫ উইকেটের কোনো দাম থাকত না। দলের জন্য ছোট ছোট অবদান- ওটাই অনেক বড় বিষয় ম্যাচ জেতার জন্য। ’

২০১৭-১৮ মৌসুমে রংপুরের বিপক্ষেই মাত্র ১৬ রান দিয়ে ৫ উইকেট নেন সাকিব। বিপিএলে এতদিন এটাই ছিল কোনো বাংলাদেশির সেরা বোলিং ফিগার। সেটিকে এবার ছাড়িয়ে গেছেন রনি। তার কি জানা ছিল?

রংপুরের পেসার বলেন, ‘এটা আসলে জানতাম না আমি। ভালো লাগছে আলহামদুলিল্লাহ। ৫ উইকেট তো একজন বোলারের জন্য সবসময় স্পেশাল। আমার জন্য স্পেশাল দিন ছিল আলহামদুলিল্লাহ। আমি চেষ্টা করব সামনের ম্যাচগুলো আছে যদি সুযোগ পাই ভালো কিছু করার। ’

ইনিংসের ১৩তম ওভারে প্রথমবারের মতো বোলিংয়ে আসেন রনি। এই পেসার এক ওভারে তিন উইকেট নিয়ে ঘুরিয়ে দেন ম্যাচের মোড়। তখন তার পরিকল্পনা কী ছিল?

‘আমার পরিকল্পনা ছিল একদম সহজ। আমরা দেখছিলাম যে উইকেটটায় ব্যাক অব দ্যা লেংথে যদি আমরা হিট করি তাহলে একটু বাউন্স ছিল অইটাই পরিকল্পনা ছিল আমি যেন উইকেট বরাবর হার্ড লেংথে করতে পারি। ব্যাটার যেন আমাকে থ্রু দ্য লাইন খেলতে না পারে। এটাই আমার পরিকল্পনা ছিল। আর আমি বেশি কিছু চিন্তা করি নাই। একটা পরিকল্পনায় অটল ছিলাম এজন্য হয়তো আমি সফল হয়েছি। ’

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে বিপিএলের এক মৌসুমে ২১ উইকেট পান রনি। এরপর জাতীয় দলের হয়ে ১৩ টি-টোয়েন্টি খেলে নেন কেবল ৬ উইকেট। দুটি ওয়ানডে খেলে নিয়েছেন তিন উইকেট। কোথায় হারিয়ে গিয়েছিলেন রনি?

তার জবাব, ‘দেখেন যত বড় প্লেয়ারই আছে। আমি যদিও অত বড় প্লেয়ার না। সবারই একটা খারাপ সময় যায়। আমি জাতীয় দলে খেলেছি বাদ পড়েছি এর মানে এই না যে আমি ক্রিকেট খেলছি না। আলহামদুলিল্লাহ আমি ঘরোয়া ক্রিকেটে দাপটের সঙ্গেই ক্রিকেট খেলছি। ’

‘এখন যে এতদিন পর্যন্ত খেলছি ঘরোয়া ক্রিকেটে দাপটের সঙ্গে খেলছি। হয়তো আবার ওই লেভেলে যেতে পারিনি। একটু ঘাটতি ছিল। মাঝে একটু পেস ড্রপ করেছিল। আমি ওইটা নিয়ে কাজ করছি। আলহামদুলিল্লাহ ভালো হচ্ছে। ’

বাংলাদেশ সময় : ১১৩৪ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২৪
এমএইচবি/এএইচএস
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।