ঢাকা, রবিবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৯ মে ২০২৪, ১০ জিলকদ ১৪৪৫

দিল্লি, কলকাতা, আগরতলা

ভারতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন কার্যকর

নিউজ ডেস্ক  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০০৫ ঘণ্টা, মার্চ ১২, ২০২৪
ভারতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন কার্যকর

ভারতে লোকসভা নির্বাচনের আগেই সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) কার্যকর হলো। সোমবার এ সম্পর্কিত একটি বিজ্ঞপ্তি দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সিএএ চালু করার কথা ঘোষণা দেয় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে সংসদে আইনটি পাস হওয়ার প্রায় চার বছর পর চালু হলো নতুন এ নাগরিকত্ব আইন।

আগের মাসেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেছিলেন, ‘এ আইন নাগরিকত্ব প্রদানের জন্য, এটি কারো নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়ার জন্য নয়। এর লক্ষ্য হলো নির্যাতিত অমুসলিম অভিবাসীদের ভারতীয় নাগরিকত্ব প্রদান করা। ’ 

এদিকে সিএএ নিয়ে সরকারের বিজ্ঞপ্তি জারির ঠিক আগেই সংবাদ সম্মেলন করে তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেন, ‘কারো অধিকার কেড়ে নেওয়া হলে আন্দোলন হবে। তবে আইনটা আগে আমি দেখব। যদি দেখি কোনো শ্রেণির মানুষের ওপর বৈষম্য হচ্ছে, তাহলে তার বিরোধিতা করব। কোনো বৈষম্য মানব না। ’ 

তিনি বলেন, ‘দেশের কিছু ভালো হলে আমরা যেমন অভিনন্দন জানাই তেমনি দেশের কোনো খারাপ হলে আমরা তাকে সমর্থন করতে পারি না। আমি সবাইকে বলব, আপনারা ভয় পাবেন না, চিন্তা করবেন না। আধার কার্ড যখন বাতিল হচ্ছিল, আমরা রুখে দাঁড়িয়েছিলাম। আজও যদি কারো অধিকার কেড়ে নেওয়া হয় তৃণমূল একমাত্র দল এই ইস্যুতে সবার প্রথমে সরব হবে। ’

ভারতজুড়ে সিএএ আইন কার্যকর করার খবর পেয়েই আনন্দে মাতলেন পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার মতুয়া অধ্যুষিত ঠাকুরনগরের মানুষজন।

২০১৯ সালের ১১ ডিসেম্বরে ভারতের সংসদে পাস হয় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন। এ আইন অনুযায়ী ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বরের আগে বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তান থেকে আসা অমুসলিম নাগরিকরা (হিন্দু শিখ খ্রিস্টান, জৈন, পার্সি, বৌদ্ধ) ভারতীয় নাগরিকত্ব পাবেন।

যদিও এ আইনের বিরোধিতা করে প্রতিবাদে নেমেছে কংগ্রেস, তৃণমূলসহ বিরোধী দলগুলো। তাদের দাবি, ধর্মের ভিত্তিতে এ আইন কোনোভাবেই মেনে নেওয়া হবে না। এ আইনকে কেন্দ্র করে ভারতজুড়ে সেসময় সহিংসতা, বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।  

তখন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর যুক্তি ছিল, ‘করোনার কারণেই এই আইনের রূপায়ণ শুরু করা যাচ্ছে না। ’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর স্পষ্ট বার্তা ছিল, ‘এই আইন নাগরিকত্ব দেওয়ার জন্য, এটি কারও নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়ার জন্য নয়। সিএএ হলো বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানে নির্যাতিত উদ্বাস্তুদের ভারতীয় নাগরিকত্ব প্রদানের একটি আইন। ’ 

সোমবার সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিশিত প্রামাণিক গণমাধ্যমকে জানান, ‘ভারতের কোনো নাগরিকের নাগরিকত্ব যাবে না। এটা মানুষকে নাগরিকত্ব পাইয়ে দেওয়ার আইন, কারোর নাগরিকত্ব ছিনিয়ে দেওয়ার আইন নয়। আমি সবাইকে বলব নিশ্চিন্তে থাকুন। ’
 

বাংলাদেশ সময়: ১২০০ ঘণ্টা, মার্চ ১২, ২০২৪

আরএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।