ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ৩১ মে ২০২৪, ২২ জিলকদ ১৪৪৫

অর্থনীতি-ব্যবসা

‘করোনার দুদর্শা থেকে মানুষ উঠে আসতে পারেনি’

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪২০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৭, ২০২৩
‘করোনার দুদর্শা থেকে মানুষ উঠে আসতে পারেনি’

ঢাকা: কোভিডের কারণে মানুষ যে দুর্দশায় পড়েছিল মানুষ এখনও সে অবস্থা থেকে উঠে আসতে পারেনি। ছিন্নমূল মানুষের সংখ্যা বেড়েছে।

এ চিত্র এবারের শীতে ফুটে উঠেছে বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা হোসেন জিল্লুর রহমান।

শনিবার (৭ জানুয়ারি) ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের তথ্য বিষয়ক বই ‘ব্যাংকিং অ্যালমানাক’র চতুর্থ সংস্করণের  প্রকাশনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও ব্যাংকিং অ্যালমানাক গ্রন্থের এডিটোরাল বোর্ডের চেয়ারম্যান ড.  সালেহউদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান।

পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান বলেন, বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ধাক্কা বাংলাদেশেও লেগেছে। বড় বড় অর্থনীতি সংকটের মধ্যে আছে। তুলনামূলক ছোট্ট অর্থনীতির দেশ হিসেবে আমরা বৈশ্বিক বিরূপ পরিস্থিতি মোকাবিলা করে টিকে থাকার চেষ্টা করে যাচ্ছি। আশা করি আমরা বড় ধরনের ক্ষতি ছাড়াই পরিস্থিতি সামাল দেবো।

হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, অর্থনীতি নিয়ে দেওয়া বক্তব্যে সঠিক চিত্র উঠে আসছে না। এ জন্য সব আলোচনার আগে রিয়েল শব্দটি যোগ করার প্রয়োজন। ব্যাংকিংয়ের কথা বলি, প্রবৃদ্ধির কথা বলি, দারিদ্রের কথা বলে-প্রতিটি ক্ষেত্রে এখন রিয়েল শব্দটি যোগ করা জরুরি হয়ে পড়েছে।  

তিনি ফুটপাতে ছিন্নমূল মানুষের চিত্র তুলে ধরে বলেন, এটা আমাদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছে দারিদ্রের সংখ্যা বেড়েছে, প্রকৃত অবস্থা কি! এর মধ্যে অর্থনৈতিক অনেক বিষয় চলে আসে।

হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, সঠিক তথ্য অর্থনৈতিক সুশাসনে বড় ভূমিকা রাখতে পারে।

নীতি তৈরিকে জবাব দিহিতার মধ্যে আনতে হবে। ব্যাংকের আমানত ও ঋণ বিতরণে ৬ ও ৯ নিয়ে যা হচ্ছে তা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়, তিনি যোগ করেন।

ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেন,  অর্থনীতি নিয়ে যত কাজ হচ্ছে, তার চেয়ে বেশি হচ্ছে  কথা। ব্যাংকিং খাত নিয়ে যা কিছু করণীয় তা দ্রুত ও দৃশ্য্যমান হওয়া প্রয়োজন।

সাবেক এ গভর্নর আর্থিক খাত নিয়ে গৃহিত যে কোনো কর্মকাণ্ডকে প্রকাশ করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, সব কিছু প্রকাশ্যে আনলে কিছুটা আলোচনা-সমালোচনা হলেও তার বিপদ কেটে যাবে। আর গোপন রাখলে তা আরও সমস্যা বাড়াবে।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ (এবিবি) সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল আমিন, অধুনালুপ্ত বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমানুল্লাহ, বিএলএফসি’র সাবেক চেয়ারম্যান  মো. খলিলুর রহমান ও ব্যাংকিং আ্যালমানাকের নির্বাহী সম্পাদক সৈয়দ জিয়াউদ্দিন আহমেদ।

বাংলাদেশ সময়: ১৪২০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৭, ২০২৩
জেডএ /জেএইচ 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।