ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৮ মে ২০২৪, ১৯ জিলকদ ১৪৪৫

অর্থনীতি-ব্যবসা

বাগেরহাটে দরপত্র বয়কটে ২২ কোটি টাকা ফেরত যাওয়ার শঙ্কা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২৩১ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৭, ২০১৭
বাগেরহাটে দরপত্র বয়কটে ২২ কোটি টাকা ফেরত যাওয়ার শঙ্কা

বাগেরহাট: গ্রামীণ অবকাঠামো ও রাস্তার সংস্কার কাজে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের (এলজিইডি) ৩২টি প্যাকেজে আহবান করা দরপত্র প্রত্যাখ্যান করেছেন বাগেরহাটের ঠিকাদাররা। ওই প্যাকেজের কাজের মূল্য প্রায় ২২ কোটি টাকা। বাগেরহাট জেলা এলজিইডি ঠিকাদার কল্যাণ সমিতির নেতৃত্বে দরপত্রে অংশ নেননি ঠিকাদাররা।

মঙ্গলবার (২৬ ডিসেম্বর) দরপত্র জমার শেষ দিন ছিল। দরপত্রগুলোর অনুকূলে সিডিউল মূল্য ছিল সর্বোচ্চ দুই হাজার টাকা, সর্বনিন্ম এক হাজার টাকা।

কিন্তু দ্বিতীয়বারের মতো তাতে অংশ নেননি ঠিকাদাররা। এর আগে চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে একই অভিযোগে সিডিউল জমা দেননি তারা।

বাগেরহাট জেলা ঠিকাদার কল্যাণ সমিতির সদস্য সচিব আব্দুর রব সরদার বুধবার (২৭ ডিসেম্বর) বাংলানিউজকে বলেন, ‘ব্যব‎হৃত নির্মাণ সামগ্রীর দাম কয়েকগুণ বেড়েছে। কিন্তু এলজিইডি বাজারদরের সঙ্গে সমন্বয় না করে যে দরপত্র আহ্বান করেছে, তা অযৌক্তিক। এ কাজে লাভ হবে না, বরং ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে লোকসানের মুখে পড়তে হবে। তাই আমরা দরপত্রে অংশ নেইনি’।  

বর্তমান বাজারদরের সঙ্গে (পুরানো রেটকোড) সমন্বয় করে নতুন দরপত্র আহ্বানেরও দাবি জানান এ ঠিকাদার নেতা।

বাগেরহাট এলজিইডি’র জ্যেষ্ঠ সহকারী প্রকৌশলী ও দরপত্র আহ্বান কমিটির সভাপতি মো. আবু কামাল বলেন, ‘নয়টি উপজেলায় গ্রামীণ অবকাঠামো রাস্তা, কালভার্ট ও ব্রিজ সংস্কারে এ মাসের প্রথম সপ্তাহে ৩২টি প্যাকেজে ২২ কোটি টাকার দরপত্র আহ্বান করা হয়। তখন জেলার বাইরের পাঁচটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিডিউল কিনে জমা দিলেও কাগজপত্র সঠিক না থাকায় বাতিল হয়ে যায়। পরে চলতি সপ্তাহে একই কাজে দ্বিতীয়বারের মতো দরপত্র আহ্বান করি। কিন্তু এবার কোনো ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানই অংশ নেয়নি। তাই দ্বিতীয়বারের মতো দরপত্র বাতিল হল। জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে এ কাজে তৃতীয় দফায় দরপত্র আহ্বান করা হবে। তখন কোনো ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান অংশ না নিলে  নিয়ম অনুসারে বরাদ্দ হওয়া টাকা অন্য জেলার উন্নয়ন কাজের জন্য ফেরত যাবে’।  

‘দরপত্র আহ্বানের আগে নির্মাণ সামগ্রীর বাজারদর যাচাই-বাছাই করা হয়। যখন এ রেটকোড করা হয়েছিল, তখন বাজারদরের সঙ্গে সমন্বয় ছিল। সে অনুসারেই আমরা দরপত্র আহ্বান করি। এখন  দুয়েকটি সামগ্রীর দাম বেড়েছে হয়তো। তাতে দরপত্রে অংশ না নেওয়ার কোনো কারণ নেই’।  

ঠিকাদারদের এ ধরনের আচরণে রাজস্ব খাত থেকে বরাদ্দ হওয়া ২২ কোটি টাকা ফেরত গেলে বাগেরহাটবাসী উন্নয়ন বঞ্চিত হবেন বলেও দাবি তার।

বাংলাদেশ  সময়: ১৮২৫ ঘণ্টা,  ডিসেম্বর ২৭, ২০১৭
এএসআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।