ঢাকা, বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২২ মে ২০২৪, ১৩ জিলকদ ১৪৪৫

শিক্ষা

‘কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের কারণে অপ্রিয় কথা শুনতে হচ্ছে’

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট    | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১২, ২০২৩
‘কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের কারণে অপ্রিয় কথা শুনতে হচ্ছে’

ঢাকা: কিছু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ভয়াবহ আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ ওঠায় অপ্রিয় কথা শুনতে হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. কাজী শহীদুল্লাহ। অর্থ ব্যয়ে সরকারি বিধি-বিধান যথাযথভাবে অনুসরণে উপাচার্যদের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (১২ জানুয়ারি) ইউজিসিতে ‘পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের বাজেট প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন’ শীর্ষক কর্মশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইউজিসি চেয়ারম্যান এ আহ্বান জানান।

ইউজিসি সদস্য প্রফেসর ড. মো. আবু তাহেরের সভাপতিত্বে ভার্চ্যুয়াল প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠিত দিনব্যাপী কর্মশালায় কমিশনের অর্থ ও হিসাব বিভাগের অতিরিক্ত পরিচালক মো. রেজাউল করিম হাওলাদার ও শিক্ষা অডিট অধিদপ্তরের উপপরিচালক শাকিলা জামান বক্তব্য দেন।

ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, প্রতিষ্ঠানের আর্থিক অনিয়ম সরকারের এখন বড় মাথাব্যথার কারণ। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্থিক অনিয়ম রোধে এবং অডিট আপত্তি শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনতে সংশ্লিষ্ট সকলকে আর্থিক বিষয়ে বিদ্যমান বিধি-বিধান যথাযথভাবে মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি।

সকল প্রকার সংকোচে ঊর্ধ্বে উঠে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সামনে আইনের যথাযথ ব্যাখ্যা তুলে ধরতে তিনি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেন। কোন ব্যক্তি আর্থিক বিষয়ে ছাড় দিলে অপরাধের দায়ভার তাকে নিতে হবে বলেও জানান ইউজিসি চেয়ারম্যান।

তিনি আরও বলেন, কিছু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ভয়াবহ আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ গণমাধ্যমে প্রকাশিত হচ্ছে। তদারকির দায়িত্বে থাকায় ইউজিসিকেও এর দায় নিতে হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট সংসদীয় স্থায়ী কমিটি ও কম্পট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেলের অফিস থেকেও অপ্রিয় কথাও শুনতে হচ্ছে। আর্থিক অনিয়ম রোধে ইউজিসি নিরীক্ষা কার্যক্রম আরও জোরদার করছে।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সুনাম বজায় রাখা ও বিশ্ববিদ্যালয় সুষ্ঠুভাবে পরিচালনায় অডিট সেলকে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান চেয়ারম্যান।

অনুষ্ঠানে পাবলিক বিশ্ববদ্যিালয়ে আর্থিক অনিয়ম রোধ ও শৃঙ্খলা বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছেন ইউজিসি সদস্য প্রফেসর ড. মো. আবু তাহের। তিনি আর্থিক সংকট মোকাবিলায় সম্পদের যথাযথ ব্যবহার, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করা এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানান।  

এছাড়াও, হিসাবরক্ষণ ব্যবস্থায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করা এবং অডিট আপত্তি শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনতে পেশাদার হিসাব বিভাগের লোকবল দিয়ে নিরিক্ষা কাজ পরিচালনার পরামর্শ দিয়েছে ইউজিসি। নিয়োগ, পদোন্নতি ও পদোন্নয়ন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন মোতাবেক প্রদান, অগ্রাধিকার খাত বিবেচনায় নিয়ে বাজেট বাস্তবায়ন, বিধি মোতাবেক আনুতোষিক প্রদান এবং অনুৎপাদনশীল খাতে ব্যয় কমানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

ইউজিসির অর্থ ও হিসাব বিভাগের সিনিয়ির সহকারী পরিচালক মো. রবিউল ইসলামের সঞ্চালনায় কর্মশালায় দেশের ৪৮টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থ ও হিসাব বিভাগের প্রধান এবং অডিট সেল/ অডিট শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা অংশ নেন।

বাংলাদেশ সময়: ২০০৯ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১২, ২০২৩
এমআইএইচ/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।