ঢাকা, বুধবার, ৫ আষাঢ় ১৪৩১, ১৯ জুন ২০২৪, ১১ জিলহজ ১৪৪৫

নির্বাচন ও ইসি

বরিশালের দুই উপজেলা ভোট, ভোটার উপস্থিতি কম

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৯২৭ ঘণ্টা, মে ২১, ২০২৪
বরিশালের দুই উপজেলা ভোট, ভোটার উপস্থিতি কম

বরিশাল: রৌদ্রোজ্জ্বল আবহাওয়ায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বরিশালের হিজলা ও মুলাদীতে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ মে) সকাল ৮টা থেকে একযোগে এ দুই উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের ১২১টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরু হয়, যা চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

সকাল থেকেই ভোট দিতে কেন্দ্রে কেন্দ্রে হাজির হচ্ছেন ভোটাররা। তবে কিছু কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো থাকলেও কিছু কেন্দ্রে ভোটাররা আসছেন অনেকটা বিরতি দিয়ে দিয়ে। এসব কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা প্রার্থীদের এজেন্টরা বলছেন, সকালে ভোটার উপস্থিতি কম থাকলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটার উপস্থিতি বাড়বে।

হিজলা সদরের বাসিন্দা মনির হোসেন বলেন, প্রার্থীরা ভোটারদের বাড়ি থেকে আনার জন্য থ্রি-হুইলার জাতীয় যানবাহন ঠিক করে দিয়েছেন। তারপর প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরাও রয়েছেন যারা বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ভোটারদের তাগাদা দিচ্ছেন কেন্দ্রে যাওয়ার জন্য। বৃদ্ধদের কেন্দ্রে নিয়ে আসা হচ্ছে তাদের সহয়াতায়। তবে শান্ত ও স্বাভাবিক পরিবেশ থাকলে বেলা ১১টার দিকে ভোটার সংখ্যা কেন্দ্রে বৃদ্ধি পাবে।

এদিকে নদীবেষ্টিত হিজলা ও মুলাদী উপজেলা নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে কয়েক স্তর বিশিষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থার বলয় গড়ে তোলা হয়েছে। দুই উপজেলার ১২১টি কেন্দ্রের মধ্যে ৭৩ কেন্দ্রকে অতি গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ণ) চিহ্নিত করে নেওয়া হয়েছে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

বরিশাল জেলা পুলিশ সুপার ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, দুই উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সেখানে ১৪শ পুলিশ সুষ্ঠু ভোটের লক্ষ্যে কাজ করছে। এছাড়া র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব), নৌ পুলিশ, আনসার, কোস্টগার্ডের পাশাপাশি অন্তত ৪০টি মোবাইল টিম রয়েছে। এখানে কোনো অনিয়ম দেখলেই কঠোর হাতে দমন করা হবে।

অপরদিকে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করার লক্ষ্যে হিজলা ও মুলাদী উপজেলায় ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। রোববার থেকে তারা দায়িত্ব পালন শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন এ দুই উপজেলার রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্বে থাকা বরিশাল জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মনদীপ ঘড়াই।

তিনি বলেন, হিজলা ও মুলাদী উপজেলায় ২ প্লাটুন করে মোট ৪ প্লাটুন বিজিবি ২৩ মে পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে বিজিবি মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে কাজ করবে।

মুলাদীতে চেয়ারম্যান পদে আনারস মার্কার প্রার্থী তারিকুল হাসান খান মিঠুর পক্ষে বেশ কয়েকটি কেন্দ্র দখলের আতঙ্কে রয়েছেন দোয়াত-কলম প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা প্রার্থী কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জহির উদ্দীন খসরু।

অপরদিকে হিজলায় হামলা ও প্রপাগান্ডায় সুষ্ঠু নির্বাচনে বিরূপ প্রভাব পড়ার শঙ্কার কথা জানিয়েছেন বরিশালের হিজলা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ঘোড়া প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আলতাফ মাহমুদ দিপু। একই সাথে স্থানীয় সাংসদের সমর্থনের কারনে চিংড়ি মাছ প্রতীকের প্রার্থী নজরুল ইসলাম রাজু ঢালীর প্রভাব বিস্তারের শঙ্কার কথাও বলেন তিনি।

রিটার্নিং অফিসার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মনদীপ ঘড়াই জানিয়েছেন, নির্বাচন কেন্দ্রিক সহিংসতা রোধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সর্বোচ্চ ক্ষমতা প্রয়োগ করবে।

জাল ভোট দেওয়ার কোনো সুযোগ থাকবে না জানিয়ে তিনি বলেন, ভোট কক্ষে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা পরিলক্ষিত হলে পোলিং এজেন্টরা সাথে সাথে সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ও প্রিজাইডিং অফিসারকে জানাবেন। তিনি তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। শতভাগ অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। কোনো প্রার্থীর প্রভাব বিস্তারের সুযোগ থাকবে না।

বাংলাদেশ সময়: ০৯২৫ ঘণ্টা, মে ২১, ২০২৪
এমএস/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।