ঢাকা, সোমবার, ৯ বৈশাখ ১৪৩১, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২ শাওয়াল ১৪৪৫

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

চা-প্রকৃতির সুস্থতার প্রতীক ‘ত্রিদাগি হলুদ প্রজাপতি’

বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন, ডিভিশনাল সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০১৭ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৩, ২০২৩
চা-প্রকৃতির সুস্থতার প্রতীক ‘ত্রিদাগি হলুদ প্রজাপতি’ চা পাতায় বসে আছে ‘ত্রিদাগি হলুদ প্রজাপতি’। ছবি: বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন

মৌলভীবাজার: প্রকৃতি চলছে হেমন্ত। রাতের কুশায়ায় ভরে উঠে চারদিকের পরিবেশ।

গাছে গাছে সেই কুয়াশা জলজ সৌন্দর্য ছড়ায়। বিশেষত চা বাগানের গাছেদের পাতায় পাতায়। গাঢ় সবুজ পাতাতে ভরে উঠে কুশায়ার জলীয় আবরণ।  শুধু তা-ই নয়, পাতাদের এই জলজ সৌন্দর্যে এসে বসে থাকে এক ধরনের প্রজাপতি। এগাছ-সেগাছ হয়ে তার দৌড়ঝাঁপ আর ওড়াউড়ি যেন ফুরোয় না! ছোট এই পাখায় এতটাই ক্লান্তিহীন উদ্দাম!

মাঝারি ধরনের হলুদ রঙের এই প্রজাপতির আসলে বাংলা নাম নেই। তবে প্রস্তাবিত বাংলা নামটি হলো ‘ত্রিদাগি হলুদ প্রজাপতি’। ইংরেজি নামানুসারে বাংলা এ নামটির দেয় হয়েছে।  
এ প্রজাপতির ইংরেজি নাম Three-spot Grass Yellow এবং বৈজ্ঞানিক নাম Eurema blanda. এরা মাঝারি আকারের এক ধরনের হলুদ বর্ণের প্রজাপতি। প্রসারিত অবস্থায় এদের ডানার আকার ৪০-৪৫ মিলিমিটার দৈর্ঘ্যের হয়।

চায়ের রাজধানী শ্রীমঙ্গলে সম্প্রতি এক চা সেকশনে (সুনির্দিষ্ট সীমানায় চা আবাদের এলাকা) অনেক সময় ধরে পর্যবেক্ষণ করে এদের একটি বিশেষ চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য খুঁজে পাওয়া গেছে। আর তা হলো, ‘ত্রিদাগি হলুদ প্রজাপতি’ চা গাছের পাতাপ্রিয় প্রজাপতি। চায়ের পাতায় পাতায় বসে থাকে চুপিসারে। কখনো অল্পক্ষণ। আবার কখনো বহুক্ষণ ধরে। যেন অন্যত্র উড়ে যাওয়ার ইচ্ছে নেই। চা-পাতা ছাড়া অন্যদিকে নেই তার মনোযোগ।

দ্বৈত্য সৌন্দর্য নিয়ে বসে আছে ‘ত্রিদাগি হলুদ প্রজাপতি’।  ছবি: বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন মজার একটি বিষয় দেখা গেল, চা গাছের পাতায় যে ‘ত্রিদাগি হলুদ প্রজাপতি’টি নীরবে বসে আছে, হঠাৎ বলা নেই-কয়া নেই অপর একটি ‘ত্রিদাগি হলুদ প্রজাপতি’ এসে তাকে দুষ্টুমি করে তার গায়ে ধাক্কা দিয়ে তাকে অনাসায়ে উড়িয়ে দিলো। ওকে তাড়িয়ে সেও আর এই স্থানে এসে বসলো না। তারপর ওরা একত্রে শুরু করে দিলো ওড়াউড়ি! প্রকৃতির এই অদেখা সৌন্দর্যটুকু শুধুই বিস্ময়ে ভরা।

প্রজাপতি এমনিতেই অস্থির স্বভাবের পতঙ্গ। তবে কিছু কিছু প্রজাতি রয়েছে কিছুক্ষণ নিশ্চুপ বসে থাকে। ‘ত্রিদাগি হলুদ প্রজাপতি’ এ স্বভাবের নয়। চা বাগানের গাছগুলো এখন ‘ত্রিদাগি হলুদ প্রজাপতি’দের দখলে। একাকী কিংবা দ্বৈতভাবে অথবা সদলবলে চলছে তাদের খুনসুটি!

শুধুই সৌন্দর্য বাড়ানো নয়, ওরাই প্রকৃতির সুস্থতা জানান দেওয়ার তাদের এই নিরন্তর প্রয়াসটুকু চালিয়ে যাচ্ছে দিনের পর দিন ধরে। এ যেন চা বাগানের এক অন্যরকম প্রাকৃতিক অনুভূতি। এরাই চা জনপদের সুস্থতার প্রতীক।

বাংলাদেশ সময়: ১০১৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৩, ২০২৩
বিবিবি/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।