ঢাকা, বুধবার, ১১ বৈশাখ ১৪৩১, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১৪ শাওয়াল ১৪৪৫

ফিচার

পৌষ উৎসবে মেতেছিল ঢাকাস্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সাংবাদিক ফোরাম

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৩০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৩, ২০২৩
পৌষ উৎসবে মেতেছিল ঢাকাস্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সাংবাদিক ফোরাম ‘মাটি তোদের ডাক দিয়েছে আয়রে চলে, আয় আয়’ স্লোগানে পৌষ উৎসব উদযাপন করেছে বিজেএফডি। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: ‘মাটি তোদের ডাক দিয়েছে আয়রে চলে, আয় আয়’ স্লোগানে পৌষ উৎসব উদযাপন করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সাংবাদিক ফোরাম-ঢাকা (বিজেএফডি)।  

শুক্রবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) এ উৎসবের আয়োজন করা হয়।

বিজেএফডি সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজার উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে সকাল ৯টায় ফিতা কেটে উৎসবের উদ্বোধন করেন কথাসাহিত্যিক ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মফিজ উদ্দিন (আহমেদ ফরিদ)। উৎসব শেষ হয় নির্ধারিত সময়েরও একঘণ্টা পর, দুপুর ১টায়।  

এ উৎসবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঐতিহ্যবাহী দুধ চিতই, পাটিসাপটা, পোয়া (তেলের পিঠা), ম্যারা, ভাঁপা, পাক্কন, নারকেলের পুলি পিঠাসহ বাহারি রকমের পিঠা খাওয়ার ব্যবস্থা ছিল। পাশাপাশি ছিল চায়ের আয়োজন। সেই সঙ্গে ছিল শীতে পাতিলে করে আগুন পোহানোর আবহমান বাংলার গ্রামীণ ঐতিহ্য ‘আইল্লা’।  

পিঠা খাওয়া আর চা পানের ফাঁকে ফাঁকে লোকসঙ্গীত উপভোগ করেন সাংবাদিক ও অতিথিরা। ছোট ছোট জটলায় আড্ডা আর লাকড়ির চুলায় বানানো গরম চিতই-ভাপা খাওয়ার চলছিল পৌষ উৎসবের পুরোটা সময়।  

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিজেএফডির সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বলেন, রাজধানী ঢাকায় বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকদের সংগঠন বিজেএফডির এটি একটি বাৎসরিক অনুষ্ঠান। প্রতি বছর শীতের সময় পিঠা উৎসবের আয়োজন করা হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঐতিহ্যবাহী পিঠা এ উৎসবে প্রদর্শন করা হয়। প্রতিবারের মতো এবারও আমরা পৌষ উৎসবের আয়োজন করেছি।

তিনি বলেন, বাৎসরিক এ পিঠা উৎসবের আয়োজনের মাধ্যমে বিজেএফডির সদস্যদের চিত্তবিনোদনের পাশাপাশি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঐতিহ্যকে তুলে ধরার এটি একটি ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা সব সময় আমরা করে থাকি। অদূর ভবিষ্যতে বৃহৎ পরিসরে পিঠা উৎসবও ব্রাক্ষণবাড়িয়া সাংস্কৃতিক উৎসব করার পরিকল্পনা আছে।

অনুষ্ঠানে বিজিএফডির সিনিয়র সদস্য ও জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক জাকারিয়া কাজল, সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক শাহ মুহাম্মদ মুতাসিম বিল্লাহ, সিনিয়র সহ-সভাপতি গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, সহ-সভাপতি শামিমুল হক, এনটিভির বিশেষ প্রতিনিধি হাসান জাবেদ, যমুনা টিভির সিনিয়র রিপোর্টার শরিফুল ইসলাম খান, বিজেএফডির প্রচার সম্পাদক জুবায়ের চৌধুরী, গল্পকার ও বাংলানিউজের সিনিয়র নিউজরুম এডিটর সোহরাব শান্ত-সহ বিজেএফডির শতাধিক সদস্য।    

সাংবাদিক ছাড়াও উৎসবে অংশ নেন নজরুল গবেষক ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব জেহাদ উদ্দিন, ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. সন্তোষ কুমার দেব, একই বিভাগের অধ্যাপক ড. শরিফ উদ্দিন প্রমুখ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন- বিএফইউজে, ডিইউজে, ডিআরইউ, ক্র্যাবসহ বিভিন্ন সাংবাদিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতারা।

পৌষ উৎসবে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানানো হয় জাতীয় প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী নির্বাচনে কমিটির নির্বাচনে বিজয়ী সদস্য সৈয়দ আবদাল আহমেদ, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির কার্যনির্বাহী কমিটির-২০২৩ সালের নির্বাচনে অর্থ সম্পাদক পদে নির্বাচিত সাখাওয়াত সুমন, রিপোর্টার্স এগেইনস্ট করাপশনের দপ্তর সম্পাদক পদে বিজয়ী সৈয়দ ঋয়াদ ও কার্যনির্বাহী সদস্য পদে নির্বাচিত তাবারুল হককে।

পৌষ উৎসবের আহ্বায়ক ছিলেন বিজেএফডির সাংগঠনিক সম্পাদক ও দৈনিক সমকালের সাজিদা ইসলাম পারুল।  

বাংলাদেশ সময়: ২০২৫ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৩, ২০২৩
এসআর/এসএ
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।