ঢাকা, শনিবার, ১৫ আশ্বিন ১৪৩০, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৫

ভারত

মুখ্যমন্ত্রী হলে ছ’মাসের মধ্যে রাজ্যটাকে বদলে দেব, চ্যালেঞ্জ মিঠুনের

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১১২ ঘণ্টা, জুন ২, ২০২৩
মুখ্যমন্ত্রী হলে ছ’মাসের মধ্যে রাজ্যটাকে বদলে দেব, চ্যালেঞ্জ মিঠুনের

কলকাতা: ‘পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হলে ৬ মাসের মধ্যে রাজ্যটাকে বদলে দেব। ’ এমন চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন অভিনেতা তথা বিজেপি নেতা মিঠুন চক্রবর্তী।

 

শুক্রবার (২ জুন) বিকেলে সল্টলেক ইজেডসিসি সভাগৃহে আরএসএস (রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ)-এর ছাত্র সংগঠন, অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ (এবিভিপি) -এর একটি কর্মসূচিতে যোগ দিয়েছিলেন মিঠুন। অনুষ্ঠানে বাংলার বর্তমান পরিস্থিতি, শিক্ষাব্যবস্থায় নিয়োগ দুর্নীতি নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে মিঠুন চক্রবর্তী বলেছেন, ‘ছ’মাসের জন্য যদি আমায় বাংলার মুখ্যমন্ত্রী করে দেন, তাহলে রাজ্যের ছবিটা বদলে যাবে। এই বাংলা আর থাকবে না। ’

প্রশ্নোত্তর পর্বে রাজ্যের বর্তমানে শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে মিঠুন বলেছেন, ‘কোনও প্রজন্মকে শেষ করে দিতে হলে, আগে শিক্ষাব্যবস্থাকে শেষ করতে হয়। সেটাই হচ্ছে। বাংলার শিক্ষাব্যবস্থার বর্তমান যা হাল, তাতে শ্মশানটা খুব কাছাকাছি। বাংলার পরিবর্তন সাধারণ মানুষই করতে পারবে। ’

বাংলার বুদ্ধিজীবীদের একাংশ শাসক দলের প্রতি নীরবতার কারণ হিসেবে মিঠুন বলেছেন, ‘বর্তমানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল নানা দুর্নীতিতে বিদ্ধ। গত কয়েক মাসে রাজ্যে একাধিক ধর্ষণ, খুনের অভিযোগ উঠেছে। কিছুদিন আগে পর্যন্ত বাংলার বুদ্ধিজীবীদের রাস্তায় নেমে মিছিলে হাঁটতে দেখা যেত। কিন্তু এখন দেখা যায় না। বাংলায় যখনই কোনও ঘটনা ঘটেছে আমরা বাঙালিরা তার প্রতিবাদ করেছি। কিন্তু এখন আমরা প্রতিবাদ করতে ভুলে গেছি। কারণ, যারা প্রতিবাদের ক্ষেত্রে সামনের সারিতে থাকেন, তাদের আত্মা শাসক দলের কাছে বিক্রি হয়ে গেছেন। ’

মিঠুন বলেছেন, ‘বর্তমান বাংলার দুর্নীতি নিয়ে আমি প্রতিবাদ করতে চাই। আমি জানি অনেক বাধা আসবে। তবুও প্রতিবাদ করতে হবে। আমিও তোমাদের (এবিভিপি) সঙ্গে প্রতিবাদে আছি। ’

তবে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হলে ৬ মাসের মধ্যে রাজ্যটাকে বদলে দেবেন, মিঠুনের এই কথার প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। তার কথায়, ‘যদি আপনাদের নেতা শুভেন্দু অধিকারী এসব শোনেন তাহলে তো ওপর থেকে ঝাঁপ দেবেন। তখন আপনার বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনার মামলা হবে। আপনার সর্ব ভারতীয় সহসভাপতি দিলীপ ঘোষও একথা শুনলে ওপর থেকে ঝাঁপ মারবে। তখন কী করবেন?

কুণাল আরও বলেছেন, ‘আপনি এমএলএ ফাটাকেস্ট, মিনিস্টার ফাটাকেস্ট, চিফ মিনিস্টার ফাটাকেস্ট -সিনেমা করুন, অভিনয়ে করুন। শখ যখন হয়েছে তখন কাউকে জোগাড় করে নিয়ে ছবিতে ছবিতে মুখ্যমন্ত্রী হোন। আপনি (মিঠুন) বাংলার বিজেপির অতিথি শিল্পী। মাঝে মাঝে আসেন, মুখ দেখান, দু’চারটে গরম গরম কথা বলেন, তারপর ফিরে যান। আমাদের বাদ দিন, এমন কিছু বলবেন না, যাতে আপনার দলের লোকই অপমানে পড়ে যায়। ’

বাংলাদেশ সময়: ২১০৯ ঘণ্টা, জুন ০২, ২০২৩
ভিএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
welcome-ad
Alexa