ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৩ জুন ২০২৪, ০৫ জিলহজ ১৪৪৫

ভারত

পশ্চিমবঙ্গে ঝড়বৃষ্টি ও ইভিএমে ভোটগ্রহণে ব্যাঘাত

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৫৭ ঘণ্টা, মে ২০, ২০২৪
পশ্চিমবঙ্গে ঝড়বৃষ্টি ও ইভিএমে ভোটগ্রহণে ব্যাঘাত

কলকাতা: ভারতের লোকসভা নির্বাচনে পঞ্চম ধাপের ভোটগ্রগণ চলছে। পশ্চিমবঙ্গে বিকেল তিনটা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৬২ শতাংশ।

ভোটগ্রহণ চলবে সন্ধ্যা ৬ পর্যন্ত। তবে বহু কেন্দ্র থেকে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) নষ্ট বলে অভিযোগ এসেছে। এরই মাঝে ঝড়বৃষ্টির কারণে ভোট প্রক্রিয়া অনেকটাই বিঘ্নিত হয়। ঝড়বৃষ্টির কারণে বনগাঁ ও ব্যারাকপুরে সবচেয়ে বেশি ভোট প্রক্রিয়ায় বিঘ্ন ঘটে। পাশাপাশি হাওড়া এবং উলুবেড়িয়াতে একই সমস্যা দেখা গেছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া স্বাভাবিকভাবেই চলছিল। হঠাৎই প্রবল বেগে হাওয়া বইতে থাকে। ঝড়ের দাপটে বেশ কিছু অস্থায়ী ছাউনি ভেঙে পড়তেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন ভোটাররা। ভোটকেন্দ্র ছেড়ে যে যার মতো দৌড়ে পালাতে থাকেন।

উত্তর ২৪ পরগনার গাইঘাটার ঝাউডাঙা পঞ্চায়েতের আংরায়েলের ২১৭ নম্বর বুথে প্রবল ঝড়বৃষ্টির কারণে ভোটগ্রহণ বন্ধ হয়ে যায়। ঝড়বৃষ্টিতে ভোট প্রক্রিয়া ব্যাহত হয় ব্যারাকপুরের বিভিন্ন কেন্দ্রেও। বহু কেন্দ্রে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় ভোটদানে বিঘ্ন ঘটে।

তবে এর পাশাপাশি বহু বিক্ষিপ্ত অশান্তির ঘটনা সামনে এসেছে। হাওড়া আসনে পুলিশ এবং কেন্দ্রীয় বাহিনীর সামনেই বিজেপি সমর্থকদের মেরে মাথা ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছিলেন বিজেপি প্রার্থী রথীন চক্রবর্তী।

হাওড়ার লিলুয়া অঞ্চলে ভোট চলাকালীন বোমাবাজি-গুলির শব্দ শোনা গিয়েছে বলে অভিযোগ। এরপরই বুথ ছেড়ে কার্যত পালিয়ে যান ভোটাররা। থমথমে হয়ে যায় গোটা এলাকা।

উত্তর ২৪ পরগনার টিটাগড়ে সাময়িক অশান্তির ঘটনা সামনে এসেছে। বিজেপি নেতা আইনজীবী কৌস্তভ বাগচীকে ঘিরে বিক্ষোভ করেন তৃণমূল সমর্থকরা। ভাঙচুর করা হয়েছে তার গাড়ি। কৌস্তভের অভিযোগ, তৃণমূলের লোকজন বুথ জ্যাম করে ভোট করাচ্ছেন। এই খবর পেতেই সংশ্লিষ্ট বুথে যাচ্ছিলেন কৌস্তভ। এরপর তিনি পৌঁছাতেই তাকে ঘিরে বিক্ষোভ করতে থাকেন তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরা। বুথে ঢুকতে গেলে তার গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সাহায্য করেন কেন্দ্রীয় বাহিনীর সদস্যরা।

শ্রীরামপুর লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত ডোমজুড় দেবীপাড়ায় বিজেপির ক্যাম্প অফিস ভাঙচুরের অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা তৈরি হয়। এছাড়া ডোমজুড়ে সিপিএম-এর পোলিং এজেন্টকে মারধর করে উঠিয়ে দেওয়া হয়েছে, অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

সোমবার (২০ মে) পঞ্চম ধাপে পশ্চিমবঙ্গসহ ৬ রাজ্য ও দুই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল মিলিয়ে ৪৯ আসনে ভোটগ্রহণ হচ্ছে। এর মধ্যে পশ্চিমবঙ্গের হুগলি, আরামবাগ, শ্রীরামপুর, হাওড়া, উলুবেড়িয়া, বনগাঁ ও ব্যারাকপুর—এই ৭ আসনে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে সকাল সাতটা থেকে, চলবে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত।

পশ্চিমবঙ্গের এই ৭ লোকসভা আসনে মোট ১৩ হাজার ৪৮১টি বুথে চলছে ভোটগ্রহণ। তার মধ্যে ৭ হাজার ৭১১টি বুথকে স্পর্শকাতর বুথ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ওই সাত লোকসভা আসনে মোট নারী পরিচালিত বুথের সংখ্যা ১,৪৬০টি।

গত ধাপের মতো নির্বাচনী প্রতিহিংসার যাতে পুনরাবৃত্তি না হয়, সে কারণে এই ধাপের ৭ আসনে নিরাপত্তা নিয়ে কোনো ঝুঁকি নিতে নারাজ নির্বাচন কমিশন। যার জেরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে বাড়ানো হয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর সংখ্যা। এই ৭ কেন্দ্রে সবমিলিয়ে মোতায়েন করা হয়েছে ৭৬২ কোম্পানি আধা সামরিক সশস্ত্র সেনাবাহিনী। যার মধ্যে ভোটকেন্দ্রের পাহারায় রয়েছে ৬১৩ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। বাকিগুলো কুইক রেসপন্স টিম হিসেবে রাখা আছে। কোথাও কোনো অশান্তি হলে মাঠে নামবে অন্যান্য বাহিনী। বুথের বাইরে রাখা হয়েছে আরও অতিরিক্ত ২৫ হাজার ৫৯০ জন সশস্ত্র রাজ্য পুলিশ।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৫৬ ঘণ্টা, ২০ মে ২০২৪
ভিএস/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।