ঢাকা, বুধবার, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১, ২৪ জুলাই ২০২৪, ১৭ মহররম ১৪৪৬

ভারত

ঈদ উপলক্ষে ত্রিপুরায় জমজমাট পশুর হাট

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৩৫ ঘণ্টা, জুন ১৩, ২০২৪
ঈদ উপলক্ষে ত্রিপুরায় জমজমাট পশুর হাট

আগরতলা (ত্রিপুরা): আগামী সোমবার (১৭ জুন) উদযাপিত হবে ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম প্রধান উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা। এই ঈদ উদযাপনে পশু কোরবানি অন্যতম অনুষঙ্গ।

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ত্রিপুরা রাজ্যেও ঈদের নানা আয়োজন-প্রস্তুতি চলছে। বসছে কোরবানির পশুর হাট।  

ঈদ উপলক্ষে রাজ্যের সবচেয়ে বড় পশুর হাট বসে সিপাহীজলা জেলার বক্সনগর এলাকায়। প্রতি বছরের মতো এ বছরও বক্সনগর মিনি স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বসেছে জমজমা পশুর হাট।  

সুশৃঙ্খল ও শান্তিপূর্ণভাবে এই হাটের ব্যবস্থাপনার জন্য স্থানীয় বিধায়ক তফাজ্জল হোসেনের নির্দেশে আগে থেকেই প্রস্তুতি নেওয়া হয়। এজন্য হিন্দু-মুসলিম মিলিত প্রয়াসে ৩৫ জন নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়। প্রখর রোদে ক্রেতা-বিক্রেতা নির্বিশেষে সবার জন্য পানীয় ও শরবতের ব্যবস্থা করা হয় কমিটির পক্ষ থেকে। দূর থেকে আসা ক্রেতা-বিক্রেতাদের ছায়ায় বিশ্রামের জন্য বানানো হয় একটি শেডের।  

স্থানীয় সময় সকাল ৭টা থেকে এই পশুর হাট শুরু হয়। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সকাল থেকেই গবাদি পশু নিয়ে আসেন বিক্রেতারা। এই পশুর হাটে গরু ছাড়াও ছাগল তোলা হয়েছে।  এবার এই হাটে সবচেয়ে বড় গবাদি পশুটি বিক্রি হয় তিন লাখ ৬৫ হাজার রুপিতে। এটি সোনামুড়া ময়নামা এলাকা থেকে নিয়ে আসেন বিক্রেতা।  

এদিন হাট পরিদর্শন করেছেন এলাকার বিধায়ক তফাজ্জল হোসেন। তিনি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, বক্সনগর এলাকার চিরাচরিত রীতি অনুযায়ী হিন্দু-মুসলিমের সম্মিলিত প্রয়াসে ঈদ-পূজা অনুষ্ঠিত হয়। এ বছরও ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের ঈদ উপলক্ষে হিন্দু-মুসলিমের প্রয়াসে পশুর হাট বসেছে। ঈদ উদযাপনও শান্তিপূর্ণভাবে হবে।

তিনি বলেন, ছোট-বড় প্রচুর গবাদি পশু ও ছাগল উঠেছে হাটে। মানুষ উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বেচাকেনা করছেন। শান্তি-শৃঙ্খলার সঙ্গে ঈদ উদযাপিত হবে বলে আশাবাদী।  

বক্সনগরে এবারের ঈদ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার শেষ হাট অনুষ্ঠিত হয়। এরপর হাট বসবে সোনামুড়ার সোনাপুর এলাকায়।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩৩ ঘণ্টা, জুন ১৩, ২০২৪
এসসিএন/এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।