ঢাকা, মঙ্গলবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২১ মে ২০২৪, ১২ জিলকদ ১৪৪৫

তথ্যপ্রযুক্তি

বাংলাদেশ-নেপাল-ভুটানে একসঙ্গে কাজ করবে আইভ্যালু ও ভিএমওয়্যার

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৪৭ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২২
বাংলাদেশ-নেপাল-ভুটানে একসঙ্গে কাজ করবে আইভ্যালু ও ভিএমওয়্যার

ঢাকা: এখন থেকে আইভ্যালু ইনফোসল্যুশনসের সঙ্গে কাজ করবে বিশ্বের অন্যতম সেরা ক্লাউড কম্পিউটিং কোম্পানি ভিএমওয়্যার।

বাংলাদেশ, নেপাল ও ভুটানে ডিজিটাইজেসন ও অ্যাপ্লিকেশন মর্ডানাইজেসনের মাধ্যমে ওয়ার্কলোড অপ্টিমাইজেসন নিয়ে আইভ্যালু ইনফোসল্যুশনসের সঙ্গে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছে কোম্পানিটি।

আইভ্যালু ইন্টারন্যাশনাল বিজনেসের সিইও রমেশ উমাশঙ্কর জানান, বিবিআইএন (বাংলাদেশ, ভুটান, ইন্ডিয়া ও নেপাল) করিডোর অঞ্চলে পরবর্তী অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আশা করা হচ্ছে এবং বাংলাদেশ এই ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় শক্তি হিসেবে কাজ করবে। স্থানীয় পর্যায়ে স্বতন্ত্র ব্যবসা ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে অংশগ্রহণের মাধ্যমে আইভ্যালু সল্যুশন নিজেদের কৌশলগত অবস্থান ধরে রেখেছে। আইভ্যালুর লক্ষ্য হল অংশীদার গোষ্ঠীর সঙ্গে একটি ইকো-সিস্টেম গড়ে তোলার মাধ্যমে ক্রেতা ও সেবা গ্রহীতাদের কাছে ভিএমওয়্যারের প্রযুক্তি ও সেবা গ্রহণকে ত্বরান্বিত করা। এছাড়াও এই দলগত চুক্তির মাধ্যমে অন্যান্য অংশীদাররা ভিএমওয়্যারের সেবাগুলো নিজ নিজ মার্কেটে পরিচিত ও উন্নত করার সুযোগ পাবে। ভিএমওয়্যারের ‘২০২১ ভিএমওয়্যার মার্কেট ইনসাইট রিপোর্ট’ অনুযায়ী ২০২৪ সাল নাগাদ প্রায় ৫৩ শতাংশ অ্যাপলিকেশন আধুনিকীকরণ করা হবে ও সম্মিলিতভাবে মাল্টি-ক্লাউডের ব্যবহার বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

ভিএমওয়্যারের ভিয়েতনাম ও বর্ধনশীল বাজারের হেড অব চ্যানেলস ভেঙ্কাটেশ মুরালি বলেন, “আমাদের কাজ করার পদ্ধতিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন এসেছে। বাংলাদেশ, নেপাল এবং ভুটানের মতো উচ্চ প্রবৃদ্ধির ভৌগোলিক অঞ্চলের সংস্থাগুলি একটি ‘অ্যানিহোয়ার’ সংস্থায় রূপান্তরিত হওয়ায় আরও বেশি কর্মচারীকে বাড়ি থেকে কাজ করার জন্য ক্ষমতায়ন ও নমনীয়তার একটি নতুন মডেল তৈরি করে কর্মীদের আরও নির্বিঘ্ন এবং নিরাপদে সহযোগিতা করতে এবং উদ্ভাবন করতে সক্ষম করা জরুরি হয়ে পড়েছে। তাই কর্মচারীরা যেখানেই থাকুন না কেন পেশাগত দায়িত্ব পালনে তাদের জন্য এটিকে বাস্তবে পরিণত করতে সাহায্য করার জন্য আমরা আইভ্যালুর সঙ্গে কাজ করতে উৎসুক।

গ্রাহক জীবন চক্র এবং পণ্য জীবন চক্র কাঠামো চর্চা করে আইভ্যালু সর্বদা ডিজিটাল সম্পদ সুরক্ষা, অপ্টিমাইজেসান এবং ট্রান্সফরমেশনের নানা দিককে অগ্রাধিকার দিয়েছে। শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হিসাবে আইভ্যালু সমন্বিত সেবা প্রদানের মাধ্যমে উদ্ভাবনকে উৎসাহিত করে যা নানা ধরনের ব্যবসায়িক উদ্যোগগুলির জন্য তথ্য, নেটওয়ার্ক এবং অ্যাপ্লিকেশন (DNA) পরিচালনাকে শক্তিশালী করে। আইভ্যালু সংস্থাগুলিকে তাদের বিদ্যমান আইটি পরিকাঠামোকে স্মার্টভাবে, দক্ষতার সঙ্গে এবং কার্যকরভাবে দেখতে এবং পুনরায় বিবেচনা করতে সহায়তা করে। আইভ্যালুর একটি বাড়তি সুবিধা হচ্ছে বিশ্বস্ত গ্রাহক হিসাবে এর ১০০ টিরও বেশি শীর্ষস্থানীয় ব্র্যান্ড আটটিরও বেশি এলাকাজুড়ে রয়েছে, যেখানে ১৩টির বেশি জায়গায় শক্তিশালী স্বতন্ত্র দল কাজ করছে ও বাজারের প্রবৃদ্ধি সাধারণের তুলনায় ৫ গুণ বেশি।

আইভ্যালু ইনফোসল্যুশনস একটি শীর্ষস্থানীয় স্মার্ট ও অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সল্যুশন সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান যা বিভিন্ন ব্যবসায়িক উদ্যোগকে তাদের ডিজিটাল সম্পদ ব্যবস্থাপনা, উন্নয়ন ও সুরক্ষা দিতে সহায়তা করে। শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হিসাবে আইভ্যালু সমন্বিত সেবা প্রদানের মাধ্যমে উদ্ভাবনকে উত্সাহিত করে যা নানা ধরনের ব্যবসায়িক উদ্যোগগুলির জন্য তথ্য, নেটওয়ার্ক এবং অ্যাপ্লিকেশন (DNA) পরিচালনাকে শক্তিশালী করে।

অন্যদিকে ভিএমওয়্যার একটি শীর্ষস্থানীয় মাল্টিক্লাউড সার্ভিস প্রোভাইডার যা বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনের জন্য এন্টারপ্রাইজ কন্ট্রোল ও ক্লাউড সেবা প্রদানের মাধ্যমে ডিজিটাল উদ্ভাবনকে সমর্থন করে। ভবিষ্যৎ নির্মাণের জন্য প্রয়োজনীয় নমনীয়তা ও পছন্দ সরবরাহের মাধ্যমে ভিএমওয়্যার সফটওয়্যারগুলো ব্যবসায়িক উদ্যোগকে সহয়তা করে থাকে। ভিএমওয়্যারের সদর দপ্তর ক্যালিফোর্নিয়ার পালো অল্টোতে এবং কোম্পানিটি তাদের ২০৩০ সালের এজেন্ডার মাধ্যমে একটি ভাল ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৪৭ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২২
কেএআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।