ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

আন্তর্জাতিক

যুক্তরাষ্ট্রে গুলিতে বাংলাদেশি যুবক হত্যা ও ধারাবাহিক বিচারবহির্ভূত খুন

সুফিয়ান সিদ্দিকী, অতিথি লেখক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪২৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১০, ২০২৩
যুক্তরাষ্ট্রে গুলিতে বাংলাদেশি যুবক হত্যা ও ধারাবাহিক বিচারবহির্ভূত খুন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে প্রায়শই ‘গণতন্ত্র এবং মানবাধিকারের চ্যাম্পিয়ন’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। কিন্তু গত দুই দশক ধরে, এটি একটি বহুসংস্কৃতির সমাজে রূপান্তরিত হওয়ার সাথে সাথে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রাতিষ্ঠানিক বর্ণবাদ, ঘৃণামূলক অপরাধ এবং আইন প্রয়োগকারী দ্বারা বিচারবহির্ভূত হত্যাসহ অসংখ্য ঘরোয়া মানবাধিকার সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে।

অসংখ্য পরিসংখ্যান বন্দুক সম্পর্কিত সহিংসতার উদ্বেগজনক বৃদ্ধি প্রদর্শন করে, যার মধ্যে বিচারবহির্ভূত মৃত্যুদণ্ড এবং ঘৃণামূলক অপরাধের পাশাপাশি মানবাধিকারের পদ্ধতিগত লঙ্ঘন রয়েছে। ঘৃণামূলক অপরাধ, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড এবং পুলিশি সহিংসতা মার্কিন সমাজের দৈনন্দিন সমস্যা। উপরন্তু, সরকার কার্যকর নীতি চালু করতে বা প্রণয়ন করতে ব্যর্থ হচ্ছে। বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের ক্ষেত্রে দায়মুক্তির একটি ব্যাপক সংস্কৃতি রয়েছে। ‘চ্যাম্পিয়নকে’ ইদানিং ঘরের মাঠে লড়াই করতে দেখা যাচ্ছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সশস্ত্র ব্যক্তিদের হামলার এটাই প্রথম ঘটনা নয়। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্যের কেমব্রিজে পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন বিদেশে বসবাসকারী বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের এক যুবক। বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব নিউ ইংল্যান্ড বৃহস্পতিবার কেমব্রিজ সিটি হলের বাইরে ম্যাসাচুসেটস অ্যামহার্স্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ২০ বছর বয়সী সাইদ ফয়সালের ‘নৃশংস হত্যার’ বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে। তারা ফয়সালের মৃত্যুকে, পরিবারের একমাত্র সন্তানের মৃত্যুকে ‘শ্বেতাঙ্গ পুলিশ অফিসারদের বর্ণবাদী কাজ’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে। সমিতি ফেসবুকে পোস্ট করে বলেছে, ‘এটা কোনো অর্থেই গ্রহণযোগ্য নয়’।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব নিউ ইংল্যান্ডের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা কেমব্রিজের মেয়র সুম্বল সিদ্দিকীর সাথে দেখা করে একটি ব্যাখ্যা চেয়েছিলেন। এই তরুণ ভাইয়ের জন্য অবশ্যই ন্যায়বিচার করতে হবে। পুলিশি বর্বরতার অবসান ঘটাতে হবে।

স্থানীয় গণমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, নিহত ইউনিভার্সিটি অব ম্যাসাচুসেটস আমহার্স্টের ছাত্রের নাম আরিফ সাঈদ ফয়সাল, বয়স ২০। তার চাচা সেলিম জাহাঙ্গীর জানান, তার জন্ম যুক্তরাষ্ট্রে হলেও তার বাবা-মা চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার বাসিন্দা।  

পুলিশের বরাত দিয়ে সিবিএস নিউজ জানায়, ফয়সালের কাছে একটি বিশাল ছুরি ছিল। কিন্তু নিহতের চাচা সেলিম জাহাঙ্গীর দৃঢ়ভাবে এই দাবিকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। মিডিয়া রিপোর্টেও বলা হয়েছে, তাদের কাছে ফয়সালের ধারালো বস্তুর দাগ দেওয়ার কোনও ভিডিও দেওয়া হয়নি।

সেলিম জাহাঙ্গীর বলেন, ফয়সাল শান্ত স্বভাবের ছিলেন। তিনি ও তার পরিবার বুঝতে পারছেন না কেন পুলিশ এমন করল! তাছাড়া তিনি ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত এবং প্রথমে যে পুলিশ কর্মকর্তাকে গুলি করেছে তাকে শাস্তি দেওয়ার আহ্বান জানান। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে নিরস্ত্র বেসামরিক লোকদের পুলিশ মৃত্যুর দিকে অনেক মনোযোগ কেন্দ্রীভূত হয়েছে, যা ব্যাপক বিক্ষোভের জন্ম দিয়েছে।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন শুক্রবার বলেছেন, বাংলাদের বিশ্বের কোথাও নির্বিচারে ও ঘৃণামূলক অপরাধকে সমর্থন করে না। শুক্রবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রে একজন বাংলাদেশি হত্যার ঘটনার মতো বিশ্বের কোথাও কোনো ঘৃণ্য অপরাধ ঘটুক তা বাংলাদেশ চায় না।

গত বছরের ২৪ মে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আরও একবার রক্ত ঝরেছিল। সালভাদর রামোস নামে ১৮ বছরের তরুণ ১৯টি শিশু ও দুইজন শিক্ষককে হত্যা করেছিল। টেক্সাসের উভালদে রব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই ঘটনা ঘটার পর পুলিশ পৌঁছানোর আগেই সীমান্ত টহল এজেন্টরা ওই তরুণকে গুলি করে হত্যা করে। অর্থাৎ আরেকটি বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ঘটে। টেক্সাসের ওই প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গুলি চালানোর কিছুক্ষণ পরেই কানাডার টরন্টোতে স্কুলের আশেপাশে একজন বন্দুকধারীকে পুলিশ গুলি করে হত্যা করেছে। এগুলি বিচারবহির্ভূত মৃত্যুদণ্ডের উদাহরণ যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডায় সংঘটিত হয়েছে। দুটি দেশই উন্নত মানবাধিকার আইনের জন্য বিশ্বে পরিচিত।

এরকম ঘটনা প্রায়ই যুক্তরাষ্ট্রে ঘটে। বিবিসি ও এএফপি জানিয়েছে, গত বছরের মে মাসে নিউইয়র্কের বাফেলোতে একটি সুপারস্টোরে গুলিতে দশজন নিহত হয়েছেন। ২০১২ সালে কানেক্টিকাটের স্যান্ডি হুক এলিমেন্টারি স্কুলে বন্দুকধারীর গুলিতে ২০ জন শিশু এবং আরও ছয়জন নিহত হয়। গত বছর, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই ধরনের গুলিবর্ষণের ২৬টি ঘটনা ঘটেছে। ২০২০ সালে, শিশু এবং কিশোর-কিশোরীদের মৃত্যুর প্রধান কারণ হিসেবে গুলির সংখ্যা সড়ক দুর্ঘটনাকে ছাড়িয়ে যাবে।

এদিকে আবার বাংলাদেশে বিচারবহির্ভূত মৃত্যুদণ্ডের বিষয়টি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মানবাধিকার বিভাগের অনেকদিন ধরেই দৃষ্টি আকর্ষণ করছে। অনেক পরিসংখ্যান ব্যবহার করে তারা এটা বলতে চায়, বাংলাদেশের আইন প্রয়োগকারী কর্তৃপক্ষ এই বিচারবহির্ভূত মৃত্যুদণ্ডের সাথে জড়িত।

যুক্তরাষ্ট্রে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা দ্বারা বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড নিয়ে তুরস্কের চ্যানেল ‘টিআরটি ওয়ার্ল্ড’ একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সেখানে বলা হয়েছে, ২০১৩ থেকে ২০১৯- এই সাত বছরে যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশ গুলিতে মোট সাত হাজার ছয়শ ৬৬ জন মারা গেছে। এদের মধ্যে অধিকাংশই শ্বেতাঙ্গ নন। এছাড়া শ্বেতাঙ্গ আমেরিকানদের চেয়ে অন্তত তিনগুণ কালো আমেরিকান পুলিশের গুলিতে নিহত বা আহত হয়েছেন বলেও পরিসংখ্যানে উল্লেখ করা হয়েছে।  

এর মধ্যে ২০১৩ সালে ১ হাজার ১০৬ জন, ২০১৪ সালে এক হাজার ৫০ জন, ২০১৫ সালে এক হাজার ১০৩ জন, ২০১৬ সালে এক হাজার ৭১ জন, ২০১৭ সালে এক হাজার ৯৫ জন, ২০১৮ সালে এক হাজার ১৪৩ জন, এবং ২০১৯ সালে এক হাজার ৯৮ জন। এর মধ্যে ২০১৮ সালে এক হাজার ১৪৩ জন পুলিশের গুলিতে মারা গিয়েছিল যা দেশটির ইতিহাসে সর্বোচ্চ। প্রতিবছর গড়ে প্রায় এগারোশ জন মানুষ নিহত হয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, এগুলো কেবল পুলিশের গুলিতে কোনো বিচারছাড়া নিহতের হিসাস; পুলিশ হেফাজতে বা অন্য কোনো কারণে মৃত্যু এই পরিসংখ্যানে অন্তর্ভুক্ত নয়।

যে কোনো বিচারবহির্ভূত মৃত্যুদণ্ড ভুল। এ ধরনের বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড অনেক দেশেই ঘটে থাকে। তবে সেখানে এমন পদক্ষেপ নেওয়ার সাহসের অভাব রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের। এটি যুক্তি দেওয়া সঠিক যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বা কানাডার মতো দেশগুলির এখন সাম্প্রতিক ঘটনাগুলির আলোকে নিজেদের পরীক্ষা করা উচিত। বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি যে লেন্সের মাধ্যমে তারা দেখে তা পরিবর্তন করার এখন অতীত। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যখন নিজেই মানবাধিকার লঙ্ঘন করে, তখন একই বিষয়ে অন্যদেরকে তদারকি করার যোগ্যতা হারায়।

বাংলাদেশ সময়: ১৪২৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১০, ২০২৩
নিউজ ডেস্ক

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।