ঢাকা, বুধবার, ১৯ মাঘ ১৪২৯, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৯ রজব ১৪৪৪

আন্তর্জাতিক

হাইতিতে দুই সাংবাদিককে গুলি করে পুড়িয়ে হত্যা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৫৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৭, ২০২২
হাইতিতে দুই সাংবাদিককে গুলি করে পুড়িয়ে হত্যা

ক্যারিবিয়ান অঞ্চলের দেশ হাইতিতে দুই সাংবাদিককে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে। দুর্ধর্ষ একটি ‘গ্যাং’ তাদের গুলি করার পর মাটিতে ফেলে জীবিত অবস্থাতেই গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়।

দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী এ খবর নিশ্চিত করেছে বলে খবর সিএনএনের।

খবরে বলা হয়েছে, রাজধানী পোর্ট-অ-প্রিন্সের পেশন-ভিলে এলাকায় দুটি গ্যাংয়ের আধিপত্য বিস্তারের লড়াই চলছিল। সেই খবর সংগ্রহ করতে ওই দুই সাংবাদিক সেখানে যান।  

জানা গেছে, এই হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে টি মাকাক গ্যাং। হামলার উদ্দেশ্য ও বিস্তারিত বিবরণ এখনো স্পষ্ট নয়। ওই ঘটনায় একজন সাংবাদিক পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছেন।

রেডিও ইকুটে এফএম এএফপিকে জানায়, উইলগুয়েনস লুইসেন্ট এবং আমাদি জন ওয়েসলি গুলিবর্ষণে নিহত হয়েছেন। একজন তৃতীয় সাংবাদিক, যিনি সেই সময় তাদের সঙ্গে ছিলেন, তিনি পালিয়ে যান।

ওয়েসলিকে নিযুক্ত রেডিও ইকোউট এফএম-এর সাধারণ পরিচালক ফ্রাঙ্কি আটিস বলেন, "আমরা এই অপরাধমূলক এবং বর্বর কাজের কঠোরতম নিন্দা জানাই। "

তার বিবৃতিতে "জীবনের অধিকারের ওপর গুরুতর আক্রমণ" এবং "সাংবাদিকরা এই দেশে অবাধে তাদের পেশা চালিয়ে যেতে না পারার” নিন্দা জানানো হয়।  
 
হাইতির গ্যাংগুলি সম্প্রতি পোর্ট-অ-প্রিন্সের দরিদ্র এলাকায় ছাড়িয়ে পড়ে তাদের আধিপত্য বিস্তারের নেশায় মেতেছে।  

ছয় মাস আগে, তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জোভেনেল মোইসেকে পোর্ট-অ-প্রিন্সে তার ব্যক্তিগত বাসভবনে হত্যা করা হয়। হাইতিয়ানরা প্রতিদিন যে রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা সংকট নিয়ে কাজ করেন তা আরও খারাপ হয়ে গেছে।  

২০২১ সালে হাইতিতে কমপক্ষে ৯৫০টি অপহরণের ঘটনা রেকর্ড করা হয়েছে। সেন্টার ফর অ্যানালিসিস অ্যান্ড রিসার্চ ইন হিউম্যান রাইটস পোর্ট-অ-প্রিন্সে অবস্থিত।

২০২১ সালের মার্চ মাস থেকে হাইতির পুলিশ এই দলগুলোর বিরুদ্ধে কোনো বড় আকারের অভিযান চালায়নি।  

গত ১২ মার্চ পোর্ট-অ-প্রিন্স এলাকায় অভিযানের চেষ্টা চালানোর সময় চার পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হন।

২০০০ সালের এপ্রিল মাসে দ্বীপরাষ্ট্রের সবচেয়ে বিখ্যাত প্রতিবেদক হাইতির সাংবাদিক জিন ডমিনিকের হত্যার বিষয়টি এখনো অমীমাংসিত।

২০২১ সালের জুন মাসে সাংবাদিক দিয়েগো চার্লস সহএকজন বিরোধী রাজনৈতিক কর্মী এবং আরও ১৩ জন নিহত হন। পোর্ট-অ-প্রিন্স গুলিচালনার অপরাধীদের আইন শৃঙ্খলা বাহিনী শনাক্ত করতে পারেনি।

ফটোসাংবাদিক ভ্লাদিজিমির লেগাগনেউর মার্চ ২০১৮ এর রিপোর্টিং ট্রিপ থেকে আর ফিরে আসেননি মার্টিসান্টের দরিদ্র এলাকায় ভ্রমণ করে— এখন পুরোপুরি গ্যাং দ্বারা নিয়ন্ত্রিত।

২০১৯ সালের জুন ও অক্টোবর মাসে আরও দুই সাংবাদিকের হত্যার তদন্তও শেষ হয়নি।

বাংলাদেশ সময়: ২০৪৬ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৭, ২০২২
নিউজ ডেস্ক

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa