ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ শাবান ১৪৪৫

জাতীয়

প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল মাদরাসাছাত্রী

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৯৪৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৪, ২০২৩
প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল মাদরাসাছাত্রী

ফরিদপুর: জেলার সালথা উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল তানজিলা আক্তার সুমি (১৭) নামের এক মাদরাসাছাত্রী।  

শুক্রবার (১৩ জানুয়ারি) বিকেলে উপজেলার গট্টি ইউনিয়নের খর্দ লক্ষণদিয়া গ্রামে স্থানীয় কওমি মাদ্রাসার ছয় জামাতের এক শিক্ষার্থীর বিয়ের আয়োজন করেন পরিবারের লোকজন।

এমন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার বিকেলে বিয়ে বাড়িতে গিয়ে হাজির হন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. সালাউদ্দিন আইয়ুবী। তিনি উপস্থিত হয়ে ঘটনার সত্যতা পেয়ে বিয়েটি বন্ধ করে দেন।

এ সময় মেয়ের বয়স কম হওয়ায় বাল্যবিয়ে নিরোধ আইন ২০১৭ অনুযায়ী মেয়ের বাবা ইব্রাহিম শেখকে ৫০ হাজার ও ছেলের বাবা ফরিদপুর সদর উপজেলার বিল মাহমুদপুর গ্রামের মোতালেব মৃধাকে ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. সালাউদ্দিন আইয়ুবী বলেন, বাল্যবিয়ে চলছে এমন গোপন তথ্যের ভিত্তিতে সেখানে উপস্থিত হয়ে কনের জন্ম নিবন্ধন চাওয়া হয়। সেটা যাচাই-বাছাই করে জানা যায় কনের বিয়ের বয়স হয়নি। পরে কনের বাবা ও বরের বাবাকে প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দেওয়া হয়েছে এবং ১৮ বছর বয়স না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে বিয়ে দিবেন না এ মর্মে সুমির বাবা মুচলেকা দিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, বাল্যবিয়ে দেশ ও জাতির জন্য অভিশাপ। সুতরাং বাল্যবিয়ে নিরোধকল্পে সালথা উপজেলা প্রশাসনের এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এ সময় সালথা উপজেলা কৃষি অফিসার জীবাংশু দাস, সালথা থানা পুলিশের এসআই আবু রায়হান নূর ও এসআই নাজমুলসহ পুলিশের একটি টিম উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ০৯৪৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৩, ২০২৩
এসআইএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।