ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২৩ শাবান ১৪৪৫

জাতীয়

বিজিএমইএ শিল্পের জ্ঞানের চাহিদা মেটাতে লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করেছে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০৫৩ ঘণ্টা, মার্চ ২৮, ২০২৩
বিজিএমইএ শিল্পের জ্ঞানের চাহিদা মেটাতে লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করেছে

ঢাকা: বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) তথ্য, গবেষণা এবং শিক্ষার চাহিদা মেটাতে উত্তরায় তার প্রধান কার্যালয়ে একটি লাইব্রেরি স্থাপন করেছে। যা পোশাক শিল্পের টেকসই উন্নয়নের পথে অগ্রযাত্রাকে তরান্বিত করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বলে মনে করবে বিজিএমইএ।

সোমবার (২৭ মার্চ) ঢাকার উত্তরায় বিজিএমইএ কমপ্লেক্সে বিজিএমইএ লাইব্রেরির উদ্বোধন করেন বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান।

বিজিএমইএ লাইব্রেরির নামকরণ প্রফেসর ড. মযহারুল ইসলামের নামে করা হয়েছে, যিনি ছিলেন একাধারে বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, লেখক, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য, বাংলা একাডেমির প্রথম মহাপরিচালক, বীর মুক্তিযোদ্ধা, পোশাক শিল্পের পথিকৃৎ ও স্প্যারো অ্যাপারেলস লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাতা, বিজিএমইএর সাবেক সহ-সভাপতি এবং শিক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০২৩ সালে একুশে পদকপ্রাপ্ত।

১৯৮৫ সালে ড. মযহারুল ইসলাম স্প্যারো অ্যাপারেলস লিমিটেড নামক পোশাক শিল্প কারখানা প্রতিষ্ঠা করেন এবং এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বিজিএমইএ বোর্ডে ১৯৮৫-৮৭ মেয়াদে সহ-সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন এবং পোশাক শিল্পের উন্নয়নে অনবদ্য অবদান রাখেন।

লাইব্রেরি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএর সহ-সভাপতি (অর্থ) খন্দকার রফিকুল ইসলাম; সহ-সভাপতি মো. নাসির উদ্দিন; পরিচালক নীলা হোসনে আরা: বিজিএমইএ স্ট্যান্ডিং কমিটি অন প্রেস, পাবলিকেশন অ্যান্ড পাবলিসিটির চেয়ারম্যান এবং ড. মাযহারুল ইসলামের ছেলে, শোভন ইসলাম এবং বিজিএমইএর বিভিন্ন স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যানরা।

বিজিএমইএ লাইব্রেরি হলো একটি অত্যাধুনিক লাইব্রেরি, যেখানে পোশাক শিল্পের সাথে সম্পর্কিত বই, জার্নাল এবং অন্যান্য সম্পদের বিশাল সংগ্রহ রয়েছে। গ্রন্থাগারটি জ্ঞান ও গবেষণার একটি কেন্দ্র হিসেবে কাজ করবে, যা বৈশ্বিক পোশাক শিল্পের সর্বশেষ প্রবণতা এবং প্রযুক্তির সাথে তাল মিলিয়ে পোশাক শিল্পের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

এই লাইব্রেরির সংগ্রহে পোশাক শিল্প সংক্রান্ত মুদ্রিত গ্রন্থ, দলিলপত্রাদি, পান্ডুলিপি, চিত্রকর্ম, সমসাময়িক ও প্রাসঙ্গিক বিভিন্ন বিষয় সংক্রান্ত বই, প্রকাশনা, সাময়িকী, গুরুত্বপূর্ণ পুরনো সংবাদপত্র, মাইক্রোফিল, অডিও-ভিজ্যুয়াল, পোশাক শিল্পের পথিকৃতদের নিয়ে গণমাধ্যমের প্রতিবেদন, দেশ-বিদেশের শিল্প ও সাহিত্যকর্ম থাকবে।

অনুষ্ঠানে বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, পোশাক শিল্প টেকসই প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে। এর জন্য আমাদের ব্যবসায়িক অনুশীলন, সর্বশেষ উন্নত প্রযুক্তি এবং বৈশ্বিক ফ্যাশন শিল্পের সর্বশেষ প্রবণতাসহ শিল্পের সাম্প্রতিক ঘটনা এবং উন্নয়ন সম্পর্কে জ্ঞানের প্রয়োজন হবে।

তিনি আরও বলেন, বিজিএমইএ লাইব্রেরি বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের জন্য একটি টেকসই এবং উন্নত ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। জ্ঞানভাণ্ডার হিসেবে এটি শিল্প পেশাজীবী, গবেষক, ডিজাইনার এবং উৎপাদনকারীদের শিল্পের সর্বশেষ প্রবণতা ও চর্চা বিষয়ে অবহিত হতে সহায়তা করবে।

বাংলাদেশ সময়: ০০৫০ ঘণ্টা, মার্চ ২৮, ২০২৩
এমকে/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।