ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

জমিতে পানি দিতে দেরি হওয়ায় সেচপাম্প মালিককে হত্যা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫৫২ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৫, ২০২৪
জমিতে পানি দিতে দেরি হওয়ায় সেচপাম্প মালিককে হত্যা প্রতীকী ছবি

বগুড়া: বগুড়ার গাবতলী উপজেলায় বোরো ধানের জমিতে পানি দিতে দেরি হওয়ায় ছুরিকাঘাতে আমিনুল ইসলাম (৪৩) নামে এক সেচপাম্পের মালিককে হত্যা করা হয়েছে।

হত্যার সঙ্গে জড়িত হৃদয় (২৩) নামে এক যুবককে স্থানীয় লোকজন আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছেন।

 

বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলা বুজরুক এলাকায় এই হত্যাকাণ্ড ঘটে।  

নিহত আমিনুল ইসলাম বগুড়া গাবতলী উপজেলার নেপালতলী ইউনিয়নের বুরুজ গ্রামের মোজাফফর হোসেনের ছেলে ৷ 

আটক হৃদয় বগুড়া সদর উপজেলার নিশিন্দারা এলাকার বাসিন্দা।  

নিহত আমিনুলের ছোট ভাই আব্দুর রহমান জানান, বুরুজ মাঠের জমিতে বাণিজ্যিকভাবে সেচপাম্প পরিচালনা করতেন তার ভাই। তাদের গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে দীপন কয়েকদিন আগে তার জমিতে পানি সেচ দেওয়ার জন্য আমিনুলের কাছে যান। কিন্তু আমিনুল তার জমিতে পানি দিতে বিলম্ব হবে বলায় বিরোধ সৃষ্টি হয়। এর জের ধরে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে হৃদয় নামের ওই যুবক সেচ পাম্পে গিয়ে আমিনুলকে তাৎক্ষণিক দীপনের জমিতে পানি সেচ দিতে বলেন। এনিয়ে তাদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা শুরু হয়।

তিনি আরও জানান, একপর্যায়ে আমিনুলের বুকে ও পাঁজরে ছুরিকাঘাত করেন হৃদয়। আমিনুলকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বেলা ১১টার দিকে তিনি মারা যান। এদিকে ছুরিকাঘাতের পর হৃদয় নামের ওই যুবক পালাতে গেলে এলাকাবাসী তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

গাবতলী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, হৃদয় নামের ওই যুবক বগুড়া শহরের নিশিন্দারা থেকে গাবতলীর বুরুজ গ্রামে তার নানা বাড়ি বেড়াতে যায়। সেখানে স্থানীয়দের বিবাদে জড়িয়ে সেচপাম্প মালিক আমিনুলকে ছুরিকাঘাত করেন। আমিনুল ইসলামের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ওই হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। মরদেহ দাফন শেষে নিহতের থানায় মামলা করবেন বলে পুলিশকে জানিয়েছেন পরিবার।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৪৭ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৫, ২০২৪
কেইউএ/এসএএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।