ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ মাঘ ১৪২৯, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০ রজব ১৪৪৪

জাতীয়

রাজধানীর সব সড়কেই যানবাহনের চাপ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৪৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১০, ২০২২
রাজধানীর সব সড়কেই যানবাহনের চাপ

ঢাকা: রাজধানী জুড়ে কর্মব্যস্ত মানুষ ও যানবাহনের চাপ অনেক বেড়ে গেছে। প্রতিটি সড়কের একই পরিস্থিতি দেখা গেছে।

সকাল থেকেই সড়কে তীব্র যানজটে আটকে থাকায় অফিসগামীদের অনেককে হেঁটে চলাচল করতে হয়েছে।

সোমবার রাজধানীর হাতিরঝিলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন-২০২২ অনুষ্ঠিত হয়। এজন্য ভোর সাড়ে ৪টার থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত হাতিরঝিল এলাকায় যানবাহন প্রবেশ বন্ধ রাখা হয়। সে সঙ্গে ম্যারাথন দল রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়াম থেকে দৌড় শুরু করে তা রাজধানীর কাকলী বনানী হয়ে কামাল আতাতুর অ্যাভিনিউ দিয়ে গুলশান-২ ও ১ নম্বর হয়ে হাতিরঝিলে প্রবেশ করে। এতে ওইসব সড়ক সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়।

এতে রাজধানী জুরে সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট। তবে ডিএমপি সোমবার দুপুর পর্যন্ত সড়কে ডাইভারসন ব্যবস্থাও রেখেছে।  

ডিএমপি থেকে জানানো হয়েছে, রেইনবো ক্রসিং থেকে যে সমস্ত যানবাহন হাতিরঝিল হয়ে গুলশান, বনশ্রী, রামপুরা এবং বাড্ডায় যেতে ইচ্ছুক, তারা মগবাজার, মৌচাক হয়ে যাবেন। রামপুরা ইউলুপ এবং ইসলাম টাওয়ার দিয়ে যে সমস্ত গাড়ি হাতিরঝিলের মধ্য দিয়ে যেতে ইচ্ছুক, তারা গুলশান বাড্ডা লিংক রোড হয়ে যাবেন। পুলিশ প্লাজা হয়ে যে সমস্ত গাড়ি হাতিরঝিলের মধ্য দিয়ে বিভিন্ন দিকে যেতে ইচ্ছুক, তারা পুলিশ প্লাজা এবং শুটিং ক্লাবের মাঝের রাস্তা দিয়ে বাড্ডা লিংক রোড হয়ে যাবেন।

তবে ধীরগতি হলেও যানবাহনের চলাচল রাখতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক ভোর থেকে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এই বিভাগের কর্মকর্তা ও সদস্যরা ভোর ৪ টা থেকেই সড়কে অবস্থান নিয়ে দায়িত্ব পালনে তৎপর রয়েছেন।

সোমবার (১০ জানুয়ারি) সকাল থেকে রাজধানীর আব্দুল্লাহপুর থেকে উত্তরা, বিমানবন্দর, খিলক্ষেত থেকে বনানী পর্যন্ত তীব্র যানজট। এদিকে খিলক্ষেত থেকে বাড্ডা, রামপুরা, মালিবাগ অপর দিকে মগবাজার মহাখালী, সাতরাস্তা, কারওয়ান বাজারের উভয় পাশের সড়কে রয়েছে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপ৷

সবগুলো সড়কেই অনেক ধীরগতিতে যানবাহন চলাচল করছে৷ এদিকে নগরীর বিভিন্ন সড়কে মেট্রোরেল ও বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। যে কারণে যানজটের মাত্রা তীব্র থেকে তীব্রতর হয়ে উঠেছে।

উত্তরা হাউজবিল্ডিং এলাকা থেকে অফিসের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয় ফারহান সাদিক। তিনি গুলশানের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, সকালে এসেই এই সড়কে তীব্র যানজট দেখে একটি পাঠাও মোটরসাইকেলে চড়ি। কিন্তু বিমানবন্দর পর্যন্ত যেতে অনেক সময় চলে যায়। এরপর সেখান থেকে নেমে হেঁটে হেঁটে অফিসের দিকে রওনা দেই। দুপুরের কিছু আগে অফিসে পৌঁছেছি।  

সিএনজি অটোরিকশা চালকদের অনেকেই গাড়ি বন্ধ রেখে বসে আছেন। তারা জানান, দুপুরের পর সড়কে যানজটের চাপ কিছুটা কমলে যাত্রী তুলবেন।

এদিকে কর্মজীবী মানুষদের অধিকাংশই হেঁটে হেঁটে যার যার গন্তব্যের দিকে যাচ্ছেন।  

পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের মহাখালী জোনের ট্রাফিক ইনস্পেক্টর মো. সালাউদ্দিন বাংলানিউজকে বলেন, আজ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর ঢাকা ম্যারাথন-২০২২ অনুষ্ঠিত হয় আর্মি স্টেডিয়াম থেকে হাতিরঝিলে৷এই কারণে অনেক সড়ক সাময়িক বন্ধ রাখা হয়। যে কারণে যানজট কিছুটা বেড়েছে। সেইসঙ্গে সড়কের বিভিন্ন স্থানে অনেক প্রজেক্টের কাজ চলমান রয়েছে। এজন্য সড়কর অনেক ভাঙা ও খানা-খন্দ থাকায় ও সপ্তাহের অন্যান্য দিনগুলোতেও যানজট লেগে থাকে৷ তবে ট্রাফিক বিভাগের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ চেষ্টা করে জনমানুষদের চলাচলে যানজট নিরসনের৷ আশা করছি দুপুরের পরপরই সড়কগুলো স্বাভাবিক হয়ে যাবে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৪৪৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১০, ২০২২
এসজেএ/এসআইএস 
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa