ঢাকা, রবিবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৯ মে ২০২৪, ১০ জিলকদ ১৪৪৫

মুক্তমত

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে উঠছে

হীরেন পণ্ডিত | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪০২ ঘণ্টা, এপ্রিল ৭, ২০২৩
শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে উঠছে

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাঙালি জাতীয়তাবাদ প্রতিষ্ঠা, গণতান্ত্রিক সংস্কৃতির লালন, শোষণ মুক্ত সমাজ বিনির্মাণ এবং একটি উন্নত সমৃদ্ধ আধুনিক, প্রগতিশীল রাষ্ট্রব্যবস্থা বিনির্মাণের লক্ষ্যে কাজ করে চলেছেন।

বাংলাদেশ জন্মের ৫২ বছর অতিক্রম করলো।

বাংলাদেশ নানা দিক থেকেই এগিয়ে যাচ্ছে। আর এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না, অগ্রগতির মধ্যদিয়েই একটি দেশ সমৃদ্ধ হয়। যদি বিশ্বের অন্যান্য দেশ বাংলাদেশের অগ্রগতির স্বীকৃতি দেয় এবং প্রশংসা করে, তবে তা অত্যন্ত ইতিবাচক এবং অনুপ্রেরণার। সম্প্রতি পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত খবরে জানা গেল, বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রগতির প্রশংসা করে এবং এই অগ্রগতিকে স্বীকৃতি দিতে মার্কিন কংগ্রেসে একটি বিল উত্থাপন করা হয়েছে। মহান স্বাধীনতা দিবসের ৫২ বছর উপলক্ষে সম্প্রতি এই বিল উত্থাপন করা হয়। জানা যায়, মার্কিন কংগ্রেসে বিলটি উত্থাপন করেন যুক্তরাষ্ট্রের সাউথ ক্যারোলিনা অঙ্গরাজ্যের রিপাবলিকান কংগ্রেস ম্যান জো উইলসন। তিনি কংগ্রেসের বাংলাদেশ ককাসের কো-চেয়ার। বিলটি উত্থাপনের সময় কংগ্রেস ম্যান জো উইলসন- ৫২ বছর আগের পরিস্থিতি মনে করিয়ে দেন।

এতে বলা হয়েছে, দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর পাকিস্তানের কাছ থেকে স্বাধীনতা পায় বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করেছিলেন বাঙালিরা। এরপর ১৯৭২ সালের ৪ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্র সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়। এ ছাড়া বিলে বলা হয়েছে, স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে একটি যুদ্ধ বিধ্বস্ত দরিদ্র দেশ থেকে দ্রুতবর্ধনশীল অর্থনীতির দেশ হওয়ার পথে বাংলাদেশের গত পাঁচ দশকের যাত্রা ছিল অভাবনীয়। বিশ্বব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, ২০২১ সালে বাংলাদেশিদের মাথাপিছু জিডিপির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৪৫৭ ডলারে, যা এখন প্রতিবেশী অনেক দেশকে ছাড়িয়ে গেছে। যখন বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা করে মার্কিন কংগ্রেসে বিল উত্থাপন করা হয়েছে, তখন সেটি নিঃসন্দেহে আমাদের জন্য সুখকর এবং আশাব্যঞ্জক। একইসঙ্গে এই প্রশংসা অনুপ্রেরণা হিসেবেও কাজ করবে। বাংলাদেশ নানা দিক থেকেই এগিয়ে যাচ্ছে। যা বিশ্বের বিভিন্ন দেশেই আলোচনায় এসেছে।

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার ছিল ৯ বিলিয়ন ডলার। গত ৫ দশকে তা বেড়ে ৪৫০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়েছে। গড় আয়ু ৪৭ বছর থেকে বেড়ে হয়েছে ৭৩ বছর। শিক্ষার হারও ৭৫ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। আর এসব অর্জনকে অভাবনীয় উল্লেখ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করা হয়েছে। এ ছাড়া বিলটিতে আরও বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে খাদ্য উৎপাদন, দুর্যোগ সহনশীলতা, দারিদ্র্য কমিয়ে আনা, স্বাস্থ্য, শিক্ষা খাতের উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়নসহ বিভিন্ন খাতে নজর কাড়া অগ্রগতি অর্জন করেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশকে এগিয়ে নেওয়ার কাজটি সহজ ছিল না। নানা ধরনের ঘাত-প্রতিঘাত পেরিয়ে দেশের অগ্রগতি অব্যাহত আছে। ফলে যে বিষয়গুলো সামনে আসছে তা প্রেরণা হিসেবে গ্রহণ করে সংশ্লিষ্টদের কর্তব্য হওয়া দরকার আরও বেশি পদক্ষেপ গ্রহণ ও দেশের সামগ্রিক সমৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যে উদ্যোগী হওয়া। আমলে নেওয়া দরকার, বিলে এটিও উঠে এসেছে, একটি উদারনৈতিক দেশ হিসেবে উগ্রবাদ মোকাবিলায় বাংলাদেশের অর্জন প্রশংসনীয়। দেশটির জনগণ বরাবরই স্বৈরাচারী শাসন না মেনে গণতন্ত্র ও আইনের শাসনের প্রতি সমর্থন বজায় রাখতে চেয়েছে। অন্যদিকে প্রস্তাবে বলা হয়েছে, আ লিক ও আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা এবং জলবায়ু পরিবর্তন রোধে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করছে। সর্বোপরি বিলে নানা বিষয় উঠে এসেছে। যেখানে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে নিরাপত্তাজনিত সহযোগিতার মাধ্যমে দেশটি মার্কিন অর্থনীতির বিকাশে ভূমিকা রাখছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

অন্যদিকে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ায় বিলে বাংলাদেশের প্রশংসা করে বলা হয়েছে, মিয়ানমারে গণহত্যার মুখে থাকা ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছে বাংলাদেশ। এজন্য আমেরিকার জনগণের প্রশংসা কুড়ানোর বিষয়ও উঠে এসেছে। আর এই সংকট মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্র দুই বিলিয়ন ডলারের বেশি অর্থমূল্যের মানবিক সহায়তা দিয়ে বাংলাদেশের পাশে রয়েছে এমনটিও সামনে এসেছে। এ ছাড়া জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশ নেতৃত্বের আসনে থাকা করোনা মহামারি মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে টিকা সহায়তা দেওয়ায় মার্কিন জনগণকে ধন্যবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ। যে বিষয়গুলো বিলে উঠে এসেছে এবং বাংলাদেশের প্রশংসা করা হয়েছে, তা অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক। ফলে সামগ্রিক পরিস্থিতি আমলে নিয়ে দেশকে এগিয়ে নিতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে এবং আরও সুদূর প্রসারী উন্নয়ন নিয়ে ২০৩০ সালে এসডিজি অর্জন ও ২০৪১ সালে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে হবে।

অনেক পরিবর্তন ও অনেক উন্নয়ন! অবকাঠামোসহ অনেক বিষয়ে দেশ এগিয়েছে। চোখের সামনে যা দৃশ্যমান তা অস্বীকার করা নিছক বোকামি। আওয়ামী লীগ সরকার অবকাঠামোগত উন্নয়নে ও নাগরিক সেবাকে জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছে, সহজ করে দিয়েছে এবং এতে সরকার প্রধানের কঠোর নির্দেশনা আছে এটা মানতেই হবে। গ্রাম ও প্রত্যন্ত অ লে যোগাযোগ ব্যবস্থা এবং সড়ক কাঠামো চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা যাবে না যে, এসব অ লের মানুষ জীবন-জীবিকাকে কতটা সহজভাবে গ্রহণ করতে পেরেছেন, অভ্যস্ত হয়ে উঠেছেন। শেখ হাসিনার স্বপ্ন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া, দেশের মানুষকে উন্নয়নের স্বাদ পাইয়ে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছেন। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস রচনা, বঙ্গবন্ধুর অস্তিত্বকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে স্থান দিয়ে যথাযথ মর্যাদার আসনে বসানোই ছিল মূল লক্ষ্য।

বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা সংগ্রামের অঙ্গীকার ছিলো দেশবাসীর অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা ও শিক্ষা ইত্যাদি মৌলিক অধিকার পূরণ করা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশি-বিদেশি নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে উন্নয়ন, অগ্রগতি আর সমৃদ্ধির পথে হাঁটছেন। ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত একটি প্রগতিশীল, গণতান্ত্রিক ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে ৩ লাখ ৫০ হাজারের বেশি ভূমি ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে জমিসহ ঘর বিতরণ করেছেন। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য চারটি ভিত্তি সফলভাবে বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। এগুলো হলো-স্মার্ট সিটিজেন, স্মার্ট ইকোনমি, স্মার্ট গভর্নমেন্ট ও স্মার্ট সোসাইটি। এর পাশাপাশি হাতে নেওয়া হয়েছে ২১০০ সালের বদ্বীপ কেমন হবে- সেই পরিকল্পনা। স্মার্ট বাংলাদেশে সব কাজ, সম্পাদন করা হবে প্রযুক্তির মাধ্যমে। যেখানে প্রত্যেক নাগরিক প্রযুক্তি ব্যবহারে হবে দক্ষ। ২০৪১ সালের স্মার্ট বাংলাদেশ হবে সাশ্রয়ী, টেকসই, বুদ্ধিভিত্তিক, জ্ঞানভিত্তিক এবং উদ্ভাবনী বাংলাদেশ। স্মার্ট সিটি ও স্মার্ট ভিলেজ বাস্তবায়নের জন্য স্মার্ট স্বাস্থ্যসেবা, স্মার্ট ট্রান্সপোর্টেশন, স্মার্ট ইউটিলিটিজ, নগর প্রশাসন, জননিরাপত্তা, কৃষি, ইন্টারনেট কানেকটিভিটি ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা হবে।

শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে গত ১৪ বছরেরও বেশি সময় ধরে দেশকে যেভাবে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন ও বাংলাদেশ বর্তমান বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটেও অন্য দেশগুলোর মতো বড় ধরনের কোনো অর্থনৈতিক সংকটে না পড়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে তিনি এই সময়ে দেশের অর্থনৈতিক ভিত্তিকে শক্ত অবস্থানে নিতে পেরেছেন। তা না হলে ১৭ কোটি মানুষের দেশটাকে এই সংকটকালেও বিপর্যয়ের হাত থেকে রক্ষা করা বেশ কঠিন হতো।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শাসনামলে বাংলাদেশের যে অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জিত হয়েছে সেটিকে আলাদা করে দেখার কোনো উপায় নেই। কংগ্রেসের বিলেও তারই প্রতিধ্বনি ঘটেছে। বিলটি উত্থাপনের সময় জো উইলসন ৫২ বছর আগে ১৯৭২ সালের ৪ এপ্রিল বাংলাদেশকে যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দেয়ার বিষয়টি সামনে আনেন। বাংলাদেশের জনগণ আশা করছে যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে একটি অসাম্প্রদায়িক, জঙ্গিমুক্ত গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে ওঠার ক্ষেত্রে দেশের অভ্যন্তরে বিরাজমান সমস্যাকে অতিক্রম করার ক্ষেত্রে সহযোগিতা প্রদানে কোনো ধরনের কার্পণ্য করবে না। কারণ বাংলাদেশ আর্থসামাজিক ক্ষেত্রে যে সাফল্য অর্জন করেছে তার অন্যতম কাণ্ডারি হচ্ছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা।

শুধু মার্কিন কংগ্রেসই নয়, ৩০ মার্চ নিউইয়র্কভিত্তিক অর্থবিষয়ক সংবাদ সংস্থা ব্লুমবার্গ ‘বাংলাদেশ লিডার বেটস আইএমএফ-ম্যান্ডেটেড রিগর উইল পে অব ইন পোলস’ শিরোনামে একটি নিবন্ধ প্রকাশ করেছে। এই নিবন্ধে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করে অন্য দেশের নেতাদের থেকে তার অবস্থান পরিষ্কার করে বলা হয়েছে যে, ব্যালট বাক্সে পরাজিত হওয়ার ভয়ে বিশ্বজুড়ে সরকারি দলের নেতারা প্রায়ই আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সঙ্গে সম্মত সংস্কার বাস্তবায়নে পিছিয়ে পড়ছেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের মতো নন। নিবন্ধে আগামী বছর অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে তার জয়ী হওয়ার ব্যাপারেও পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে। টানা চতুর্থবারের মতো তিনি বিজয়ী হয়ে আসবেন বলে সংস্থাটি নিবন্ধে আশাবাদ প্রকাশ করেছে। তার বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনার ক্ষেত্রে নিবন্ধে বলা হয়েছে, ‘ শেখ হাসিনা ২০২৪ সালের জানুয়ারিতে অনুষ্ঠেয় জাতীয় নির্বাচনে টানা চতুর্থ মেয়াদে সম্ভাব্য জয়ী হওয়ার কারণ এটা নয় যে, তার অনেক প্রতিপক্ষ কারাগারে আছেন বা আইনি ফাঁদে পড়েছেন।

ব্লুমবার্গের এই প্রতিবেদন বাংলাদেশের গণমাধ্যমেও প্রকাশিত হয়েছে। কংগ্রেসে আনিত বিলটিও বাংলাদেশের গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের আর্থসামাজিক, রাজনৈতিক সংকট এবং সমস্যার উত্তরণ ঘটানোর ক্ষেত্রে আমাদের রাজনৈতিক নেতৃত্বের ভিশনারি-মিশনারি অবস্থান সবচেয়ে প্রাধান্য পাওয়ার বিষয়। শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে এগিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে তার নেতৃত্বের যোগ্যতা বারবার প্রমাণ করতে পেরেছেন। আমাদের আরও নেতা দেশের অগ্রযাত্রাতে সামনের দিনগুলোতে সঠিক নেতৃত্ব দিবেন মানুষ তাই আশা করে তিনি ভবিষ্যতেও হাল ধরবেন। বিশ্ব সে ধরনের নেতৃত্বকেই প্রশংসা করে। সুতরাং বর্তমান বৈশ্বিক বাস্তবতায় বাংলাদেশ আবার ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে, জনগণও এই ঘুরে দাঁড়ানো বাংলাদেশে অপেক্ষাকৃত স্বস্তিতে থাকতে পারবে, অন্তত বিপর্যয়ের মুখে পড়বে না। সেই চেষ্টাই প্রধানমন্ত্রী শখ হাসিনা করে যাচ্ছেন।

নারী-পুরুষের সমান অংশগ্রহণ, ধনী-দরিদ্র-নির্বিশেষে সবার জন্য প্রযুক্তির ব্যবহার সুনিশ্চিত করা, শহর ও গ্রামের সেবা প্রাপ্তিতে দূরত্ব হ্রাস করা সবই ছিল ডিজিটাল বাংলাদেশের মূল উদ্দেশ্য এবং লক্ষ্য। অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন ও প্রযুক্তির কল্যাণে এখন গ্রামে বসেই যে কেউ চাইলেই ফ্রিল্যান্সিংয়ে কাজ করতে পারছে। এ সবই বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়েছে জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রগতিশীল প্রযুক্তি, অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নতির ফলে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের অঙ্গীকার সফলভাবে বাস্তবায়নের পর এখন নতুন কর্মসূচি এসেছে।   সেটি হলো স্মার্ট বাংলাদেশ। স্মার্ট সিটিজেন, স্মার্ট ইকোনমি, স্মার্ট গভর্নমেন্ট এবং স্মার্ট সোসাইটি এই চারটি মূল ভিত্তির ওপর গড়ে উঠবে ২০৪১ সালের মধ্যে একটি সাশ্রয়ী, টেকসই, বুদ্ধিদীপ্ত, জ্ঞানভিত্তিক, উদ্ভাবনী স্মার্ট বাংলাদেশ।

হীরেন পণ্ডিত, প্রাবন্ধিক ও গবেষক

বাংলাদেশ সময়: ১৪০০ ঘণ্টা, এপ্রিল ৭, ২০২৩

এমজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।