ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

মুক্তমত

বাংলাদেশের জ্বালানি নিরাপত্তা

জুবেদা চৌধুরী, অতিথি লেখক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫২৯ ঘণ্টা, এপ্রিল ৯, ২০২৩
বাংলাদেশের জ্বালানি নিরাপত্তা

দীর্ঘস্থায়ী রাশিয়া-ইউক্রেন দ্বন্দ্বের কারণে প্রবল বিদ্যুতের ঘাটতিসহ বাংলাদেশ গত বছর জ্বালানি সংকটের মাঝে ছিল যা সমগ্র দক্ষিণ এশিয়ার ওপর প্রভাব ফেলেছে। গত বছরের শেষার্ধে বাংলাদেশ দৈনিক ভিত্তিতে ১০০০-১৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের ঘাটতির সম্মুখীন হয়েছে, যার ফলে নিয়মিত ঘণ্টাব্যাপী লোডশেডিংয়ের ঘটনা ঘটেছে।

এটি দেশের জনগণকে আরামের চেয়ে বেশি ঝুঁকির মধ্যে ফেলবে যদি ঘন ঘন বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হওয়ার সমস্যা মোকাবেলা করা না হয়।

বিশ্বের দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির একটি বাংলাদেশের অর্থনীতি মূলত টেক্সটাইল এবং তৈরি পোশাক রপ্তানির ওপর নির্ভরশীল। বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ পোশাক রপ্তানিকারক দেশ। পোশাক শিল্পকে বৈদেশিক মুদ্রার সবচেয়ে বড় উৎস করে তুলেছে।

ক্রমবর্ধমান জ্বালানি সংকট যদি সঠিকভাবে মোকাবেলা না করা হয়, তবে তা বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের দক্ষ পরিচালনাকে প্রভাবিত করবে। শিল্পের কর্মীরা তাদের আন্তর্জাতিক ক্লায়েন্টদের সময়সীমা পূরণ করার জন্য একটি কঠোর সময়সীমার মধ্যে কাজ করে। এটি একটি শক্তি-নিবিড় শিল্প এবং দৈনিক ভিত্তিতে ঘন ঘন বিদ্যুৎ কাটার ফলে অনেক শিল্প জেনারেটরের ওপর নির্ভর করে- যাতে কাজের প্রবাহ ব্যাহত না হয়- উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পায় এবং শেষ পর্যন্ত শিল্পের কার্যকারিতা এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে।

প্রায় দেড় দশক আগে ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে আওয়ামী লীগ সরকারের জন্য জ্বালানি উৎপাদন একটি অগ্রাধিকারের বিষয় এবং এটা স্পষ্ট যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আঞ্চলিক সহযোগিতার মাধ্যমে দীর্ঘমেয়াদী জ্বালানি নিরাপত্তা পরিকল্পনার গুরুত্ব- এখন আগের চেয়ে অনেক বেশি বোঝেন। সেই উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ গত এক দশকে জ্বালানি খাতে সহযোগিতা ও সমর্থনের জন্য ভারতের দিকে ক্রমবর্ধমানভাবে তাকিয়ে আছে।

কিছুদিন আগে ভারত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইন (আইবিএফপিএল) উদ্বোধন এই কৌশলের সাম্প্রতিকতম প্রকাশ। পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়ি থেকে বাংলাদেশের দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুরের সাথে সংযোগকারী ১৩১.৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পাইপলাইনটি উত্তর বাংলাদেশের সাতটি জেলায় প্রতি বছর ১ মিলিয়ন মেট্রিক টন ডিজেল সরবরাহ করবে। যেহেতু বাংলাদেশ বিদ্যুতের জন্য আমদানি করা বেশিরভাগ জ্বালানি ডিজেল পরিবহনের খরচ কমানোর পক্ষে। প্রতি ব্যারেল থেকে এখন খরচ হচ্ছে ৫ ডলার (আগে যখন এটির দাম ব্যারেল প্রতি 8 ডলার ছিল)। এছাড়া সংক্ষিপ্ত পরিবহন সময়ও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

অধিকন্তু, ঐতিহ্যগতভাবে পশ্চাৎপদ উত্তরবঙ্গ বাংলাদেশের জ্বালানি নিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দেওয়া শেখ হাসিনার নীতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ, যাতে বাংলাদেশের সব অঞ্চলে সমানভাবে উন্নয়নের সুবিধার সুষম বণ্টন নিশ্চিত করা যায়। উত্তরবঙ্গ বাংলাদেশের রংপুর ও রাজশাহী জেলাও শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অন্যান্য উন্নয়ন প্রকল্পের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। ঐতিহ্যগতভাবে, পূর্বাঞ্চলের তুলনায় দেশের পশ্চিমাঞ্চল দারিদ্র্যের দ্বারা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার এক বছর পর ২০১০ সালে রংপুরে দারিদ্র্যের হার ছিল ৪২ দশমিক ৩ শতাংশ। এটি ২০১৩ সালে উত্তরবঙ্গ বাংলাদেশ সমন্বিত উন্নয়ন প্রকল্প চালু করার প্রেরণা ছিল। যার লক্ষ্য ছিল অবকাঠামোগত উন্নয়ন এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নে আঞ্চলিক বৈষম্য হ্রাস করার জন্য সরকারি পরিষেবাগুলির বৃহত্তর প্রাপ্যতা এবং প্রবেশযোগ্যতা।

এছাড়া শেখ হাসিনা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দ্বারা উত্সাহিত হয়ে ২০১৫ সালে তার ঢাকা সফরের সময় বাংলাদেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন খাতে ভারতীয় কোম্পানিগুলিকে প্রবেশের অনুমতি দেওয়ার জন্য ভারত সরকারের সঙ্গে ৪.৫ বিলিয়ন ডলারের চুক্তি স্বাক্ষর করেছিলেন যা বেসরকারি কোম্পানিকে অনুমতি দেবে। কোম্পানিগুলোর পাশাপাশি ভারত সরকার পরিচালিত কোম্পানিগুলো বাংলাদেশে বিদ্যুৎ বিক্রি করে। এই চুক্তিগুলির মধ্যে একটিতে বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ড (বিপিডিপি) ২০১৭ সালে ভারতীয় ধনকুবের গৌতম আদানির আদানি পাওয়ারের (ঝাড়খন্ড) সাথে একটি ২৫ বছরের পাওয়ার ক্রয় চুক্তি (পিপিএ) স্বাক্ষর করে। এই চুক্তির অধীনে আদানি পাওয়ার একটি ১৬০০ মেগাওয়াট কয়লা তৈরি করবে। বাংলাদেশে বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য ঝাড়খণ্ডের গোড্ডায় ১.৭ বিলিয়ন ডলার মূল্যের পাওয়ার প্ল্যান্টের কাজ চলছে ।

বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার পাশাপাশি এর বাইরেও শক্তিশালী উপস্থিতি অর্জন করে ভারতও বাংলাদেশের সাথে জ্বালানি সহযোগিতা বাড়াতে চেয়েছে। গত বছরের সেপ্টেম্বরে মোদি-হাসিনা শীর্ষ বৈঠক এবং বিবিআইএন দেশগুলোর (বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত ও নেপাল) মধ্যে সহযোগিতা ও সংলাপ প্রসারিত করা যা ভারতের লক্ষ্য থেকে এটি স্পষ্ট।

শেখ হাসিনা সরকার বৃহৎ শক্তির ভারসাম্য রক্ষায় নিজেদের পারদর্শী প্রমাণ করেছে এবং তাদের স্বার্থের জন্য উপযুক্ত বিনিয়োগ নিশ্চিত করেছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ সম্ভবত তেল সমৃদ্ধ উপসাগরীয় দেশগুলির মতো জ্বালানি খাতে বিনিয়োগের বিকল্প উত্সগুলিতে পৌঁছানোর শেখ হাসিনার নীতিকে ত্বরান্বিত করেছে। তিনি সম্প্রতি দোহা ইনভেস্টমেন্ট সামিটে বক্তৃতা করে বাংলাদেশ ও কাতার উভয় সরকারকে যৌথ বাণিজ্য ও বিনিয়োগ কমিটি গঠনের আহ্বান জানান।

তিনি বিশেষ করে জ্বালানি খাতে কাতারের বিনিয়োগকে স্বাগত জানান। বাড়ির কাছাকাছি এটি তার প্রধান প্রতিবেশী ভারতের সাথে তার সম্পর্ক ক্রমাগত শক্তিশালী করেছে।

এখন, ভারতের সাথে জ্বালানি বাণিজ্যের পুনরুজ্জীবন নেপাল এবং ভুটানের সাথেও জ্বালানি বাণিজ্যের দিকে পরিচালিত করতে পারে। এইভাবে তার হিমালয় প্রতিবেশীদের জলবিদ্যুৎ সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর জন্য অদ্যাবধি অনাবিষ্কৃত সুযোগগুলি উন্মুক্ত করে। এটি বাংলাদেশকে স্বল্প খরচে নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে প্রবেশ করতে সাহায্য করবে এবং সবুজ শক্তিতে একটি মসৃণ রূপান্তরকে সহজতর করবে, যা জ্বালানি উৎপাদনের একমাত্র কার্যকর ভবিষ্যৎ।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।