ঢাকা, শনিবার, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ শাবান ১৪৪৫

রাজনীতি

বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে বিএনপির সাংঘর্ষিক রাজনীতি: তথ্যমন্ত্রী

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৫৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২, ২০২৩
বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে বিএনপির সাংঘর্ষিক রাজনীতি: তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা: বিএনপিকে মোকাবিলা করা কোনো কঠিন কাজ নয় বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, বর্তমানে রাজনৈতিক ক্ষেত্রে যে চ্যালেঞ্জ সেটা হচ্ছে বিএনপির সাংঘর্ষিক রাজনীতি।

তবে তারা কী করতে চায় বা কী করতে পারে সে সম্পর্কে আমাদের ধারণা আছে। সেটিকে মোকাবিলা করার জন্য আমাদের প্রস্তুতি এবং পরিকল্পনা দুটাই আছে।

সোমবার (২ জানুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় সভাকক্ষ সিনেমা হল মালিক সমিতি ও সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি একথা বলেন।

‘নতুন এ নির্বাচনী বছরে দেশের রাজনৈতিক অবস্থা কী রকম যাবে, চ্যালেঞ্জগুলো কী ও তা কিভাবে মোকাবিলা করবেন’ জানতে চাইলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে রাজনৈতিক ক্ষেত্রে যে চ্যালেঞ্জ সেটা হচ্ছে বিএনপির সাংঘর্ষিক রাজনীতি। বিএনপির মিত্রদের দেশ বিরোধী অপতৎপরতা, বিদেশিদের পদলেহন এবং বিদেশিদের কাছে ধরনা দেওয়া। এগুলো করে তারা সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে চায়। কিন্তু সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে গিয়ে এখন বিএনপি নিজেই বেকাদায় পড়েছে। কারণ ১০ ডিসেম্বর তারা ভেবেছিল নয়াপল্টনের সামনে একটি সমাবেশ করতে পারবে। বিশৃঙ্খলা তৈরি করতে পারবে। কিন্তু সেটি তারা করতে পারেনি। ১০ ডিসেম্বরের পর বিএনপি বুঝতে পেড়েছে তাদের শক্তি ও সামর্থ কতটুকু।

তিনি বলেন, এরপরও বিএনপি এবছর চেষ্টা করবে দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য। তবে আমরা তাদের সর্বোচ্চ অস্থিতিশীলতা তৈরি করার চেষ্টা ২০১৩-১৪-১৫ সালে দেখেছি। আমরা সেগুলো সুন্দরভাবে মোকাবিলা করতে পেরেছি। সুতরাং তারা কী করতে চায় বা কী করতে পারে সে সম্পর্কে আমাদের ধারনা আছে। সেটিকে মোকাবিলা করার জন্য আমাদের প্রস্তুতি এবং পরিকল্পনা দুটাই আছে। তাদেরকে (বিএনপি) মোকাবিলা করা আমাদের জন্য কোনো কঠিন কাজ নয়।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, এখন সবচেয়ে বড় যে বিষয় সেটা হলো সারা বিশ্বে সংকটময় পরিস্থিতি চলছে। দুই মাস আগেও ভেবেছিলাম করোনা মহামারি চলে গেছে। কিন্তু দেখা গেল করোনা যায়নি। চীনসহ কয়েকটি দেশে করোনা মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে। পাশাপাশি চলমান রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ পরিস্থিতিতে দেশের মানুষকে ভালো রাখা এবং সংকটময় পরিস্থিতিতে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া- সেটা অবশ্যই চ্যালেঞ্জ। গত তিন বছরও চ্যালেঞ্জ ছিল, সেটা আমরা মোকাবিলা করতে পেরেছি। আমরা আশা করছি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এ বছরও চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করতে পারব।

তিনি বলেন, মানুষ কিন্তু ভুলে যায় আগে কেমন ছিল। আমরা ক্ষমতায় আসার আগে বিদ্যুতের আওতায় ছিল মাত্র ৪০ শতাংশ। এখন বিদ্যুৎ সুবিধা পায় শতভাগ। কিছুদিন আগে যখন লোডশেডিং হলো তখন মানুষ হৈহৈ রৈরৈ শুরু করেছিল। কিন্তু এখন আর লোডশেডিং নেই। সে খবর পত্রিকার পাতা বা টিভির খবরে নেই। তো মানুষ অতীত ভুলে যায়। আগে যে রাস্তাঘাট ছিল না। যে রাস্তায় রিকশা নিয়ে চলা দুষ্কর ছিল, এখন সেখানে গাড়ি চলে। এ বিষয়গুলো মানুষ ভুলে গেছে। ১৪ বছর আগে কী ছিল। আর আজকে কী পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়েছি সে অবস্থা মানুষকে মনে করিয়ে দিতে হবে। এক্ষত্রে আমি গণমাধ্যমের সহযোগিতা চাই।

গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে সরকারকে ক্ষমতা থেকে নামানো হবে বলে বিএনপির নেতারা জানিয়েছেন এ বিষয়ে মতামত জানতে চাইলে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির নেতারা এসব কথা প্রতিদিন বলেন। বর্তমান অবস্থা হচ্ছে বিএনপির সঙ্গে জনগণতো দূরের কথা, তাদের নেতা-কর্মীরাও নেই।

তিনি বলেন, কর্মীরা এখন নেতাদের কাছে প্রশ্ন করে সরকার বলেছিল, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করতে সেখানে আপনারা করলেন না কেন, না করে লাভ কি হলো? এটাই হচ্ছে বিএনপির নেতাদের প্রতি কর্মীদের প্রশ্ন? এখন জনগণতো দূরের কথা, কর্মীরাও তাদের ডাকে সাড়া দিচ্ছে না। তাদের এই নেতৃত্ব কতটুকু করতে পারবে সেটা তারা ভালো জানে।

মন্ত্রী বলেন, গত ডিসেম্বরে বিএনপি দুটি হঠকারি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। একটি হচ্ছে নয়াপল্টনে সমাবেশ করার গো ধরা। সেটা করে তাদের রাজনৈতিক ক্ষতি হয়েছে। অপরটি হচ্ছে তাদের সংসদ সদস্যদের পদত্যাগ করতে বাধ্য করা। এতেও তাদের ক্ষতি হয়েছে। এই প্রশ্নই বিএনপির ভিতরে ঘুরপাক খাচ্ছে। কেন এই ধরনের হঠকারি সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো। খন্দকার মোশাররফ হোসেনরা সেই সিদ্ধান্তের জবাব দিতে পারেন না, এজন্যই উচ্চবাচ্য করে কর্মীদের আস্বস্ত করতে চান।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০২,২০২৩
জিসিজি/এমএমজেড

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।