ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১২ আশ্বিন ১৪৩০, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৫

রাজনীতি

গণআন্দোলনের প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান মান্নার

সিনিয়র করেসপন্ডন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৪৮ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১২, ২০২৩
গণআন্দোলনের প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান মান্নার

ঢাকা: খুচরা পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি ক্ষমতাসীন সরকারকে জনবিরোধী উল্লেখ করে জনগণকে তীব্র গণআন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানান।

বৃহস্পতিবার (১২ জানুয়ারি) এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন।  

গণতন্ত্র মঞ্চের সমন্বয়ক মান্না বলেন, দেশের অর্থনীতির এ মহা সংকটের মধ্যে বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি সামগ্রিকভাবে দেশকে আরও সংকটের দিকে নিয়ে যাবে। জনজীবন আরও বিপর্যস্ত হবে। সরকার এবং সরকারি দলের মদদপুষ্টদের লুটপাটের খেসারত দিচ্ছে সাধারণ জনগণ। রেন্টাল– কুইক রেন্টাল বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের অনুমোদন এবং দফায় দফায় এর মেয়াদ বাড়ানোর মাধ্যমে কেবলমাত্র ক্ষমতাসীনদের অনুগত এবং মদদপুষ্ট ব্যবসায়ীদের ব্যাপক আয়ের পথ তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। কোনো বিদ্যুৎ না নিয়েই গত ১১ বছরে সরকার বিদ্যুৎ কোম্পানিগুলোকে ক্যাপাসিটি চার্জের নামে প্রায় ৯০ হাজার কোটি টাকা দিয়েছে। গত তিন বছরেই দেওয়া হয়েছে ৫৪ হাজার কোটি টাকা। এ স্বজনতোষী ব্যবস্থার বৈধতা দিতে সংসদের মাধ্যমে ইনডেমনিটি দেওয়া হয়েছে।  

মান্না বলেন, ক্ষমতাসীন আওয়ামী স্বৈরাচার সরকারের গত ১৪ বছরের শাসনামলে খুচরা এবং পাইকারি উভয় পর্যায়ে ১১ বার বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়েছে। এমনিতেই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের অসহনীয় দামে জনজীবনে নাভিশ্বাস উঠছে। জনগণের ক্রয়ক্ষমতা কমেছে। কিছুদিন আগে পাইকারি পর্যায়ে বাড়ানো হয়েছিল বিদ্যুতের দাম। এতে শিল্পে উৎপাদন খরচ বেড়েছিল। এখন ভোক্তা পর্যায়ে বাড়ানোর ফলে অতিরিক্ত খরচ সমন্বয় করতে জনগণের ক্রয়ক্ষমতা কমবে। যার প্রভাব পড়বে দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে।  

তিনি বলেন, গত ১৪ বছরে সরকার এবং সরকারি দলের মদদপুষ্টরা দেশ থেকে ১০ লাখ কোটি টাকার বেশি পাচার করেছে। সরকারের কাছে দেশ চালানোর টাকা নেই। মাসে মাসে টাকা ছাপিয়ে তারা ব্যয় নির্বাহ করছে। এভাবে সার্বিকভাবে দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করে দেশকে দেউলিয়াত্বের পথে ধাবিত করছে অবৈধ ক্ষমতাসীন সরকার। দেশকে বাঁচাতে, দেশের অর্থনীতিকে বাঁচাতে, দেশের মানুষকে বাঁচাতে এখনই এ সরকারের পতন ঘটিয়ে একটি অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠন করতে হবে।

গণতন্ত্র মঞ্চের পরের কর্মসূচির কথা উল্লেখ করে মান্না বলেন, আমরা ধারণা করছিলাম সরকার বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে। একারণে গত ১১ জানুয়ারির গণঅবস্থান থেকেই আমরা যুগপৎ আন্দোলনের পরের হিসেবে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর পাঁয়তারার প্রতিবাদে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের সামনে অবস্থান এবং বিক্ষোভের ডাক দিয়েছি। দেশের সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে স্বৈরাচার সরকারের গণবিরোধী সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানোর জন্য আগামী ১৬ জানুয়ারির অবস্থান এবং বিক্ষোভে অংশ নেওয়ার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি এবং সেই সঙ্গে অবৈধ ক্ষমতাসীনদের হাত থেকে দেশকে বাঁচাতে তীব্র গণআন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানাচ্ছি।  

বাংলাদেশ সময়: ২১৪৮ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১২, ২০২৩
এসএমএকে/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa