ঢাকা, বুধবার, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৯ মে ২০২৪, ২০ জিলকদ ১৪৪৫

রাজনীতি

নির্বাচন থেকে সরছেন না নোটিশ পাওয়া বিএনপির সেই প্রার্থী 

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১১৩৯ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৫, ২০২৪
নির্বাচন থেকে সরছেন না নোটিশ পাওয়া বিএনপির সেই প্রার্থী  আতাউর রহমান তালুকদার খসরু

জয়পুরহাট: দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে জয়পুরহাটের কালাই উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করায় মাত্রাই ইউনিয়ন বিএনপির আহ্বায়ক আতাউর রহমান তালুকদার খসরুকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় বিএনপি।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক নোটিশ পাঠানো হয়েছে খসরুকে।

নোটিশে বলা হয়েছে: গত ১৫ এপ্রিল ২০২৪ তারিখে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সভায় আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন বর্জন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। বিএনপির নেতা হিসেবে আপনি দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেননি। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা আপনার এহেন মনোবৃত্তি সম্পূর্ণরূপে দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী এবং দলের প্রতি চরম বিশ্বাসঘাতকতা। সুতরাং দলের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে জালিয়াতির নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য আপনার বিরুদ্ধে কেন দলের গঠনতন্ত্র মোতাবেক সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না তা হোয়াটসঅ্যাপ বা অন্য কোনো মাধ্যমে পত্রপ্রাপ্তির কিংবা ফোনে অবহিত হওয়ার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে কারণ দর্শিয়ে একটি লিখিত জবাব দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মহোদয় বরাবর নয়া পল্টনস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।  

এর আগে কালাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে মাত্রাই ইউনিয়ন বিএনপির আহ্বায়ক আতাউর রহমান তালুকদার খসরু মনোনয়নপত্র জমা দেন। তিনি এবার ভাইস চেয়ারম্যান পদে চশমা প্রতীকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে মাঠে নেমেছেন।

এ বিষয়ে তিনি বুধবার সকালে বলেছিলেন "আমি মাত্রাই ইউনিয়ন বিএনপির আহ্বায়ক পদে রয়েছি। তবে এবার আমি কালাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছি। ইতোমধ্যে প্রতীকও বরাদ্দ পেয়ে মাঠে নেমেছি। তবে এখন পর্যন্ত দল থেকে কোনো নির্দেশনা পাইনি। "

তবে সর্বশেষ নোটিশ পাওয়ার পর বৃহস্পতিবার সকালে মোবাইল ফোনে বাংলানিউজকে জানান- কেন্দ্রীয় বিএনপির একটি নোটিশ হাতে পেয়ে জবাব প্রস্তুত করছি। তবে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর কোনো সুযোগ নেই। কারণ, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল ২২ এপ্রিল। সেই দিন পর্যন্ত উপজেলা, জেলা কিংবা কেন্দ্রীয় বিএনপি থেকে কোনো বাধা পাইনি। যে কারণে ইতোমধ্যেই আমি পোস্টার ছাপিয়েছি তথা পুরোদমে মাঠে নেমে পড়েছি।  

সুতরাং আমার পাঠানো জবাব যদি তাদের মনঃপূত না হয়, সেক্ষেত্রে তারা যে সিদ্ধান্ত নেবেন, তাতেই রাজি আছি। তবে আমি বিএনপিকে ভালোবাসি, মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এই দলকে সমর্থন দিয়ে যাবো ইনশাআল্লাহ। "

এদিকে জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদ থেকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন উপজেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও আক্কেলপুর পৌর বিএনপির সদস্য আবদুল ওয়াহেদ।  

সোমবার (২২ এপ্রিল) রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের আবেদন করেন তিনি।

বিএনপি দলীয়ভাবে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেওয়ার পরও আবদুল ওয়াহেদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপে নির্বাচনে শেষ পর্যন্ত থাকার কথাও জানিয়েছিলেন। তবে হঠাৎ সোমবার বিকেলে তার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমাকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের জন্য কেউ চাপ দেননি। আমাকে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ভাই ফোন করেছিলেন। তারই নির্দেশে আমি মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছি। ’

বাংলাদেশ সময়: ১১৩৭ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৫, ২০২৪
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।