ঢাকা, শনিবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৮ মে ২০২৪, ০৯ জিলকদ ১৪৪৫

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি

ঢাকা ও চট্টগ্রামের গ্যাস সংকট কমার আভাস প্রতিমন্ত্রীর 

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫২৯ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২১, ২০২৪
ঢাকা ও চট্টগ্রামের গ্যাস সংকট  কমার আভাস প্রতিমন্ত্রীর 

ঢাকা:  ঢাকা ও চট্টগ্রামের গ্যাস সংকট দুয়েকদিনের মধ্যে মিটে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

তিনি বলেন, ঢাকা এবং চট্টগ্রামে গ্যাসের যে সংকট রয়েছে আমরা আশা করছি আগামী দুই-একদিনের মধ্যেই তা কমে অনেক ভালো অবস্থায় আসবে।

এটা আমাদের জন্য একটি সুখবর। এছাড়া নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহে সবার জন্য মিটার লাগানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

রোববার (২১ জানুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের নসরুল হামিদ এ কথা বলেন।  

প্রতিমন্ত্রী বলেন, গেলো দুদিন যাবত গ্যাসে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। শুক্র ও শনিবার মারাত্মক গ্যাস সমস্যা দেখা দিয়েছিল, বিশেষ করে চট্টগ্রামে এবং পরবর্তীকালে ঢাকায়। আমাদের দুটি ফ্লোটিং স্টোরেজ রিগ্যাসিফিকেশন ইউনিটের (এফএসআরইউ) একটি ডকিং করার জন্য বিদেশে পাঠিয়েছিলাম।  দ্বিতীয় এফএসআরইউতেও কিছুটা সমস্যা দেখা দিয়েছে। আপাতত আজকের দিনে আমাদের দুটিই (এফএসআরইউ) চালু আছে। এরমধ্যে একটি আবার চলে যাবে ডকিংয়ে। তবে যেটি বাইরে থেকে এসেছে, সেটি পূর্ণোদ্যমে কাজ শুরু করেছে। আমরা আশাবাদী, ঢাকা ও চট্টগ্রামের গ্যাস দুয়েকদিনের মধ্যে আরও ভালো অবস্থায় চলে যাবে।  

নসরুল হামিদ বলেন, এটা আকস্মিক বিষয়, সাময়িক। শীতে গ্যাসে এমনিতেই একটু সমস্যা দেখা দেয়। বিশেষ করে বাসাবাড়িতে রান্নাবান্নার জন্য। এ সমস্যাটির সমাধান করার জন্য আমরা এরইমধ্যে তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি) ইন্ট্রোডিউস করেছি। বাংলাদেশের প্রায় ৭৫ শতাংশ এলপিজি কাভার করে। অল্পসংখ্যক গ্রাহক বাসাবাড়িতে চুলায় গ্যাস ব্যবহার করেন। এরমধ্যে ঢাকা এবং আশপাশে, ময়মনসিংহের কিছু অংশ ও চট্টগ্রামের কিছু অংশ কাভার করে।

গ্রাহকদের কাছে অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, আপনারা একটু ধৈর্য ধরুন। আমরা জানি, সাময়িক সমস্যা আছে। তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি) ব্যবহার বাড়াতে চাচ্ছি আমরা। এলপিজি এখন গাড়িতেও ব্যবহার হচ্ছে, বাসাবাড়িতেও হচ্ছে। কোনো কোনো সময় কেউ কেউ বলেন, এটার দাম বেশি। আমরা এটিকে ডায়নামিক প্রাইসিংয়ের আন্ডারে নিয়ে গিয়েছি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রতি মাসে এলপিজির দাম নির্ভর করে বিশ্ববাজারে দামের ওপর। বিশ্ববাজারে দাম কম হলে এখানেও কম দামে পাওয়া যায়। কিন্তু আপনাদের অনুরোধ করবো, একটু ধৈর্য ধরেন, অচিরেই বাসা-বাড়িতে মিটার লাগানোর ব্যবস্থা করা হবে, যাতে নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহ করা যায়।

এটা করতে কতদিন লাগবে, জানতে চাইলে তিনি বলেন, দুই থেকে তিন বছরের মাথায় সব বাড়িতে মিটার বসানো হবে। পাঁচ থেকে সাত বছর আগে আমরা জাইকার তহবিল পেয়েছিলাম, এটা চলমান প্রক্রিয়া। এখন আরও ২০ লাখ মিটার লাগাতে হবে। এই প্রকল্পের জন্য আমরা মোটামুটি অর্থের সম্ভাবনা পেয়েছি।

নসরুল হামিদ বলেন, শিল্পখাত বাদ দিলে সবমিলিয়ে আমাদের গ্রাহক সংখ্যা ২০ থেকে ২৫ লাখ হতে পারে। এই গ্রাহকদের আমরা আস্তে আস্তে মিটারের মধ্যে নিয়ে এসেছি। এরমধ্যে সাড়ে চার লাখ গ্যাস মিটার বসানো হয়েছে। আগামী তিন বছরের মাথায় সবার জন্য গ্যাস মিটার লাগানোই আমাদের লক্ষ্য। বহুদিন যাবত আমরা গ্যাস মিটার বসানো শুরু করার চেষ্টা করেছিলাম, এ জন্য অর্থের প্রয়োজন, সেটাও আমরা পেয়ে গিয়েছি।

তিনি বলেন, বিশ্বব্যাংক, এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) এবং জাপান ফাইন্যান্সিং ব্যাংক অর্থায়ন করছে। আমরা অচিরেই টেন্ডার করে কাজ শুরু করব। এরইমধ্যে জালালাবাদে পঞ্চাশ হাজার, কর্ণফুলীতে আড়াই লাখ ও ঢাকায় চার লাখ মিটার বসানোর কাজ শুরু করে দিয়েছি। এই মিটারগুলো বসানো হলে যারা যেভাবে গ্যাস পাবেন, সেভাবেই বিল হবে। এখন যেটা হচ্ছে, মাস শেষে অনেকে টাকা দিচ্ছেন, কিন্তু গ্যাস পাচ্ছেন না। গ্যাসের প্রেসার কম। আমরা অন্তত সাড়ে সাত লাখ অবৈধ গ্যাস লাইন উচ্ছেদ করেছি। কিন্তু তবুও অবৈধ লাইন রয়েছে। যে কারণে বিরাট অঞ্চলে গ্যাস প্রাপ্তিতে সমস্যা দেখা দিয়েছে। আমরা এই লাইন উচ্ছেদের কাজ চলমান রেখেছি।

বাংলাদেশ সময় : ১৫১৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২১, ২০২৪
জিসিজি/এমএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি এর সর্বশেষ