ঢাকা, মঙ্গলবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২১ মে ২০২৪, ১২ জিলকদ ১৪৪৫

এভিয়াট্যুর

বাংলাদেশ এভিয়েশন হাবে পরিণত হবে: প্রতিমন্ত্রী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮৪৫ ঘণ্টা, মে ১০, ২০২৩
বাংলাদেশ এভিয়েশন হাবে পরিণত হবে: প্রতিমন্ত্রী ছবি: রাজিন চৌধুরী

ঢাকা: বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী বলেছেন, দেশের এভিয়েশন শিল্প আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক ইচ্ছায় দ্রুত বদলে যাচ্ছে এ খাতের চিত্র।

সারাদেশে বিমান অবকাঠামো, যাত্রীসেবা সম্প্রসারণ কাজ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। দ্রুতই বাংলাদেশ এভিয়েশন হাব হিসেবে পরিণত হবে।

বুধবার (১০ মে) বেলা সোয়া ১১টায় বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালে আয়োজিত বেবিচকের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক পদক্ষেপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

এদিন ৬ জন স্টুডেন্ট পাইলটকে ৩ লাখ টাকা করে সরকারি বৃত্তি প্রদানের স্মারক চেক তুলে দেন মন্ত্রী। এ বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, শিক্ষাবৃত্তি একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং মহৎ উদ্যোগ।

তিনি বলেন, দেশের সব বিমানবন্দরে উচ্চতার ছাড়পত্র দেওয়ার জন্য একটি ডিজিটাল অ্যাপস চালু হয়েছে। এ অ্যাপসের  মাধ্যমে সেবাগ্রহীতারা প্রাপ্য সেবা সহজে পাবেন এবং দ্রুত ছাড়পত্রও পাবেন। এছাড়া নিরাপত্তা পাস সম্পর্কিত অ্যাপস এভসেক আইডির মাধ্যমে আধুনিক নিরাপত্তা পাস সংগ্রহ করা যাবে। আমরা আশা করছি, বেবচিকের নতুন নীতিমালার মাধ্যমে বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও উন্নত হবে। একই সঙ্গে যাত্রীদের জন্য অ্যাপস তৈরি করেছে ডিজিটাল এয়ারপোর্ট সার্ভিস। এটিও বিমানবন্দরে যাত্রীদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে।

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মুফিদুর রহমান সভাপতির বক্তব্যে বলেন, যে উদ্যোগগুলো নেওয়া হয়েছে, এ ৪টা প্রকল্প বাস্তবায়ন করার ইচ্ছে ছিল মুজিববর্ষে। কিন্তু, বিভিন্ন জটিলতার কারণে অনেক দেরি হয়ে গেছে। এর উদ্দেশ্য একটাই। আইকাও যে উদ্যোগ নেয় ‘নেক্সট জেনারেশন এভিয়েশন প্রফেশনালস’ এরই ধারাবাহিকতায় আমরা নারী পাইলটদের আরও বেশি এই খাতে এগিয়ে আসার জন্য এ ধরণের উদ্যোগ নিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, এখানে আমাদের নারীরা আরও বেশি পরিমাণে আসবে, এটিই আমরা চাই। বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। জাতিসংঘে মিলিটারি পাইলট হিসেবে কঙ্গোতে কাজ করেছেন বাংলাদেশি নারী পাইলট। তিনি কঙ্গোতে প্রথম নারী পাইলট হিসেবে কাজ করেছেন। এটা বড় অর্জন। আগামীদিনেও আমরা আশা করব এটি অব্যাহত থাকবে। এছাড়াও অন্য যে এপসগুলো উদ্বোধন হলো, সবগুলোই যাত্রীদের স্বার্থে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোকাম্মেল হোসেন, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক  বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন কামরুল ইসলাম, বেবিচক সদস্য (পরিকল্পনা ও পরিচালনা) এয়ার কমোডোর সাদিকুর রহমান চৌধুরী, সদস্য এয়ার কমোডর রিয়াদাদ হোসেনসহ (এটিএম) বেবচিক ও বিমানবন্দরের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৪৫ ঘণ্টা, মে ১০, ২০২৩
এমকে/জেডএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।