ঢাকা, বুধবার, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৯ মে ২০২৪, ২০ জিলকদ ১৪৪৫

বইমেলা

শুধু কাগজের নয়, ডিজিটাল প্রকাশক হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭২৮ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১, ২০২৪
শুধু কাগজের নয়, ডিজিটাল প্রকাশক হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা: প্রকাশকদের শুধু কাগজের নয়, ডিজিটাল প্রকাশক হওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে ডিজিটাল প্রকাশনার ওপর গুরুত্ব দেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে অমর একুশে গ্রন্থমেলা-২০২৪ এর উদ্বোধনের আগে দেওয়া বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এরপর তিনি বইমেলার উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মোদের গরব, মোদের আশা, আ মরি বাংলা ভাষা’। কী মধুর আমাদের ভাষা। আমি একটা কথা বলব যে, এখন আমাদের যুগটা হয়ে গেছে বিজ্ঞান প্রযুক্তির যুগ। বই প্রকাশ এটা অবশ্যই থাকবে, এটা যাবে না। কারণ, একটা বই হাতে নিয়ে পড়ার মধ্য দিয়ে আলাদা একটা আনন্দ আছে। আজকালকার ছেলের মেয়েরা আবার ট্যাবে করে বই পড়ে অথবা ল্যাপটপে পড়ে। যদিও আমরা ওইভাবে খুব একটা আনন্দ পাই না।

‘কিন্তু তারপরও আমাদের ভাষা, সাহিত্য, সংস্কৃতি সবকিছু নিয়ে এগিয়ে যেতে হলে আমাদের যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা উচিত। আমি আমাদের প্রকাশকদের অনুরোধ করব, প্রকাশকরা শুধুমাত্র কাগজের প্রকাশক হলে হবে না, ডিজিটাল প্রকাশক হতে হবে। ডিজিটাল হলে শুধু আমাদের দেশে নয়, বিদেশেও সকলের কাছে এটা পৌঁছাতে পারব। অন্যান্য ভাষাভাষী লোকেরাও পড়বে। কাজেই সেদিকেও একটু নজর দিলে মানসিকতার পরিবর্তন হয়ে আধুনিক প্রযুক্তিটাও নিজেরা রপ্ত করতে পারব। ’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, লাইব্রেগুলিতেও সাথে সাথে অডিও ভার্সন থাকবে, অডিও ভার্সনের কিন্তু প্রয়োজন আছে। সেটাও থাকলে অনেকের সুবিধা, শুনবে জানতে পারবে, সে ব্যবস্থাটাও আমাদের নেওয়া উচিত। এটাই সব থেকে দরকার, যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে আমরা এগিয়ে যাব।

শেখ হাসিনা বলেন, অনুবাদ সাহিত্যে আমি বাংলা একাডেমিকে ধন্যবাদ জানাই। এক সময় অনেকে দাবি তুলেছেন যে, অনুবাদ করা যাবে না, কিন্তু আমি অনুবাদের পক্ষে। অনুবাদ যদি না হয়, পৃথিবীর এত ভাষা আমরা কোথা থেকে জানব? একটা জাতিকে জানতে হলে, জীবনের কথা জানতে হলে তার ভাষার মধ্য দিয়েই তো আমরা জানতে পারি, যদি আমাদের অনুবাদ হয়। আর আমাদের বাংলাসাহিত্য সেটা যত বেশি অনুবাদ হবে, তত বেশি পৃথিবীর বিভিন্ন ভাষাভাষীরা পড়ার সুযোগ পাবে। বাংলা একাডেমির যে প্রকাশনা হয়, সেটা ডিজিটালাইজড করে প্রকাশ করা এবং অন্যান্য ভাষায় যাতে অনুবাদ হয়, সেই ব্যবস্থাটা করতে পারলে আমরা আমাদের মাতৃভাষা, বাংলাসাহিত্য ও সংস্কৃতিকে সারা বিশ্বব্যাপী আরও দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যেতে পারব, সেই ব্যবস্থাটা আমাদের করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হবে। স্মার্ট বাংলাদেশ; সর্বক্ষেত্রে আমাদের স্মার্ট জনগোষ্ঠী, স্মার্ট সরকার, সোসাইটি হবে। এই স্মার্ট সোসাইটি করতে গেলে ভাষা, সাহিত্য, সংস্কৃতি সবকিছুই আমাদের এগিয়ে নিতে হবে। আমার মনে হয় পৃথিবীতে সব থেকে মধুর ভাষা হচ্ছে বাংলা ভাষা। এত চমৎকার ভাষা আর কোনোটা আছে, আমি এত জানি না, হতে পারে এটা আমাদের মাতৃভাষা সেই জন্য মনে হয়। তারপরও আমি বলব আমাদের ভাষা সবথেকে... আমাদের রচনাগুলি, আমাদের সাহিত্যগুলি যেগুলো অত্যন্ত প্রাণবন্ত জীবনভিত্তিক এবং সংস্কৃতি সমৃদ্ধ। কাজেই এগুলো আমরা যত বেশি মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে পারব; বাংলা ভাষা, বাংলাদেশ, বাংলাসাহিত্য, বাংলা সংস্কৃতি তত বেশি বিশ্বের দরবারে আমরা প্রতিষ্ঠা লাভ করতে পারব।

বাংলাদেশ সময়: ১৭২১ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০১, ২০২৪/আপডেট: ১৯০৬ ঘণ্টা
এসকে/এমইউএম/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।