ঢাকা, শনিবার, ৭ বৈশাখ ১৪৩১, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১০ শাওয়াল ১৪৪৫

ক্রিকেট

যে কারণে জাতীয় দলের কোচ হতে চান না সালাউদ্দিন

স্পোর্টস ডেস্ক  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪০৯ ঘণ্টা, মার্চ ৪, ২০২৪
যে কারণে জাতীয় দলের কোচ হতে চান না সালাউদ্দিন

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ হিসেবে বিদেশিদেরই দেখা যায় সাধারণত। স্বল্প মেয়াদে কয়েকজন দায়িত্ব পেলেও দীর্ঘমেয়াদের জন্য কাউকে নিয়ে ভাবাও হয় না।

এ নিয়ে দেশি কোচদের আক্ষেপ দীর্ঘদিনের। সেই আক্ষেপ আবার ঝরে পড়লো দেশি কোচদের মধ্যে 'সবচেয়ে বড় তারকা' মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের গলায়।  

সদ্য সমাপ্ত ২০২৪ বিপিএলে সালাউদ্দিনের অধীনে টানা তৃতীয় শিরোপা জেতার দ্বারপ্রান্তে ছিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। কিন্তু ফাইনালে তার দল হেরে যায় ফরচুন বরিশালের কাছে। তবে তা সত্ত্বেও দেশি কোচদের মধ্যে তার সাফল্য রীতিমতো ঈর্ষণীয়। অভিজ্ঞ এই কোচের অধীনে কুমিল্লা দলটি হয়ে উঠেছিল অপ্রতিরোধ্য। প্রতি আসরেই তারা শিরোপার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ে। এর কৃতিত্ব পাচ্ছেন সালাউদ্দিনই।  

তবে শুধু বিপিএলেই নয়, নিজের অভিজ্ঞতা জাতীয় দলের কাজেও লাগাতে চান সালাউদ্দিন। এর আগে সালাউদ্দিন ২০০৬ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত জাতীয় দলের সহকারী কোচ এবং ২০০৮ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত ফিল্ডিং কোচের দায়িত্বে ছিলেন। তবে এখন আর সহকারী কোচের দায়িত্ব নিতে আগ্রহী নন তিনি। 'ক্রিকবাজ'-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, জাতীয় দলের টি-টোয়েন্টি সেটআপের প্রধান কোচ হওয়ার প্রস্তাব পেলে ভেবে দেখবেন। তবে একটি শর্তও জুড়ে দিয়েছেন- সহকারী কোচ হিসেবে নয়, দায়িত্ব নিতে চান প্রধান কোচের।

সম্প্রতি সালাউদ্দিন কেন জাতীয় দলের কোচ নন, এ নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছিল ক্রীড়ামন্ত্রী ও বিসিবি (বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড) প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপনের কাছে। জবাবে তিনি বলেছিলেন, সালাউদ্দিন নিজেই নাকি আগ্রহী নন। সাক্ষাৎকারে এ নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে সালাউদ্দিন বলেন, 'সত্যি বলতে, এখন আমার অন্য কারও অধীনে কাজ করার বয়স নেই এবং সহকারী কোচ হলে আমাকে ছেলেদের উন্নতির জন্য অনেক বেশি পরিশ্রম করার পাশাপাশি অনেক সময় দিতে হবে। একটা দল গোছানোর পেছনে সহকারী কোচের বড় ভূমিকা থাকে। কিন্তু এখন আমি এটা করতে পারবো না এবং অন্য কারও অধীনে কাজ করার মানসিকতা এখন আর নেই। '

কেন জাতীয় দলের বর্তমান কোচিং টিমে সঙ্গে যুক্ত হতে চান না, সে ব্যাপারেও ব্যাখ্যা দিয়েছেন সালাউদ্দিন। দিয়েছেন অজানা কিছু তথ্যও। তিনি বলেন, '(জাতীয় দলের কোচ চন্ডিকা) হাথুরুসিংহের ব্যাপারে আমি যা দেখেছি ও বুঝেছি যে, অন্য কোচরা তার সঙ্গে খাপ খাওয়াতে পারছে না এবং আমি যেমন মানসিকতার, তাতে আমাকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দিতে হবে। অন্য কেউ যদি আমার কাজে প্রভাব খাটায় তাহলে আমার জন্য কাজ করা মুশকিল হয়ে পড়বে এবং আমি এমন নই। এ কারণেই আমি নাম দেইনি। ' 

'বিশ্বকাপের পর কোচিং স্টাফদের প্রায় অর্ধেক সদস্য চলে গেছে এবং আমি যতটুকু শুনেছি যে, তারা তার (হাথুরুর) সঙ্গে কাজ করতে চায় না। যদি তারাই কাজ না করতে চায়, তাহলে আমি কীভাবে করবো। আমি ব্যাপারগুলো জানি এবং আমি স্বাধীনভাবে কাজ করতে চাই। আর তা না হলে জাতীয় দলের সঙ্গে যুক্ত হতে আমি অনিচ্ছুক। '

 

বাংলাদেশ সময়: ১৪০৫ ঘণ্টা, মার্চ ০৪, ২০২৪
এমএইচএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।