ঢাকা, বুধবার, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৯ মে ২০২৪, ২০ জিলকদ ১৪৪৫

ক্রিকেট

রাজস্থানকে প্রথম হারের স্বাদ দিল গুজরাট

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০১০৫ ঘণ্টা, এপ্রিল ১১, ২০২৪
রাজস্থানকে প্রথম হারের স্বাদ দিল গুজরাট

সাঞ্জু স্যামসন ও রিয়ান পরাগের দারুণ দুটি ইনিংসে ভর করে বেশ বড় সংগ্রহ পেয়েছিল রাজস্থান রয়্যালস। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা দলটি তাতে টানা পঞ্চম জয়ের আশাই করছিল হয়তো।

কিন্তু উড়তে থাকা দলটিকে আসরে প্রথম হারের স্বাদ দিল গুজরাট টাইটান্স।  

২০২৪ আইপিএলের ২৪তম ম্যাচে আজ ৩ উইকেটে জয় পেয়েছে গুজরাট। ঘরের মাঠ জয়পুরে আগে ব্যাট করে ৩ উইকেটে ১৯৬ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায় রাজস্থান। যা নিয়ে শেষ বল পর্যন্ত লড়াই করে তারা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেট হারানো গুজরাট-ই জয়ের মুখ দেখে।  

তবে জয়ের জন্য ভাগ্যকেও ধন্যবাদ দিতে পারে তারা। কারণ মন্থর ওভার রেটের কারণে শেষ ওভারে মাত্র ৪ ফিল্ডার ৩০ গজের বাইরে রাখতে পারে তারা। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্ট দিয়ে চার মেরে ম্যাচ শেষ করে দেন রশিদ খান। তাছাড়া মাত্র দুই ওভার বোলিং করেছেন দারুণ ছন্দে থাকা রাজস্থানের কিউই ফাস্ট বোলার ট্রেন্ট বোল্ট। ওই দুই ওভারে মাত্র ৮ রান খরচ করেন তিনি।

টানা ৪ ম্যাচ জেতার পর হারল রাজস্থান। তবে হারলেও পয়েন্ট তালিকার শীর্ষেই আছে তারা। ৫ ম্যাচে তাদের সংগ্রহ ৮ পয়েন্ট। দুইয়ে থাকা কলকাতা নাইট রাইডার্সের সংগ্রহ ৪ ম্যাচে ৬ পয়েন্ট। সমান পয়েন্ট গুজরাটেরও। তবে রানরেটের ব্যবধানে পিছিয়ে থাকায় ছয়ে আছে তারা। দলটি ম্যাচও খেলে ফেলেছে ৬টি।

রাজস্থানের ছুড়ে দেওয়া বড় লক্ষ্য তাড়ায় শুরুটা দারুণ হয় গুজরাটের। দুই ওপেনার সাই সুদর্শন ও শুভমান গিল মিলে তুলে ফেলেন ৬৪ রান। তবে এরপর ছন্দপতন ঘটে। সুদর্শন ফিরে যান ২৯ বলে ৩৫ রান করে। তিন ও চারে নামা ম্যাথু ওয়েড (৪) ও অভিনব মনোহর (১) পারেননি দাঁড়াতে।  ৮৩ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে রাজস্থান।  

ভালো কিছুর ইঙ্গিত দিলেও দ্রুত ফিরে যান গুজরাটের মিডল অর্ডার ব্যাটার বিজয় শংকর। তাকে বিদায় করেন যুজবেন্দ্র চাহাল।  এতকিছুর মধ্যেও অধিনায়ক গিল ছিলেন দারুণ ছন্দে। ফিফটি হাঁকিয়ে ছুটছিলেন ভালোভাবেই। তবে ১৬তম ওভারে তাকে বিদায় করেন যুজবেন্দ্র চাহাল। ৪৪ বল স্থায়ী গিলের ইনিংস থামে ৭২ রানে। তার আগেই আইপিএলে সবচেয়ে কম বয়সে ৩ হাজারি ক্লাবে প্রবেশ করেন তিনি। ২৪ বছর ২১৫ দিন বয়সে এই মাইলফলক পেরোলেন গিল। এর আগের রেকর্ড ছিল বিরাট কোহলির দখলে (২৬ বছর ১৮৬ দিন)।

মাত্র ১০ বলের ব্যবধানে চাহালের জোড়া আঘাতে দিশেহারা গুজরাট পরে ঘুরে দাঁড়ায় রশিদ খান ও রাহুল তেওয়াতিয়ার ব্যাটে। মাঝে শাহরুখ খান আউট হন ১৪ রান করে। শেষ দুই ওভারে গুজরাটের দরকার ছিল ৩৫ রান। রাহুল ও রশিদ মিলে ১৯তম ওভারে নেন ২০ রান।  

শেষ ওভারে ১৫ রানের সমীকরণ মিলিয়ে দেন রশিদ খান। প্রথম তিন বলে ১০ রান তুলে ফেলেন তিনি। চতুর্থ বলে সিঙ্গেল নিয়ে স্ট্রাইক দেন রাহুলের কাছে। কিন্তু পঞ্চম বলে তৃতীয় রান নিতে গিয়ে রানআউট হয়ে ফেরেন রাহুল (২২)। তবে প্রান্ত বদল করে ফেলেন রশিদ। শেষ বলে ২ রান দরকার ছিল, আভেশ খানের বলে চার মেরে ম্যাচ বের করে নেন রশিদ খান।

এর আগে ব্যাট হাতে দাপট দেখান রাজস্থানের স্যামসন ও পরাগ। দুই ওপেনার যশস্বী জয়সওয়াল (২৪) ও জস বাটলার (৮) ব্যর্থ হওয়ার পর স্যামসন ও পরাগ মিলে ঝড় তোলেন। মাত্র ৩৮ বলে ৬৮ রান করে অপরাজিত থাকেন স্যামসন। ৭ চার ও ২ ছক্কায় সাজানো তার ইনিংস। আর পরাগ ৪৮ বলে ৩ চার ও ৫ ছক্কায় করেন ৭৬ রান। কিন্তু শেষ পর্যন্ত হেরে যাওয়া দলেই নাম লেখাতে হলো তাদের।

বাংলাদেশ সময়: ০১০৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ৯৪, ২০২৪
এমএইচএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।