ঢাকা, সোমবার, ৯ বৈশাখ ১৪৩১, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২ শাওয়াল ১৪৪৫

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

সাংবাদিক নির্যাতন: জামিন পেয়েই আসামিদের আস্ফালন

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১০১ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৫, ২০২৩
সাংবাদিক নির্যাতন: জামিন পেয়েই আসামিদের আস্ফালন ...

চট্টগ্রাম: রাঙ্গুনিয়ায় অবৈধ ইটভাটার সংবাদ সংগ্রহ করার সময় সাংবাদিককে অপহৃত ও মারধরের ঘটনায় দায়ের মামলায় হাইকোর্ট থেকে জামিন পেয়ে এলাকায় ফিরেই আস্ফালন দেখালেন ইসলামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন চৌধুরী। ফুলের মালা গলায় দিয়ে শোডাউন দিয়েছেন সাংবাদিক-পুলিশকে হুমকি দিয়ে বক্তব্য দিয়েছেন মামলা আসামিরা।

বৃহস্প্রতিবার (৫ জানুয়ারি) দুপুরে রাঙ্গুনিয়ার ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যলয়ের সামনে দাঁড়িয়ে তাঁর সমর্থকদের উদ্দেশ্য করে এসব কথা বলেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি ফেসবুক পেইজ থেকে এটির লাইভ সম্প্রচারও করা হয়।

ভিকটিম সাংবাদিককে উদ্দেশ্য করে চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আমাদেরকে মিথ্যা মামলা দিয়ে, সাংবাদিক কয়ে (সাংবাদিক বলে) ইসলামপুরবাসীর মানক্ষুন্ন করেছেন। ইসলামপুরের মানকে অসম্মানিত করার জন্য যারা পায়তারা করেছেন, তাদের কাছে অনুরোধ আপনারা সাবধান হয়ে যান। আমার পেছনে যারা এমন কুচক্রী করেছেন তাদের দাঁতভাঙ্গা জবাব দেব।

সাংবাদিক অপহরণ, মারধর, চাঁদাবাজির মামলার প্রধান দুই আসামি মহিউদ্দিন তালুকদার মোহন ও চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন চৌধুরী গত মঙ্গলবার হাইকোর্ট থেকে চার সপ্তাহের আগাম জামিন লাভ করেন। জামিনের একদিনপর আজ ইসলামপুরে ফিরেই চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন চৌধুরী এসব কথা বলেন। এসময় তার পাশে ছিলেন মামলার প্রধান আসামি মহিউদ্দিন তালুকদার মোহন।

শোডাউনের বক্তব্যে রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রতি হুমকি দিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, “মামলা দায়ের করার পর গত ২৮ ডিসেম্বরও আমি অফিস করেছি। ফাইলে সাইন করেছি। আমাকে ওসি ফোন দিয়ে জানতে চেয়েছে, আপনি কী অফিস করেছেন? আমি ওসিকে বলেছি, আমি কী চোর-ডাকাত নাকি খুনি যে আসবো না। আমি জনগণের লোক। আমি চোর-ডাকাত, খুনী হলে আমি থানায় হাজির হবো। আমাকে খুঁজতে হবে না। আমাকে খুঁজলে ইসলামপুরের মানুষ আপনাকে (ওসি) জবাব দেবে।  

এবিষয়ে রাঙ্গুনিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাহবুব মিলকী বলেন, শোডাউনের খবর আমি জানি না। আমি খোঁজ নিচ্ছি। মামলার পর থেকে তারা (আসামিরা) পলাতক ছিল। আমি তাকে ফোন দেওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। সে অফিস করছে জানার পর আমি অফিসার পাঠিয়েছিলাম। তাদের পাওয়া যায়নি।

এর আগে গত ২৫ ডিসেম্বর সকালে রাঙ্গুনিয়ায় অবৈধ ইটভাটার ছবি তোলায় স্থানীয় ইউপি সদস্য মহিউদ্দীন তালুকদার মোহনসহ ৫-৬ জন পিস্তল ঠেকিয়ে সাংবাদিক আবু আজাদকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে তার কার্যালয়ে নিয়ে যায়। সেখানে বেঁধে রেখে তাকে নির্যাতন করে। পরে ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন চৌধুরীর নির্দেশে তার মোবাইল ফোন ভেঙে ফেলে এবং মানিব্যাগ ও আইডি কার্ড- সব কেড়ে নিয়ে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করা হয়।

সোমবার (২৬ ডিসেম্বর) বিকালে রাঙ্গুনিয়া মডেল থানায় হতায় চেষ্টা, অপহরণ, টাকা-পয়সা ছিনিয়ে নেওয়া, মারধর এবং চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে বাদি হয়ে মামলা করেন ভুক্তভোগী সাংবাদিক আবু আজাদ। মামলায় ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মহিউদ্দিন তালুকদার মোহন, চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন চৌধুরী, ইটভাটার ম্যানেজার কামরান, মোহনের সহযোগী কাঞ্চন তুড়ির  নাম উল্লেখ করার পাশাপাশি অজ্ঞাত আরো ৫-৭ জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীকে অভিযুক্ত করা হয়। ওইদিন রাতেই আসামি কাঞ্চন তুড়িকে গ্রেফতার করে পুলিশ। একদিনের রিমান্ড শেষে আসামি কাঞ্চন তুড়ি বর্তমানে কারাগারে আছেন।

ইসলামপুরে শোডাউনে বক্তব্যে ইউপি সদস্য মহীউদ্দিন তালুকদার মোহন বলেন, আমি যদি মাদক সেবন করি, আমাদের যদি মাদকসহ ধরতে পারেন, আমাকে পুলিশে সোপর্দ করবেন। তবে একটি কথা বলে যাচ্ছি, ইসলামপুরে কে মাদক বিক্রি করে, কে মাদক খায়, আমার সব জানা আছে। হ্যাঁ, আমি আগে মাদক সেবন করতাম। রিহাবে (মাদক নিরাময় কেন্দ্র) ছিলাম। এরপর থেকে আমি মাদক সেবন করি না। এখন মাদকের গড়ফাদারদের বিরুদ্ধে আমরা আছি, থাকবো।

এদিকে সাংবাদিক আবু আজাদের অপহরণ ও হামলার বিষয়ে দ্রুত তদন্ত করে দোষীদের জবাবদিহিতার আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে বিশ্বব্যাপী সংবাদপত্রের স্বাধীনতা নিয়ে কাজ করা সংগঠন কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্টস (সিপিজে)। এর আগে জাতীযয় মানবাধিকার কমিশন তাদের এক বিবৃতিতে এ বিষয়ে তদন্তপূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করে কমিশনে আগামী ১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে প্রতিবেদন প্রেরণের জন্য চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসককে নির্দেশ দেয়।

বাংলাদেশ সময়: ২০৫০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৫, ২০২৩
এমআই/পিডি/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।