ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ মাঘ ১৪২৯, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৭ রজব ১৪৪৪

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রশ্নে আপসহীন ছিলেন বেগম মুশতারী: সিপিবি

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০৩৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২, ২০২২
মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রশ্নে আপসহীন ছিলেন বেগম মুশতারী: সিপিবি মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রশ্নে আপসহীন ছিলেন বেগম মুশতারী: সিপিবি

চট্টগ্রাম: বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি, চট্টগ্রাম জেলার উদ্যোগে শহীদজায়া বেগম মুশতারী শফীর স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার (০১ জানুয়ারি) বিকেলে নগরীর হাজারী লেইনে দলের কার্যালয়ে এই স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন গণজাগরণ মঞ্চের সদস্য সচিব ও উদীচী চট্টগ্রামের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. চন্দন দাশ। জেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক অশোক সাহার সঞ্চালনায় স্মরণসভায় বক্তব্য রাখেন গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা কাজী নুরুল আবসার, শহীদজায়ার সন্তান মেহরাজ তাহসান শফী, জেলা সিপিবির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য উত্তম চৌধুরী, নুরুচ্ছাফা ভূঁইয়া, উদীচী চট্টগ্রামের সহ-সাধারণ সম্পাদক জয় সেন, জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ইমরান চৌধুরী এবং নেত্রী অথৈ নাসরিন।

সভায় সিপিবি নেতারা বলেন, পাকিস্তান আমলে কমিউনিস্ট পার্টিকে বারবার নিষিদ্ধ করা হয়। তখন বেগম মুশতারী শফীর বাসা ছিল নিষিদ্ধ কমিউনিস্ট পার্টির নেতাকর্মীদের আশ্রয়স্থল। একাত্তরে ন্যাপ-কমিউনিস্ট পার্টি-ছাত্র ইউনিয়ন গেরিলা বাহিনীর দুই ট্রাক অস্ত্র ও গোলাবারুদ মুশতারী শফীর স্বামী ডাক্তার শফী উনার বাসায় নিজের হেফাজতে রেখেছিলেন। এই অপরাধে উনাকে পাকিস্তানি বাহিনী ধরে নিয়ে গিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে। মুশতারী শফীর ভাইও শহীদ হয়েছিলেন। স্বামী এবং ভাইকে হারানোর পরও এই মহীয়সী নারী দমে যাননি। তাঁকে দমানো যায়নি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রশ্নে তিনি আপসহীন ছিলেন আমৃত্যু।  

বক্তারা আরও বলেন, বেগম মুশতারী শফীর স্বামী-ভাইকে খুন করেও তাঁকে দমানো যায়নি। তিনি নিজেও একজন মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীন দেশে প্রগতিশীল সাংস্কৃতিক ও নাগরিক আন্দোলনে তিনি সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন। শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে ঘাতক দালাল নির্মূলের আন্দোলন সংগঠিত করেছেন। রাজাকার-আলবদরদের বিচারের দাবিতে জনমত গড়ে তুলেছেন। জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত তিনি আদর্শ আর সংগ্রাম থেকে নিজেকে সরিয়ে নেননি। যারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছে, বেগম মুশতারী শফী তাদের বিরুদ্ধে সবসময় লড়াই-সংগ্রামের ময়দানে ছিলেন। তিনি আজীবন সাম্প্রদায়িক, মৌলবাদী শক্তি, যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে লড়াই করে গেছেন। প্রগতিশীল সাংস্কৃতিক, নাগরিক ইস্যুতে, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, নারীদের অধিকার আদায়ে তিনি সবসময় রাজপথে সোচ্চার থেকেছেন।

স্মরণ সভার শুরুতে প্রয়াত শহীদজায়া বেগম মুশতারী শফীর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে এবং এক মিনিট নীরবে দাঁড়িয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। শোক সংগীত পরিবেশন করেন উদীচী চট্টগ্রামের শিল্পীরা।

বাংলাদেশ সময়: ০০৩৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০২, ২০২২
কেএআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa