ঢাকা, সোমবার, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২২ শাবান ১৪৪৫

দিল্লি, কলকাতা, আগরতলা

মাসে ৪০টি এমআইসিএস হয় অ্যাপোলো মাল্টিস্পেশালিটি হাসপাতালে

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৪৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৪, ২০২৩
মাসে ৪০টি এমআইসিএস হয় অ্যাপোলো মাল্টিস্পেশালিটি হাসপাতালে

কলকাতা: প্রতি মাসে ৩৫-৪০ টি মিনিম্যালি ইনভেসিভ কার্ডিয়াক সার্জারি (এমআইসিএস) করছে অ্যাপোলো মাল্টিস্পেশালিটি হাসপাতাল। এ পর্যন্ত প্রায় ৪ হাজারেরও বেশি এমআইসিএস সফলভাবে করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

 

শনিবার (১৪ জানুয়ারি) বিকেল ৫টায় কলকাতার পাঁচ তারকা হোটেল আইসিটি রয়েলে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।  

সংবাদ সম্মেলনে হার্ট সার্জারি সম্পর্কে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, মিনিম্যালি ইনভেসিভ কার্ডিয়াক সার্জারি বা এমআইসিএস হলো হার্ট সার্জারির একটি নতুন উপায়, যার অনেক সুবিধা রয়েছে। প্রচলিত ওপেন হার্ট সার্জারিতে ৮ থেকে ১০ ইঞ্চির পরিবর্তে এই পদ্ধতিতে মাত্র ১.৫ থেকে ৩ ইঞ্চি কেটে হার্ট সার্জারি করা হয়। যা কম বেদনাদায়ক এবং প্রায় দাগহীন। এই অস্ত্রোপচারের পরে রোগীরা হাসপাতাল থেকে অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই বাড়িতে ফিরে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারে। পাশাপাশি এই পদ্ধতিতে তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে ওঠাও সম্ভব।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, আগে প্রচলিত ওপেন হার্ট সার্জারি ছিল ভালভ মেরামত বা প্রতিস্থাপন, হার্টের ছিদ্র বন্ধ করার একমাত্র সমাধান। কিন্তু এখন চিকিৎসা বিজ্ঞানের অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে এমআইসিএস ব্যবহার করে বিভিন্ন আরও উন্নত চিকিৎসা করা হয়। এমআইসিএস মাধ্যমে যে সব অস্ত্রপচার করা হয় সেগুলি হল: মিনিম্যালি ইনভেসিভ বাইপাস সার্জারি, এন্ডোস্কোপিক ভেইন এবং রেডিয়াল আর্টারি হার্ভেস্টিং, এমআইসিএস মহাধমনী ভালভ, মিনিম্যালি ইনভেসিভ মাইট্রাল ভালভ সার্জারি, কি-হোল এএসডি ক্লোজার এবং করোনারি বাইপাস।

অ্যাপোলো মাল্টিস্পেশালিটি হাসপাতালের কলকাতার পরিচালক কার্ডিও থোরাসিক এবং ভাস্কুলার সার্জন ডা. সুশান মুখোপাধ্যায় বলেন, এমআইসিএস’র একাধিক ইতিবাচক পয়েন্টের কারণে রোগীর চিকিৎসায়, অস্ত্রোপচারে অতুলনীয় ফলাফল পাওয়া যায়। এটি নিরাপদ, কার্যকরী এবং রোগীকে অসামান্য স্বস্তি প্রদান করে। এই পদ্ধতিতে চিকিৎসা হলে একজন রোগী ২-৩ সপ্তাহের সেরে উঠবেন এবং ৩ মাসের মধ্যে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারেন। এর পরিবর্তে যদি কোনও রোগী প্রচলিত পদ্ধতি বেছে নেন তবে তাঁর সাধারণত ২-৩ মাস সময় নিয়ে পুনরায় কাজে যোগদান করতে পারবেন, মোটামুটি ৬ মাস সময় লেগে যাবে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে।  

তিনি আরও বলেন, আমরা গত দশক থেকে এমআইসিএস করোনারি আর্টারি বাইপাস গ্রাফটিং করে আসছি। এ ধরনের ৪ হাজারটিরও বেশি অস্ত্রোপচার করেছি। বাইপাস, ভালভ প্রতিস্থাপন, হার্টের ছিদ্র বন্ধ করা, কার্ডিয়াক টিউমার অপসারণ, পেস মেকার ইমপ্লান্টেশন এবং অন্যান্য সহ সমস্ত কার্ডিয়াক সার্জারির ৯৫% এমআইসিএস’র মাধ্যমে করা যেতে পারে। এটি এমনকী ৮০-৯০ বছরের বেশি বয়সী বয়স্ক রোগীদের জন্যও এই পদ্ধতিটি নিরাপদ।

এ আগে সকালে সাংবাদিকদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করে কলকাতার অ্যাপোলো মাল্টিস্পেশালিটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এ সময় হাসপাতালের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার বিষয়টি তুলে ধরেন।  

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, অ্যাপোলো মাল্টিস্পেশালিটি হাসপাতালের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রানা দাশ গুপ্ত, প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা অভিজিৎ মজুমদার এবং হাসপাতালের গ্যাস্ট্রোলজি বিভাগের প্রধান ডা. মহেশ গ্যাঙ্কা।

বাংলাদেশ সময়: ২০২১ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৪, ২০২৩
এমআর/টিসি 
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।