ঢাকা, বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২২ মে ২০২৪, ১৩ জিলকদ ১৪৪৫

দিল্লি, কলকাতা, আগরতলা

ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে ১৪ কোটি রুপির স্বর্ণসহ আটক ১

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৪৮ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২৩
ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে ১৪ কোটি রুপির স্বর্ণসহ আটক ১

কলকাতা: ভারত-বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সীমান্ত থেকে ২৩ কেজি স্বর্ণসহ ইন্দ্রজিৎ পাত্র (২৩) নামে এক পাচারকারীকে আটক করেছে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষীবাহিনীর (বিএসএফ)।  

জব্দ হওয়া মোট ৬৬টি স্বর্ণের বারের বাজারমূল্য (আনুমানিক) ১৪ কোটি রুপি।

বিএসএফের অভিযোগ, স্বর্ণের বারগুলো বাংলাদেশ থেকে চোরাই পথে ভারতে আনা হচ্ছিল।

মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিএসএফের তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) উত্তর ২৪ পরগনা জেলার রনঘাট এলাকার দক্ষিণবঙ্গ সীমান্তের অধীনস্ত ৬৮ ব্যাটালিয়নের সদস্যরা সতর্ক থাকায় বড় সফলতা এসেছে। সোমবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টা ৫০ নাগাদ বাহিনীর সদস্যরা গোপন সূত্রে খবর পান, তাদের দায়িত্বে থাকা এলাকা ভ্যান মোড়ে বড় ধরনের স্বর্ণের হাত বদল হতে চলেছে। এমন খবর পেয়ে বিএসএফের সদস্যরা ওই এলাকা ঘিরে ফেলেন। কিছুক্ষণ পর এক সন্দেহজনক মোটরসাইকেল আরোহীকে ভ্যান মোড় থেকে আটকান তারা। জিজ্ঞাসাবাদের সময় ওই আরোহী ঘাবড়ে যান এবং মোটরসাইকেল ফেলে পালানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু সতর্ক থাকায় তৎক্ষণাৎ তাকে ধরে ফেলেন এবং মোটরসাইকেলসহ সীমান্ত চৌকি রনঘাটে নিয়ে আসেন সদস্যরা। এরপর তল্লাশি চালিয়ে মোটরসাইকেলের এয়ার ফিলটার থেকে ওই স্বর্ণ পায় বিএসএফ।

জানা গেছে, আটক ইন্দ্রজিৎ উত্তর ২৪ পরগনার কুলিয়া গ্রামের বাসিন্দা। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি জানিয়েছেন, ওই জেলার অলডাঙ্গা গ্রামে তার ভাইয়ের একটি জুয়েলারি দোকান আছে এবং তিনি তার ভাইয়ের সঙ্গে জুয়েলারির কাজ করেন।

ও পাচারকারী আরও জানিয়েছেন, কিছুদিন আগে রনঘাট গ্রামের বাসিন্দা সমীর (৫০) তার সঙ্গে দেখা করেন। রনঘাট থেকে বনগাঁয় সেই স্বর্ণ পৌঁছানোর জন্য সমীর তাকে মাসে ১৫ হাজার রুপি দেবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। সেই জন্যই ইন্দ্রজিতের হাতে স্বর্ণের বার তুলে দেন সমীর। এরপর তিনি মোটরসাইকেলের এয়ার ফিলটারে লুকিয়ে ভ্যান মোড় হয়ে বনগাঁ যাচ্ছিলেন। কিন্তু তার আগেই স্বর্ণসহ ওই ইন্দ্রজিৎ ধরা পড়ে বিএসএফের হাতে। জব্দকৃত স্বর্ণ ও আটক ব্যক্তির নামে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য উত্তর ২৪ পরগনার বাগদা কাস্টমস অফিসে হস্তান্তর করা হয়েছে।

গত বছর বিএসএফের দক্ষিণবঙ্গ ফ্রন্ট, আন্তর্জাতিক সীমান্তে ১১৪ কেজি স্বর্ণ জব্দ করেছিল। চলতি বছর এখন পর্যন্ত ১২০ কেজি স্বর্ণ জব্দ করেছেন বাহিনীর সদস্যরা। এই বিপুল পরিমাণ স্বর্ণ উদ্ধার হওয়ার ঘটনায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন বিএসএফের সাউথ বেঙ্গল ফ্রন্টিয়ারের ডিআইজি (জনসংযোগ) এ কে আর্য।  

তিনি বলেছেন, বড় স্তরের চোরাকারবারিরা গরিব ও নিরীহ মানুষকে অল্প অর্থের প্রলোভন দিয়ে ফাঁদে ফেলে। বড় স্তরের চোরাকারবারিরা চোরাচালানে প্রত্যক্ষ রূপে জড়িত থাকেন না, তারা এই কাজের জন্য গরিব মানুষকে টার্গেট করেন।

স্বর্ণ চোরাচালান ঠেকাতে এই সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য দেওয়ার জন্য সীমান্তে বসবাসকারী মানুষদের বিএসএফের ‘সীমা সাথি’ হেল্পলাইন নম্বর ১৪৪১৯ ব্যবহার করারও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।  

এছাড়াও দক্ষিণবঙ্গ সীমান্ত আরেকটি নম্বর ৯৯০৩৪৭২২২৭ জারি করেছে। যাতে সোনা চোরাচালান সংক্রান্ত তথ্য হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ বা ভয়েস মেসেজ করে পাঠানো যায়। সঠিক তথ্যপ্রদানকারী ব্যক্তিকে উপযুক্ত পুরস্কারের অর্থ প্রদান এবং ওই ব্যক্তির পরিচয় গোপন রাখা হবে বলেও নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছে বিএসএফের তরফে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৪৮ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২৩
ভিএস/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।