ঢাকা, মঙ্গলবার, ৯ বৈশাখ ১৪৩১, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১৩ শাওয়াল ১৪৪৫

শিক্ষা

ঢাবিতে শেখ কামাল-সুলতানা কামাল ট্রাস্ট ফান্ড গঠন

ইউনিভার্সিটি করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৪২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৫, ২০২৩
ঢাবিতে শেখ কামাল-সুলতানা কামাল ট্রাস্ট ফান্ড গঠন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) শেখ কামাল ও সুলতানা কামাল ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ।

বৃহস্পতিবার (৫ জানুয়ারি) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের মোজাফ্ফর আহমেদ চৌধুরী মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে ট্রাস্ট ফান্ড গঠনের লক্ষ্যে ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের হাতে ৪০ লাখ টাকার চেক তুলে দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান।


 
এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, শেখ কামালের চাচা শেখ কবির হোসেন ও সুলতানা কামালের ছোট ভাই গোলাম আহমেদ টিটো প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঢাবি উপচার্য আখতারুজ্জামান বলেন, সাধারণত ট্রাস্ট ফান্ড গঠনের অনুষ্ঠান ছোট পরিসরে উপাচার্য লাউঞ্জে অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু আজকে বিশেষ মূল্যবোধ সম্পন্ন মানুষের নামে ফান্ড গঠিত হচ্ছে। তাই শিক্ষার্থীদের কথা মাথায় রেখে অন্তর্ভুক্তিমূলক দৃষ্টিভঙ্গির বহিঃপ্রকাশ হিসেবে এ ধরনের ব্যতিক্রমী আয়োজন করা হয়েছে। শেখ কামাল একাধারে ক্রীড়াবিদ, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, মুক্তিযুদ্ধের উচ্চ পদস্থ সৈনিক ছিলেন এবং নানা পর্যায়ে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তার সহধর্মিণী সুলতানা কামাল‌ও ছিলেন জাতীয় পর্যায়ের ক্রীড়াবিদ।

তিনি বলেন, শেখ কামাল ও সুলতানা কামাল ট্রাস্ট ফান্ড মূলত দুটি বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দেবে। তা হলো ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক কার্যক্রমে যেসব শিক্ষার্থীরা অবদান রাখবে তাদের স্বীকৃতি দেওয়া হবে। কারণ শিক্ষা ক্ষেত্রে ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক বিভিন্ন সহশিক্ষা কার্যক্রমের গুরুত্ব রয়েছে। তাই আমরা শ্রেণিকক্ষে পাঠদানের পাশাপাশি সহশিক্ষামূলক কার্যক্রমে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করতে চাই। এছাড়াও খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে অবদান রাখার পাশাপাশি শিক্ষা ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা শিক্ষার্থীদের স্বীকৃতির বিষয়ে গুরুত্ব দেবে এ ট্রাস্ট।

কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, আজকের এ ট্রাস্ট ফান্ডের মাধ্যমেই শুধু আমরা শেখ কামাল ও সুলতানা কামালকে স্মরণ করবো না, অনুষদের বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে আমরা তাদের স্মরণ করবো। আজকের এ অনুষ্ঠান শুধু একটা আনুষ্ঠানিকতা মাত্র।

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান বলেন, আমরা খুবই আনন্দিত ও গর্বিত। আজ আমরা একটা ভালো কাজ করতে পারলাম। মহান কাজ করতে পারলাম। আমাদের কিছু ঋণ ছিল। শেখ কামাল ও সুলতানা কামাল আমাদের অনুষদেরই শিক্ষার্থী ছিলেন। আমাদের দায়িত্ব ছিল তাদের কিছুটা ঋণ শোধ করা।

শেখ কামালের চাচা শেখ কবির আহমেদ স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বলেন, বঙ্গমাতার হাতেই আমি মানুষ হয়েছি, ওই বাড়িতে আমার বিয়ে, বসবাস, সবার অনেক কাছে ছিলাম বলে কষ্টটা বেশি লাগে। শেখ হাসিনা আজ অনেক নিরাপত্তায় থাকেন, কিন্তু বঙ্গবন্ধু অতটা নিরাপত্তায় থাকতেন না। সাধারণ মানুষের সঙ্গে মিশে যেতেন। শেখ কামাল ছিলেন নানা প্রতিভার অধিকারী ও বুদ্ধিমান। সবসময় হাসিখুশি থাকতো, গান গাইতো মিষ্টি সুরে। খেলাধুলা, বিতর্ক, উপস্থিত বক্তৃতা, নাটক সব কিছুতেই ছিল তার পদচারণা। আমি আশা করি এ ট্রাস্ট লেখাপড়া ছাড়াও অন্যান্য ক্ষেত্রেও অবদান রাখবে।

অনুষ্ঠানে গোলাম আহমেদ টিটো বলেন, শেখ কামাল ও সুলতানা কামাল দুজনে ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব ছিলেন। সুলতানা কামাল স্কুল কলেজ লেভেলের অনেক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছেন এবং বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি হওয়ার পরে তিনি সেটা চালু রেখেছিলেন। বিভিন্ন পুরস্কারেও ভূষিত হয়েছিলেন। শেখ কামাল চৌকস একজন মানুষ ছিলেন। মেধাবী শেখ কামাল দেশের আধুনিক ফুটবলের রূপকার ছিলেন। সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ তাদের দুইজনের নামে ট্রাস্ট ফান্ড গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে এজন্য আমি আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৪২ ঘণ্টা জানুয়ারি ০৫, ২০২৩
এসকেবি/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।