ঢাকা, বুধবার, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১, ২৪ জুলাই ২০২৪, ১৭ মহররম ১৪৪৬

শিক্ষা

‘অবৈধভাবে’ নিয়োগের অভিযোগে এমপিও স্থগিত প্রভাষকের

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০৩৭ ঘণ্টা, জুন ২৩, ২০২৪
‘অবৈধভাবে’ নিয়োগের অভিযোগে এমপিও স্থগিত প্রভাষকের

কুমিল্লা: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা মহিলা ডিগ্রি কলেজে অবৈধভাবে নিয়োগ পাওয়া এক প্রভাষকের এমপিও (মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার) স্থগিত করা হয়েছে। কলেজ অধ্যক্ষ অবৈধ সুবিধা নিয়ে এই নিয়োগ দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

সম্প্রতি ওই প্রভাষকের এমপিও স্থগিত করে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) কুমিল্লা অঞ্চল।  

জানা গেছে, ২০১৬ সালের ৫ নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা মহিলা ডিগ্রি কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক পদে নিয়োগ পরীক্ষা হয়। ৩৬ নম্বর পেয়ে প্রথম স্থান অর্জন করেন মো. আলাউদ্দিন ও সাড়ে ৩৫ নম্বর পেয়ে দ্বিতীয় হন তাইফুর রহমান।  

প্রথম হওয়া আলাউদ্দিন জানান, ১০ দিন পর তিনি জানতে পারেন দ্বিতীয় হওয়া তাইফুর রহমানকে নিয়োগের চূড়ান্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে ম্যানেজিং কমিটি। কলেজ অধ্যক্ষ তসলিম মিয়া তাকে (আলাউদ্দিন) জানান, নিয়োগ কমিটি ভগ্নাংশ নম্বরের সাথে আরও আধা নম্বর যোগ করে দুইজনকেই যুগ্মভাবে প্রথম দেখান।  

বিষয়টি নিয়ে ২৮ নভেম্বর মাউশি কুমিল্লা অঞ্চলের পরিচালক বরাবর আবেদন করেন আলাউদ্দিন। ওই বছরের ৭ ডিসেম্বর তৎকালীন পরিচালক প্রফেসর হারাণ চন্দ্র দেবনাথের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল সরেজমিন তদন্ত শেষে তাইফুর রহমানের নিয়োগের বিষয়টিকে অবৈধ উল্লেখ করে ২০১৭ সালের ২ ফেব্রুয়ারি একটি প্রতিবেদন দাখিল করেন।  

এতে বলা হয়, সাড়ে ৩৫ নম্বরকে ৩৬ দেখানোর সুযোগ নেই। তাই দ্বিতীয় হওয়া তাইফুর রহমানের নিয়োগ কোনোভাবেই সঠিক হতে পারে না। আলাউদ্দিন অভিযোগ করেন বড় ধরনের আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে তাকে বঞ্চিত করে অন্যজনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া নিয়োগ কমিটির রেজুলেশন টেম্পারিং করে তার বিরুদ্ধে নৈতিক স্খলনের মিথ্যা অভিযোগ লেখা হয়েছে। কারণ তিনি তো এখানে চাকরিই করেননি, তাহলে অনৈতিকতার প্রশ্ন কীভাবে আসে?

ম্যানেজিং কমিটির সদস্য এনামুল হক বাবুল বলেন, সেখানে তার স্বাক্ষর জালিয়াতি করা হয়েছে। এতে অধ্যক্ষের কারসাজি রয়েছে। অধ্যক্ষ অবৈধ সুবিধা নিয়ে আলাউদ্দিনকে নিয়োগ বঞ্চিত করেছেন।
  
ম্যানেজিং কমিটির সদস্য খোকন রায় বলেন, আলাউদ্দিনের চারিত্রিক বিষয়টি রেজুলেশনে ছিল না। এটা পরে ছোট অক্ষরে সংযুক্ত করা হয়েছে।

কসবা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ তসলিম মিয়া বলেন, নিয়োগ প্রক্রিয়ার বিষয়টি ৮ বছর অতিবাহিত হয়েছে। সেখানে কোনো আর্থিক লেনদেন হয়নি।  

নৈতিক অবক্ষয়, রেজুলেশন টেম্পারিং ও স্বাক্ষর জালিয়াতির বিষয়ে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অনিয়মের বিষয়টি স্বীকার করে তদন্ত কমিটির সদস্য ও মাউশি কুমিল্লা অঞ্চলের গবেষণা কর্মকর্তা মাহবুবুল আলম বলেন, প্রতিবেদন আলাউদ্দিনের পক্ষেই রয়েছে। তবে নিয়োগের বিষয়টি আমাদের হাতে নেই। তারপরও যেহেতু বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক রয়েছে, তাই এমপিওর বিষয়টি স্থগিত রয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) কুমিল্লা অঞ্চলের পরিচালক প্রফেসর সোমেশ কর চৌধুরী বলেন, বিষয়টি আমরা অবগত। কিন্তু ম্যানেজিং কমিটি যেহেতু আলাউদ্দিনকে নিয়োগ দেয়নি, তাই সেটি দেখার দায়িত্ব আমাদের নয়। অবশ্য অনিয়মের বিষয়টি জানতে পেরে এমপিও স্থগিত রেখেছি। তবে আদালতের নির্দেশনা পেলে নিয়োগের বিষয়েও পদক্ষেপ নেওয়া হবে।  

বাংলাদেশ সময়: ১০৩০ ঘণ্টা, জুন ২৩, ২০২৪
এসএএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।