ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

বিনোদন

ঈদের দিন যার কথা ভেবে খারাপ লাগে দীঘির

বিনোদন ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৫ ঘণ্টা, এপ্রিল ১০, ২০২৪
ঈদের দিন যার কথা ভেবে খারাপ লাগে দীঘির

শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে। রাত পোহালেই ঈদুল ফিতর।

ঈদকে ব্যস্ত সময় পার করছেন সবাই। এ ক্ষেত্রে একইরকম আবহ শোবিজ অঙ্গনে। তারকারাও ঈদ আনন্তে মেতে উঠতে সব প্রস্তুতি সারছেন।  

যেমন ঈদের ব্যস্ততায় সময় পার করছেন ঢাকাই সিনেমার অভিনেত্রী প্রার্থনা ফারদিন দীঘি। তার ব্যস্ততা মূলত ঈদের দিন রান্নাবান্না নিয়ে। কারণ প্রতি ঈদে রান্নাবান্না দীঘি নিজেই করেন।

সম্প্রতি এক সংবাদমাধ্যমে অভিনেত্রী জানিয়েছেন, মা নেই, তাই ঈদের দিনের সব রান্নাবান্না তাকেই করতে হয়। ঈদের দিন মায়ের কথা ভেবে সবচেয়ে বেশি খারাপ লাগে তার।

দীঘি বলেন, ঈদের দিন ইন্দিরা রোডের বাসায়ই থাকব। একটা বেসরকারি টিভি চ্যানেলে ঈদ স্পেশাল সেলিব্রিটি অনুষ্ঠানে থাকব ঈদের দিন। তবে ঈদের দিন যার কথা ভেবে সবচেয়ে বেশি খারাপ লাগে, তিনি আমার মা ইফতে আরা ডালিয়া দোয়েল। ২০১১ সালে মায়ের মৃত্যুর পর মা-বাবা বলতে এখন বাবা আমার সব। ছোটবেলায় মাকে হারানোর পর বাবাকেই মায়ের ভূমিকায় পেয়েছি।

তিনি বলেন, শুধু আমার জন্যই নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছেন বাবা। তাই বাবার প্রতি বাড়তি আবেগ আর অসীম শ্রদ্ধা কাজ করে। মা যখন অসুস্থ, তখন বাবা হাসপাতালের বিছানায় মাকে সামলেছেন, আবার আমাকেও সামলেছেন। পরিবারের সঙ্গেই কেটেছে আমার শৈশব ও কৈশোরের বর্ণিল ঈদগুলো। এখনো ঈদ আসে। তবে আগের মতো করে ঈদ উদযাপন করতে পারি না।

মায়ের কথা স্মরণ করে দীঘি বলেন, ‘শৈশবে ঈদের দিনে মায়ের হাতের রান্না খেতাম মজা করে। জগতের সব মায়ের মতো আমার মাও রান্না করতেন অনেক মজা করে। আজ মা নেই। তাই এখন ঈদের দিনের সব রান্না আমিই করি। কেবল রান্নাবান্না নয়, ঘর গোছানো থেকে শুরু করে ঈদের দিনের সব কাজ একাই সামলাই বলা যায়! ইন্দিরা রোডের বাসায় বন্ধুরা আসে। তাদের নিয়ে আড্ডা দিই। খাওয়াদাওয়া করি। ’

তিনি বলেন, ‘ছোটবেলার ঈদের দিনের পরিকল্পনাগুলোর কথা মনে পড়লে এখন হাসিই পায়। কিন্তু অন্য রকম এক ভালো লাগাও কাজ করে মনের মধ্যে। কত সহজ-সরল আর ভাবনাহীন ছিল শৈশবের ঈদ। সকালে গোসল সেরে বড়দের সালাম দিয়ে শৈশবের ঈদ শুরু হতো। বড়দের সালাম দিয়ে সালামির জন্য দাঁড়িয়ে থাকতাম! সালামি নিয়ে সে কত কত স্মৃতি, কত কী কিনতাম! তখন একমাত্র সালামির টাকাগুলোকেই নিজের টাকা মনে হতো। এ ছাড়া তেমন টাকাই হাতে পেতাম না। তাই সালামি হাতে পেয়েই নানান পরিকল্পনায় বসতাম। যদিও শেষ পর্যন্ত তেমন কিছুই করা হতো না সালামির টাকা দিয়ে। ’

এবার ঈদে দীঘির কোনো চলচ্চিত্র মুক্তি পাচ্ছে না। তবে সদ্যই মাহমুদুর রহমান হিমি পরিচালিত একটি ওয়েব সিরিজে অভিনয়ের কাজ শেষ করেছেন দীঘি। ঈদের পর ১৮ তারিখ কালচারাল শো করতে লেবাননে যাবেন অভিনেত্রী।  

বাংলাদেশ সময়: ২০১৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ১০, ২০২৪
এসএএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।