ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

সুন্দরবনে বাঘ গণনা শুরু, সংখ্যা জানা যাবে ২৯ জুলাই

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট     | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯০৬ ঘণ্টা, নভেম্বর ৫, ২০২৩
সুন্দরবনে বাঘ গণনা শুরু, সংখ্যা জানা যাবে ২৯ জুলাই বাঘের ছবিটি সংগৃহীত

বাগেরহাট: সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগে ‘ক্যামেরা ট্র্যাপিং’ পদ্ধতিতে বাঘ গণনা শুরু হয়েছে।  

রোববার (৫ নভেম্বর) দুপুরে সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের হাড়বাড়িয়া ইকো-ট্যুরিজম কেন্দ্রে এ জরিপ কাজের উদ্বোধন করেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার।

এই জরিপের ফলে প্রাপ্ত বাঘের সংখ্যা জানা যাবে ২০২৪ সালের ২৯ জুলাই।

বাঘ গণনা কার্যক্রম উদ্বোধনের সময় খুলনাঞ্চলের বন সংরক্ষক (সিএফ) মিহির কুমার দো, বাঘ সংরক্ষণ প্রকল্পের পরিচালক ড. আবু নাসের মহাসিন হোসেন, বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা বিভাগের (খুলনা) বিভাগীয় বন কর্মকর্তা নির্মল কুমার পাল, সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) কাজী মো. নুরুল করিম, চাঁদপাই রেঞ্জের (মোংলা) সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) রানা দেব ও করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন ও পর্যটনকেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাওলাদার আজাদ কবিরসহ বাঘ গণনার কাজে অংশ নেওয়া বিশেষজ্ঞরা উপস্থিত ছিলেন।  

জরিপ কার্যক্রম উদ্বোধন শেষে উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার বলেন, সুন্দরবন বাঁচলে, বাঘ বাঁচবে। তাই সুন্দরবন সুরক্ষা করে বাঘ সংরক্ষণ করতে হবে। বাঘ সংরক্ষণের জন্য যা যা করা দরকার -আমরা করব। তবে এক্ষেত্রে বনরক্ষী, সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে। সুন্দরবন সংলগ্ন লোকালয়ে বসবাসকারীদের বাঘের গুরুত্ব বিষয়ও জানাতে হবে।

প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, সুন্দরবনের চাঁদপাই এবং শরণখোলা রেঞ্জে ৩০০টি স্টেশনে দুইটি করে মোট ৬০০ ক্যামেরা ট্র্যাপিং বসিয়ে বাঘের তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করা হবে। পরে তা বিশ্লেষণ শেষে ২০২৪ সালের ২৯ জুলাই বিশ্ব বাঘ দিবসে এর প্রকৃত সংখ্যা তুলে ধরা হবে। ‘বাঘ সংরক্ষণ প্রকল্প’র আওতায় বাঘ গণনার কাজে ২ কোটি ৭০ লাখ টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে। বাকি দুইটি রেঞ্জ বাগেরহাটের পশ্চিম সুন্দরবন বিভাগের সাতক্ষীরা ও খুলনা রেঞ্জে ইতোমধ্যে জরিপ কাজ শুরু হয়েছে। আগামী বছরের এপ্রিল মাসে এ জরিপ কাজ শেষ হবে।

বাঘ সংরক্ষণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. আবু নাসের মহসিন বলেন,  সুন্দরবনে বাঘের শিকার প্রাণী বাড়ছে। গত বছর এর সংখ্যা ছিল ৮২ হাজার। এখন তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৪২ হাজার। তাই সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা বাড়বে বলেও ধারণা করা হচ্ছে।  

তিনি আরও বলেন, বাঘ গণনার বৈশ্বিক যে পদ্ধতি, সেটা হলো ক্যামেরা ট্র্যাপিং। এর মাধ্যমে বাঘের ঘনত্ব নির্ণয় করে সংখ্যা নির্ণয় করা হয়। বাংলাদেশেও একই পদ্ধতি অনুসরণ করে ৬ হাজার বর্গ কিলোমিটারের ৪ হাজার ৪০০ বর্গকিলোমিটারে বাঘ গণনার কাজ চালানো হবে। ক্যামেরা ট্র্যাপিংয়ের মাধ্যমে বাঘের মুখমণ্ডল ও ডোরাকাটার ছাপ উঠে আসবে। এটা জটিল একটা পরিসংখ্যান কাজ। এ কাজ করেই বাঘের সংখ্যা বের করা হবে।  

সুন্দরবনে প্রথম বাঘ জরিপের কাজ শুরু হয় ২০১৩-১৪ সালে। সেই জরিপে ১০৬টি বাঘ সুন্দরবনে আছে বলে জানা যায়। ২০১৮ সালে সর্বশেষ জরিপে সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা ছিল ১১৪টি।  

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৫ ঘণ্টা, নভেম্বর ০৫, ২০২৩
এসআরএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।