ঢাকা, মঙ্গলবার, ৯ বৈশাখ ১৪৩১, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১৩ শাওয়াল ১৪৪৫

ফুটবল

পুলিশের বিপক্ষে আবাহনীর হোঁচট

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, স্পোর্টস | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮৪১ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৭, ২০২৩
পুলিশের বিপক্ষে আবাহনীর হোঁচট

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের চতুর্থ রাউন্ডের খেলা চলছে। চতুর্থ রাউন্ডে লিগের সর্বোচ্চ চ্যাম্পিয়ন ঢাকা আবাহনী হোঁচট খেয়েছে পুলিশ এফসির বিপক্ষে।

শনিবার ময়মনসিংহের রফিক উদ্দিন ভূঁইয়া স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ পুলিশের সঙ্গে গোল শূন্য ড্র করেছে মারিও লেমোসের দল। চার ম্যাচে দুটি করে জয় ও ড্র’তে ৮ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে আবাহনী। আর ৫ পয়েন্ট নিয়ে ষষ্ঠ স্থানে পুলিশ। এই ড্রয়ে বসুন্ধরা কিংসের চেয়ে ৪ পয়েন্ট পিছিয়ে গেল আবাহনী। ৪ ম্যাচে বসুন্ধরা কিংস ১২ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে।

দিনের অন্য ম্যাচে জিতেছে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস এন্ড সোসাইটি। মুন্সিগঞ্জে আজমপুর ফুটবল ক্লাবকে ১-০ গোলে হারিয়েছে তারা। ম্যাচের ৭৮তম মিনিটে একমাত্র গোলটি করেন কলম্বিয়ান ফরোয়ার্ড জোয়াহো হিনেস্ট্রোজা। সাদ্দাম হোসেনের ক্রসে প্রতিপক্ষের বক্সে এনামুলের মাথা ছুঁয়ে চলে যায় দূরের পোস্টে, সেখান থেকে গতির শটে লক্ষ্যভেদ করেন হিনেস্ট্রোজা। ৪ ম্যাচে চার পয়েন্ট নিয়ে অষ্টম স্থানে রহমতগঞ্জ। তিন ম্যাচে এখনো পয়েন্টের খাতা শূন্য আজমপুরের।

গোল পাওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে চেষ্টা করেছে আবাহনী লিমিটেড। আক্রমণও কমে করেনি। বিরতির পর এলিটা কিংসলে-নাবীব নেওয়াজ জীবনদের মাঠে নামিয়েও কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা মেলেনি। প্রিমিয়ার লিগে ফর্টিসের সঙ্গে ড্রয়ের পর চতুর্থ ম্যাচে এসে আবারও খেতে হয়েছে হোঁচট।  

ম্যাচের ১২ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে পুলিশের ফুটবলার রবিউলের স্পট কিক বক্সে পেয়ে হেড নিয়েছিলেন তার সতীর্থ। বল গ্রিপ করে দলকে রক্ষা করেন আবাহনীর গোলরক্ষক শহীদুল আলম সোহেল। ৪৩ মিনিটে প্রায় মাঝ মাঠ থেকে পুলিশের মালিকভের লং পাস বক্সের ডান প্রান্ত থেকে জোড়ালো ক্রস করেছিলেন জিয়া।  

গোল লাইনের কাছ থেকে দারুণ দক্ষতায় বল ক্লিয়ার করেন আবাহনীর ডিফেন্ডার রেজা। প্রথমার্ধের শেষ মিনিটে সব থেকে বড় সুযোগটি হাতছাড়া করে পুলিশ ফুটবল ক্লাব। ড্যানিয়েল কলিন্ড্রেসের কাছ থেকে বল কেড়ে নিয়ে আবাহনীর বক্সে ঢুকে পড়েন মরিও। ডান প্রান্ত থেকে দারুণ একটা বল বানিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। শুধু ফাইনাল টাচ দিতে পারলেই গোল নিশ্চিত ছিল। প্রথমার্ধে অন্তত দু’টি গোলের সুযোগ হাতছাড়া করে ঢাকা আবাহনীও।

৫৯ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে কলিন্ড্রেসের কর্ণার থেকে উড়ে আসা বল পোস্টের কাছ থেকে হেড নিয়েছিলেন বদলী ফুটবলার এলিটা কিংসলে। সেটিও চলে যায় পোস্টের বাইরে। আবাহনীর আরও একটি সহজ সুযোগ নষ্ট হয়। ৮৯ মিনিটে বক্সের সামান্য দূরেই ফ্রি কিক পায় পুলিশ। মালিকভের স্পট কিক ফিরিয়ে দেন শহীদুল আলম সোহেল। ৯০+১ মিনিটে বা প্রান্ত থেকে ফয়সাল আহমেদ ফাহিমের যোগান দেয়া বল বক্সে পেয়ে ডান পায়ে শট নেন ফরোয়ার্ড নাবীব নেওয়াজ জীবন। বল চলে যায় মাঠের বাইরে। ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়। এর আগে স্বাধীনতা কাপ ও ফেডারেশন কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে আবাহনীর কাছে হেরে যায় পুলিশ।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৩৯ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৭, ২০২৩
এআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।