ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ শাবান ১৪৪৫

তথ্যপ্রযুক্তি

ক্রিয়েটরদের নিয়ে বাংলাদেশে টিকটকের ডিজিটাল সেফটি ইভেন্ট 

তথ্য-প্রযুক্তি ডেস্ক  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১১১ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৬, ২০২৩
ক্রিয়েটরদের নিয়ে বাংলাদেশে টিকটকের ডিজিটাল সেফটি ইভেন্ট 

ঢাকা: বৈশ্বিক বিনোদন প্ল্যাটফর্ম টিকটক বাংলাদেশে তাদের প্রথম ইভেন্ট আয়োজন করেছে। দেশের টিকটক ব্যবহারকারীদের জন্য ডিজিটাল সেফটি সম্পর্কে সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে সেফটি অ্যাম্বাসেডর প্রোগ্রামের অংশ হিসেবে এই ইভেন্ট আয়োজন করেছে।

বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে জানানো হয়, টিকটক প্ল্যাটফর্মটি এরইমধ্যে উদ্ভাবনী ও বৈচিত্র্যময় কমিউনিটির জন্য জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। সেজন্য দিন দিন ব্যবহারকারীর সুরক্ষা ও নিরাপত্তার বিষয়টিতে জোর দিতে #সেফারটুগেদার ক্যাম্পেইন চালু করেছে।

ক্রিয়েটরদের নিয়ে এই আয়োজনে ছিল অনলাইন সেফটি বিষয়ে একটি প্যানেল আলোচনা।  

প্যানেল আলোচনায় দেশের জনপ্রিয় তারকা ও কনটেন্ট ক্রিয়েটর অংশ নেন। যাদের মধ্যে ছিলেন-এডুকেটর আয়মান সাদিক, জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া, জনপ্রিয় অভিনেত্রী শবনম ফারিয়া, জনপ্রিয় কনটেন্ট ক্রিয়েটর ইফতেখার রাফসান, সাবেক মিস বাংলাদেশ পিয়া জান্নাতুল, লাইফস্টাইল ইনফ্লুয়েন্সার ফাইজা এবং অভিনেত্রী নীল হুরেরজাহান বীথি।  

প্যানেল আলোচনায় ডিজিটাল সেফটির বিভিন্ন দিক যেমন- ভুল তথ্য, হয়রানি এবং সাইবার বুলিং, ইন্টারনেটের দায়িত্বশীল ও নিরাপদ ব্যবহার, নিরাপদ কনটেন্ট তৈরি নিয়ে আলোচনা করেন।  

অতিথিরা উপস্থিত ক্রিয়েটরদের দিক-নিদের্শনা ও টিপস দেন কীভাবে তারা টিকটকে নীতিমালা মেনে সুন্দর সব কনটেন্ট তৈরির মাধ্যমে একজন নিরাপদ কনটেন্ট ক্রিয়েটর হতে পারেন।  

আয়োজন নিয়ে একটি বিশেষ ভিডিও বার্তা দেন বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) মহাপরিচালক (সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিস) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসিম পারভেজ।  

তিনি বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আজকের বিশ্বে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আমি এই সময়োপযোগী প্রচারণার ব্যবস্থা করার জন্য টিকটককে ধন্যবাদ জানাই।  

বিষয়বস্তু নির্মাতাদের অবশ্যই দায়িত্বশীলভাবে কাজ করতে হবে এবং অন্যদের অনুপ্রাণিত করে এমন ভালো বিষয়গুলো তুলে ধরতে হবে। আমাদের অবশ্যই ভাইরাল হওয়ার প্রবণতা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে এবং দেশের প্রতিভার প্রতিনিধিত্ব করে এমন বিষয়বস্তু তৈরিতে কাজ করতে হবে।  

আয়মান সাদিক বলেন, আমার প্যানেলিস্ট হিসাবে বিশিষ্ট বিষয়বস্তু নির্মাতাদের সাথে এই প্যানেল আলোচনার অধিবেশনটি পরিচালনা করার একটি দারুন অভিজ্ঞতা হয়েছে। আমরা হেসেছি, ডিজিটাল স্পেসে আমাদের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে কথা বলেছি।

পিয়া জান্নাতুল বলেন, এই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ আলোচনার জন্য প্যানেলিস্ট দলের অংশ হতে পেরে আমি সম্মানিত। একজন কনটেন্ট ক্রিয়েটর হিসেবে আমি মনে করি যে, ডিজিটাল মিডিয়াতে অন্যদের সাথে যোগাযোগ করার সময় দায়িত্বশীল হওয়া এবং সতর্কতা অবলম্বন করা আমাদের ওপর নির্ভর করে।

জামাল ভূঁইয়া বলেন, আমরা প্রায়শই দেখতে পাই যে, শুধু কনটেন্ট ক্রিয়েটরই নয়, অন্যদের দিকেও মানুষ এমন অনেক মন্তব্য ছুড়ে দেয়, যা আমাদের নিরাশ করে বা আমাদের মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে। আমি আশা করি, এই প্যানেল আলোচনা সেশনের মাধ্যমে, আমরা সাইবার বুলিংয়ের প্রভাব সম্পর্কে আরও জানতে পেরেছি এবং, আশা করি, আমরা এই ধরনের আচরণগুলো চিনতে এবং তাদের সংশোধন করতে সক্ষম হবো।  

বাংলাদেশ সময়: ২১০৮ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৬, ২০২৩
এমআইএইচ/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।