ঢাকা, রবিবার, ৮ বৈশাখ ১৪৩১, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ১১ শাওয়াল ১৪৪৫

জাতীয়

মাগুরায় তীব্র শীতে বেড়েছে গরম কাপড়ের চাহিদা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৫৮ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৩, ২০২৩
মাগুরায় তীব্র শীতে বেড়েছে গরম কাপড়ের চাহিদা

মাগুরা: মাগুরায় তীব্র শীতের সঙ্গে বইছে হিমেল হাওয়া, দিনের অর্ধেকটা সময় পার হয়ে গেলেও সূর্যের দেখা মিলছে না। ফলে চরম সমস্যায় পড়তে হচ্ছে কর্মজীবী থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে।

এদিকে তীব্র শীত থেকে বাঁচতে গরম কাপড়ের দোকানে বেড়েছে ভিড়।
মাগুরা আতর আলী সড়কের দুই পাশের দোকানগুলোতে গরম কাপড় কেনার ক্রেতার ভিড় দেখা গেছে। তাদের মধ্যে কেউ গরম কাপড়ের দাম নিয়ে ব্যস্ত, কেউ আবার পছন্দের পোশাক কেনায় ব্যস্ত। অধিকাংশ মানুষ এসেছে গরম  কাপড় কিনতে।

মঙ্গলবার (৩ জানুয়ারি) দুপুরে শহরের ফুটপাতে ঘুরে দেখা যায় সেখানে বেড়েছে শীতের গরম কাপড় কেনাবেচা। প্রতিটি দোকানে নারী ও শিশুসহ নানা বয়সীদের বেশ ভিড়। নিম্ন ও মধ্য আয় থেকে শুরু করে সব শ্রেণির মানুষ এসেছেন গরম কাপড়ের খোঁজে।

গরম কাপড় ব্যবসায়ী মো. মামুন বলেন, সবচেয়ে চাহিদা বেশি ট্রাউজার, ফুলহাতা গেঞ্জি, জ্যাকেট, কোট ও বাচ্চাদের বিভিন্ন পোশাক।

এদিকে রিকশাচালক মো. ইয়াসিন মোল্লা বলেন, তীব্র শীত পড়ছে। রিকশা চালাতে পারছি না। শহরে লোকজন কম বের হচ্ছে। আমাদের আয় তেমন হচ্ছে না, চরম ভোগান্তিতে আছি।

আরেক গরম কাপড় ব্যবসায়ী মো. সোহেল বলেন, শহরের আতর আলী সড়কে প্রায় ১৫ থেকে ২০টি গরম কাপড়ের দোকান রয়েছে। এখানে ২০ টাকা থেকে  শুরু করে ১ হাজার টাকায় পাওয়া যাচ্ছে গরম কাপড়। তাছাড়া শিশুদের বিভিন্ন গেঞ্জি, জ্যাকেট, জিন্সের জ্যাকেট ২০০ টাকা থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে। ব্লেজার পাওয়া যাচ্ছে এক হাজার থেকে দুই হাজার টাকায়।

তিনি আরও বলেন, প্রথম দিক থেকে শীতের তেমন তীব্রতা ছিল না। তবে কয়েক দিন শীতের তীব্রতা বেড়েছে। সেই সঙ্গে আমাদের গরম কাপড়ের চাহিদা বেড়েছে। বেচা-বিক্রিও হচ্ছে ভাল।

মাগুরা বস্ত্র ব্যবসায়ী মো. লিটন হোসেন বলেন, মাগুরায় জেলায় প্রথম দিকে তেমন শীত অনুভূত না হলেও আজ (৩ জানুয়ারি) তীব্র শীতের সঙ্গে হিমেল হওয়া বইছে। ভোগান্তিতে পড়েছে নিম্ন আয়ের মানুষ। গরম কাপড় কিনতে ভিড় বেড়েছে ফুটপাতগুলোতে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৫৮ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৩, ২০২৩
এমএমজেড

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।