ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৮ শাবান ১৪৪৫

জাতীয়

সেলস্‌ম্যান থেকে ‘কোটিপতি’ সিসিকের হানিফ

নাসির উদ্দিন, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১১৫২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৪, ২০২৩
সেলস্‌ম্যান থেকে ‘কোটিপতি’ সিসিকের হানিফ

সিলেট: সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) প্রশাসনিক কর্মকর্তা হানিফুর রহমান। সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদের আস্থাভাজন ছিলেন তিনি।

সিসিকের মসনদে আরিফুল হক চৌধুরীর বসার পরপরই রঙ পাল্টে তার। হয়ে ওঠেন আরিফুল হকের আস্থাভাজন।

উভয়ের বাড়ি মৌলভীবাজারের একই উপজেলায় হওয়াতে বিশ্বস্থ হিসেবে হানিফকে কাছে টেনে নেন আরিফুল হক। অল্পদিনের মধ্যে নগর ভবনের ‘দ্বিতীয় কর্তা’ বনে যান তিনি। সামনাসামনি না বললেও নগর ভবনের ভেতরের সবাই তাকে মেয়রের খাসলোক তথা ‘বড় ছেলে’হিসেবে চেনেন-জানেন।

সেই সুযোগ ভালোভাবেই কাজে লাগিয়েছেন হানিফ। ধরাকে সরাজ্ঞান করে অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে দু’হাতে টাকা কামিয়ে যাচ্ছেন। সিসিকের প্রশাসনিক কর্মকর্তার পদ ছাড়াও কনজারভেন্সী শাখার দায়িত্বে আছেন তিনি। তার হাত দিয়েই হয় নগরভবনে নিয়োগ বাণিজ্য। এ যাবত তার মাধ্যমে নিয়োগপ্রাপ্তদের মধ্যে অর্ধশতাধিক নিজ উপজেলা কমলগঞ্জের বাসিন্দা বলে জানা গেছে।

অভিযোগ রয়েছে, নিজের অবস্থান সুদৃঢ় করতে কনজারভেন্সী শাখাসহ বিভিন্ন শাখায় হত্যাসহ বিভিন্ন মামলার দাগি অপরাধীদের চাকরি দিয়েছেন। এসব অপরাধীকে নিয়োগ দিয়ে দাপট খাটান তিনি। রক্ত সম্পর্কীয় আত্মীয় এমন ৫/৭ জনকেও গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়োগ দিয়েছেন। যারা তার কল্যাণে ছড়ি ঘুরান নগরমহলে।

এছাড়া দৈনিক মজুরি ভিত্তিকে কাজ করা লোকজনের কাছ থেকেও টাকা কেটে রাখা এবং বিভিন্ন হাসপাতাল ও মার্কেট, বিপনীবিতান থেকে ময়লা আবর্জনা অপসারণে কর্মীদের দিয়ে টাকা আদায় এবং ফুটপাতে বসা হকারদের কাছ থেকেও দৈনিক টাকা উত্তোলনের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

অনুসন্ধানে ‘দুর্নীতির বরপুত্র’ হানিফের গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামে মিলেছে পাহাড়সম সম্পদ। ২০০১ সালের সিসিকে চাকরি নেওয়ার আগে সোয়ান ফোম কোম্পানির সেলস্‌ম্যান হিসেবে কাজ করা হানিফ এখন বাড়ি-গাড়ি, জমিজমা, অট্টালিকার মালিক। সিলেট সিটি করপোরেশনের বরাদ্দ করা প্লটও রয়েছে তার স্ত্রীর নামে।

সরেজমিন দেখা গেছে, কমলগঞ্জের আদমপুরে বিশাল এলাকাজুড়ে তার মায়ের নামে আর.এম ডেইরি ফার্ম গড়ে তুলেছেন হানিফ। যে ফার্মে বিনিয়োগ করা হয়েছে কয়েক কোটি টাকা। ফার্মে রয়েছে দেশি-বিদেশি দেড় শতাধিক গরু। রয়েছে মৎস্য খামারও। প্রায় সাড়ে ৩ একর জায়গা জুড়ে গরুর জন্য উন্নত জাতের ঘাষেরও চাষ করেন তিনি।

২০১৪ সালে শুরু করা খামারের মালিক তার স্ত্রীর বলে দাবি করেছেন হানিফুর রহমান নিজেই। তবে খামারটি দেখাশোনা করতে দেখা গেছে তার ভাতিজা হাবিবুর রহমান জাবুলকে।

হাবিবুর রহমান জাবুল বলেন, ফার্মে তার বাবা আলতাফুর রহমান, চাচা হানিফুর রহমান ও চাচী (হানিফুর রহমানের স্ত্রী) মেহেরুন নেছার অংশ রয়েছে। ফার্মটি করা হয়েছে তার দাদির নামে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয়রা বলেন, একদশক আগে হানিফের তেমন কিছু ছিলনা। কেবল সিটি করপোরেশনে চাকরির সুবাদে তিনি অঢেল সম্পদের বনে গেছেন। নামে-বেনামে আরও অসংখ্য জমিজমা রয়েছে তার। আর খামারে সিলেট সিটি করপোরেশন বিলবোর্ডের লোহার পিলার লাগানো হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সিসিকের বিলবোর্ডের খুঁটিগুলো নগরীর দক্ষিণ সুরমার মেনিখলায় হানিফের বন্ধু সেলিমের মাধ্যমে আদমপুর পাচার করা হয়েছে। যদিও হানিফুর রহমান বলেছেন, এসব পিলার তিনি চট্রগ্রাম থেকে কিনে এনেছেন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, লোক নিয়োগ, দৈনিক মজুরিতে কাজ করা কনজারভেন্সী শাখার কর্মীদের বেতন কর্তন করে বিপুল অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন হানিফ। সিসিকের ২৮ লাখ টাকা মূল্যের ৫৩৫টি পানির মিটার গায়েবের ঘটনায় ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটিতেও ছিলেন হানিফ। এ ঘটনায় ৮ জনকে বরখাস্ত করা হলেও তদন্তে চারজনকে অভিযুক্তরা করলেও শাস্তির বিষয়টি অজ্ঞাত থেকে যায়।

নগরের বাগবাড়িতে তার স্ত্রীর নামে নেওয়া প্লট উল্টে কসাই খানার জন্য সিসিককে ভাড়া দিয়েছেন। তার স্ত্রী মেহেরুননেছা ওই প্লটের ভাড়া ১০ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা বৃদ্ধির জন্য গত বছরের আগস্টে সিসিক কর্তৃপক্ষ বরাবরে আবেদনও করেন। ওই আবেদনে মেহেরুন নেছা তার স্বামীর পরিচয় গোপন রেখে বাবার নাম মো. খতিব মিয়া লিখেন।

এছাড়া নগরীতে নামে বেনামে সম্পদ গড়ে তুললেও চৌহাট্টা এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন হানিফুর রহমান। নগর ভবনে সতীর্থরা ইতোমধ্যে তাকে দুর্নীতির বরপুত্র নাম দিয়েছেন।

এসব অভিযোগের বিষয়ে হানিফুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, আমি ২০০১ সালে সিটি করপোরেশনে চাকরি নিয়েছি। লোক নিয়োগ হয় আমার মাধ্যমেই।

তবে তার নিজের স্বজনদের নিয়োগ ও অর্থের বিনিময়ে নিয়োগের বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি।

আর গ্রামে ডেইরি ফার্মটি উদ্যোক্তা তার স্ত্রী বলে দাবি করে তিনি বলেন, আমার স্ত্রী সিলেট থেকে ও মাঝেমধ্যে সেখানে গিয়ে ফার্মটি দেখাশোনা করেন। অথচ ডেইরি ফার্ম নিয়ে তৈরি একটি ডকুমেন্টারিতে বলা হয়, তার স্ত্রী মেহেরুন্নেছা গ্রামে থেকেই এসব দেখাশোনা করেন। প্রায় দেড় একর জায়গা জুড়ে ফার্ম ও ১২ কেদার জায়গাতে গরুর ঘাস চাষের কথা স্বীকার করেন তিনি।

স্ত্রীর নামে প্লট বরাদ্দের বিষয়ে হানিফুর রহমান বলেন, চাকরিতে যোগদানের আগে তার মামা প্লটটি তার স্ত্রীকে দান করেছেন। একটি পক্ষ তার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১১৫০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৪, ২০২৩
এনইউ/এসএ
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।