ঢাকা, বুধবার, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০ শাবান ১৪৪৫

জাতীয়

রাজশাহীতে শীতে জবুথবু অবস্থা, তাপমাত্রা ৭.৪ ডিগ্রি

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০৪২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১২, ২০২৩
রাজশাহীতে শীতে জবুথবু অবস্থা, তাপমাত্রা ৭.৪ ডিগ্রি

রাজশাহী: রাজশাহীতে আবারও নেমেছে তাপমাত্রার পারদ। বৃহস্পতিবার (১২ জানুয়ারি) সকাল ৭টায় রাজশাহীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৭ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

এর আগের দিন বুধবার (১১ জানুয়ারি) ছিল ৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।  

আজ দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে চুয়াডাঙ্গায় ৬ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এরপর দ্বিতীয় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে রাজশাহীতে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে- দুদিন থেকে চলমান মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ আরও কয়েকদিন  অব্যাহত থাকতে পারে। এতে কমতে পারে তাপমাত্রাও। তবে হালকা থেকে মাঝারি কুয়াশা থাকলেও আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকবে।

বর্তমানে রাজশাহীসহ আশপাশের অঞ্চলের ওপর দিয়ে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাওয়ায় তাই শীতের দাপট বেড়েই চলেছে। আজ সাতসকালেই সূর্যের মুখ দেখা গেলেও উজ্জ্বল রোদের কোনো উষ্ণতা ছিল না। ভোরে ও সন্ধ্যায় ছিল ঘন কুয়াশার দাপট। ফলে প্রচণ্ড ঠান্ডায় স্বাভাবিক জনজীযাত্রা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। বৈরি আবওয়ায় বিপাকে পড়েছেন খেটে-খাওয়া, ছিন্নমূল মানুষ। বিশেষ করে শহুরে ছিন্নমূল মানুষগুলো বেশি দুর্ভোগে পড়েছেন। মাঘ মাসের শীতের এই তীব্রতায় ঠাণ্ডায় জবুথবু হয়ে পরেছেন তারা।  

এরপরও জীবন ও জীবিকার তাগিদে ঘনকুয়াশা আর তীব্র শীতের মধ্যেই সকাল-সন্ধ্যা এক করে কাজ করে যাচ্ছেন নিম্ন আয়ের মানুষ। রাতে রেলওয়ে স্টেশনে গিয়ে আশ্রয় নিচ্ছেন। সেখানে ছাদের নিচে খোলা কম্পাউন্ডে রাত কাটাচ্ছেন। আর শহরের বস্তি এলাকার শিশু থেকে বয়স্করা সন্ধ্যার পর কুড়িয়ে আনা খড়কুটোয় আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন।

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন বাংলানিউজকে জানান, গতকাল থেকে চলতি মৌসুমের চতুর্থ দফা শৈত্যপ্রবাহ শুরু হয়েছে। এটি মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ। গতকাল বুধবার (১১ জানুয়ারি) রাজশাহীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর আজ বৃহস্পতিবার (১২ জানুয়ারি) রেকর্ড করা হয়েছে ৭ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই অবস্থা আরো কয়েকদিন অব্যাহত থাকতে পারে এবং তাপমাত্রাও কমতে পারে বলে উল্লেখ করেন এই আবহাওয়া কর্মকর্তা।

বাংলাদেশ সময়: ১০৪১ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১২, ২০২৩
এসএস/এসআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।