ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ শাবান ১৪৪৫

জাতীয়

দাদার ইচ্ছা পূরণে...

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০০২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৩, ২০২৩
দাদার ইচ্ছা পূরণে...

পাবনা: ছোটবেলা থেকেই সত্তরোর্ধ্ব দাদা জবানী সরদারের ইচ্ছা ছিলো- তার ছোট নাতি আশিকুর রহমান পাপ্পু হেলিকপ্টারে বিয়ে করবে। জীবিত থাকতে তিনি এই দৃশ্য দেখে যেতে চান।

দাদার সেই ইচ্ছা পূরণ করতে হেলিকপ্টারেই বউ নিয়ে আসলেন নাতি আশিকুর রহমান পাপ্পু।  

শুক্রবার (১৩ জানুয়ারি) পাবনার সুজানগরে এ ঘটনা ঘটে।

আশিকুর রহমান পাপ্পু পাবনার সুজানগর পৌর সদরের চর সুজানগর মহল্লার ফজলুর রহমানের ছেলে। পেশায় বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার। ঢাকায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করেন। আর কনে নুসরাত জাহান জিম গাজীপুরের বাসিন্দা টুটুল শেখের মেয়ে। তিনি একটি মাদরাসার শিক্ষার্থী।

শুক্রবার (১৩ জানুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে গাজীপুর থেকে স্ত্রীকে নিয়ে একটি হেলিকপ্টারে চড়ে সুজানগর সরকারি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এসে হাজির হন বর আশিকুর রহমান পাপ্পু। এ সময় তাদের সঙ্গে ছিলেন দাদা জবানী সরদারসহ পরিবারের কয়েকজন সদস্য।

এদিকে, হেলিকপ্টারে নতুন বউ আসছে- এমন খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে তাদের আত্মীয়-স্বজন, নারী-শিশুসহ নানা বয়সী উৎসুক মানুষ আগে থেকেই ভিড় জমায় ওই বিদ্যালয় মাঠে। বর-কনে হেলিকপ্টার থেকে নামার পর তাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে বরণ করে নেন বর পক্ষের স্বজনরা। পরে তাদের মাইক্রোবাসে করে বাড়িতে নেওয়া হয়।

বরের চাচা পাবনা পৌর এলাকার চর সুজানগর মহল্লার বাসিন্দা হেলাল উদ্দিন জানান, ৬/৭ মাস আগে আমার ভাতিজা পাপ্পুর বিয়ে হয়। বিয়ের পর মেয়ে বাবার বাড়িতেই ছিল। শুক্রবার (১৩ জানুয়ারি) তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে ছেলের বাড়িতে নিয়ে আসা হলো। হেলিকপ্টারে করে বউ আনার বিষয়ে আমরা অনেক আনন্দিত।

বর-কনেকে বরণ করতে আসা বরের চাচী শাহনাজ খাতুন, ভাবী অনামিকা নাসরিন ও চাচাতো বোন তুলি খাতুন বলেন, হেলিকপ্টারে করে বউ আনছে। আমরা তাদের ফুল দিয়ে বরণ করেছি। এই প্রথম হেলিকপ্টারে বউ আনার ঘটনা স্বচক্ষে দেখতে পেরে খুব খুশি।

এ বিষয়ে নিজ প্রতিক্রিয়ায় বর আশিকুর রহমান পাপ্পু বলেন, আমি যখন খুব ছোট ছিলাম, তখন থেকেই আমার দাদার খুব ইচ্ছা যে, আমি যেন হেলিকপ্টারে করে বউ নিয়ে আসি। তার সেই ইচ্ছা পূরণ করতেই মূলত এই আয়োজন। দাদার ইচ্ছা পূরণ করতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত। হেলিকপ্টারে দাদাও আমার সঙ্গে ছিলেন। পরিবারের সবার সম্মতিও ছিল হেলিকপ্টারে বউ আনার ব্যাপারে। সবমিলিয়ে খুব আনন্দ হয়েছে।

বরের দাদা জবানী সরদার বলেন, পাপ্পু যখন ছোট ছিল, তখন থেকেই বলতাম তুই বিয়ে করে হেলিকপ্টারে বউ আনবি। আমার নাতবউয়ের বাড়িও ঢাকা (গাজীপুর)। চিন্তা করলাম হেলিকপ্টারে তো নিয়ে আসাই যায়। নাতবউয়ের সঙ্গেও আলাপ করলাম, তোকে হেলিকপ্টারে নিয়ে আসবো। শুনে সেও খুব খুশি হয়। এভাবেই হেলিকপ্টারে নাতি ও তার বউকে নিয়ে আসলাম।  

আর এতে নিজের শখ পূরণ হওয়ায় যারপরনাই উচ্ছ্বসিত সত্তরোর্ধ্ব জবানী সরদার।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৪৫ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৩, ২০২৩
এনএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।