ঢাকা, শনিবার, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ শাবান ১৪৪৫

জাতীয়

কারওয়ানবাজারে ভোক্তা অধিদপ্তরের অভিযান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১১১৬ ঘণ্টা, মার্চ ২৪, ২০২৩
কারওয়ানবাজারে ভোক্তা অধিদপ্তরের অভিযান

ঢাকা: শুরু হয়েছে পবিত্র রোজা। সিয়াম-সাধনার এ মাসেও দেশের অসাধু ব্যবসায়ীরা তাদের ধূর্ততা দূরে রাখতে পারেন না।

যে কারণে পণ্যের মূল্য বাড়ে অযাচিতভাবে। তাই গরিবের পেটে ভাত পড়ে না, নিম্নমধ্যবিত্তদের বাজার করতে চৌদ্দবার চিন্তা করতে হয়।

জনগণকে এমন ভোগান্তি থেকে রক্ষায় ব্যাপক পরিকল্পনা করে সরকার। তার ধারাবাহিকতায় রমজান শুরুর আগ থেকেই ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা ও মাঠ পর্যায়ে তদারকি কার্যক্রম পরিচালনা করে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। তারাও পুরো মাস তদারকি কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে বলে প্রতিশ্রুতি দেয়।

এ প্রতিশ্রুতি রক্ষায় রোজার প্রথম দিন শুক্রবার (২৪ মার্চ) সকালে রাজধানীর কারওয়ানবাজারে অভিযানে নামে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। সকাল সাড়ে ১০টায় এ বাজারের কিচেন মার্কেটে অভিযান শুরু করেন সংস্থার সদস্যরা। অভিযানের নেতৃত্ব দিচ্ছেন অধিদপ্তরের পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার। উপস্থিত আছেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ও ঢাকা জেলা কার্যালয়ের অফিস প্রধান আব্দুল জব্বার মণ্ডলসহ বিভিন্ন কর্মকর্তারা।

অভিযানের শুরুতে অধিদপ্তরের পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বাংলানিউজকে বলেন, রমজানে কিছু বিশেষ সবজির দাম বেড়ে যায়। সে বিষয়ে আমরা আজকে তদারকি করবো। এছাড়া মুদি সামগ্রী ও মুরগির নির্ধারিত দামে বিক্রি হচ্ছে কিনা সেটি তদারকি করবো।

তিনি আরও বলেন, রমজানে সবজির দাম নিয়ে বিক্রেতারা যাতে ভোক্তাদের ঠকাতে না পারে এজন্য দিনভর জাতীয় ভোক্তা অধিদপ্তরের বিভিন্ন টিম অভিযান পরিচালনা করবে।

উল্লেখ্য, চলতি বছর রোজা শুরুর আগেই রাজধানীর বাজারে মুরগির দাম বেড়ে যায়। এ ছাড়া ডিম-চিনির দামও বেড়েছে। বাজারে গরুর মাংস বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে। কেজি ৭২০ থেকে ৭৫০ টাকা, আর খাসির মাংসের কেজি  ১০৫০-১১০০ টাকা। খোলা চিনির কেজি ১১৫ থেকে ১২০ টাকা, খোলা আটা ৬০ টাকা। তবে প্যাকেট আটা প্রতি কেজি ৬৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা আগে ছিল ৭০ টাকা। আর ২ কেজির প্যাকেট আটা বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকায়। এসব বাজারে দেশি মসুরের ডালের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকা, ইন্ডিয়ান মসুরের ডাল ১২০-১২৫ টাকা। সয়াবিন তেল প্রতি লিটার বিক্রি হচ্ছে ১৮৭ টাকা, লবণের কেজি ৩৮-৪০ টাকা। ফার্মের মুরগির ডিমের ডজন ১৩০ টাকা, হাঁসের ডিমের ডজন ১৮০-১৯০ টাকা, আর দেশি মুরগির ডিমের ডজন ১৯০-২০০ টাকা। রোজার পণ্যের দামও অনেক।

বাংলাদেশ সময়: ১১১৪ ঘণ্টা, মার্চ ২৪, ২০২৩
এসসি/এমজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।