ঢাকা, বুধবার, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৯ মে ২০২৪, ২০ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

ঈশ্বরদীতে আগুনে দগ্ধ শিশুর মৃত্যু

উপজেলা করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০২০ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৫, ২০২৪
ঈশ্বরদীতে আগুনে দগ্ধ শিশুর মৃত্যু

পাবনা (ঈশ্বরদী): পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নে মাটি দিয়ে তৈরি খেলনা আগুনে পোড়াতে গিয়ে দগ্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে রিয়া বিশ্বাস (১১) নামে এক শিশুর।  

বুধবার (২৪ এপ্রিল) দিনগত রাত পৌনে ১২টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

 

এর আগে বুধবার (২৪ এপ্রিল) দুপুর পৌনে ১২টায় ঈশ্বরদী উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নে মানিকনগর গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে।  

রিয়া ঈশ্বরদী উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নের মানিকনগর পাঠশালা মোড় এলাকার পিন্টু বিশ্বাসের মেয়ে এবং দিয়ার সাহাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী।

ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. সাবরিনা রহমান বাংলানিউজকে জানান, আগুনে রিয়ার মুখমণ্ডল ছাড়া শরীরের ৯০ ভাগ দগ্ধ হয়েছে। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য শিশু রিয়াকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।  


এলাকাবাসী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রিয়ার বাবা পিন্টু বিশ্বাস ঈশ্বরদীর পাকশীতে নির্মাণাধীন রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে ও তার মা ঈশ্বরদী ইপিজেডে চাকরি করেন। প্রতিদিনই তারা বাড়ির প্রধান ফটকে তালা মেরে চাকরিতে চলে যান। বাড়িতে শিশু রিয়া ও তার ৩ বছরের ছোট ভাই বাড়িতে থাকতো।  

বুধবার (২৪ এপ্রিল) সকালে প্রতিদিনের মতো রিয়ার মা-বাবা অফিসে চলে গেলে রিয়া তার ছোট ভাইকে সঙ্গে নিয়ে বাড়ির উঠানে মাটি দিয়ে খেলনা তৈরি করছিল। সেগুলো বাড়ির উঠানে আগুনে পোড়ানোর সময় অসাবধানতাবশত রিয়ার গায়ের জামায় আগুন ধরে যায়। এতে তার শরীরের বিভিন্ন অংশ পুড়ে যায়। এসময় রিয়ার চিৎকার শুনে স্থানীয় লোকজন বাড়ির সামনে ছুটে আসে। কিন্তু বাড়ির মূল গেট বন্ধ থাকার কারণে এলাকাবাসী কেউ বাড়ির ভেতরে ঢুকতে পারেননি। পরে স্বজনরা রিয়ার মা-বাবাকে খবর দেন। তারা বাড়িতে এসে প্রধান ফটক খুলে দেখতে পান, দগ্ধ রিয়া বাড়ির ভেতরে উঠানে পড়ে রয়েছে। এসময় তাকে উদ্ধার করে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান তার স্বজনরা। রিয়ার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রিয়ার মৃত্যু হয়।  

আগুনে দগ্ধ রিয়ার বাবা পিন্টু বিশ্বাস এতথ্য নিশ্চিত করে বাংলানিউজকে জানান, বাড়ির প্রধান গেট তালা মেরে আমরা স্বামী-স্ত্রী অফিসে চলে যাই। বাড়ির গেট তালাবদ্ধ ছিল। যে কারণে প্রতিবেশী ও স্বজনরা রিয়ার চিৎকার শুনলেও কেউ বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করতে পারেনি। আগুনে রিয়ার মুখমণ্ডল ছাড়া গোটা শরীর পুড়ে গিয়েছিল। আমরা তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেকে নিয়ে যাই। সেখানে শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানেই রিয়ার মৃত্যু হয়।  

বাংলাদেশ সময়: ১০২০ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৫, ২০২৪
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।