ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

খুবি শিক্ষার্থীদের টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০৪৭ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২২
খুবি শিক্ষার্থীদের টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ

খুলনা: খুলনার সোনাডাঙ্গা থানাধীন পশ্চিম বানিয়াখামার বিহারী কলোনী এলাকায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) শিক্ষার্থীরা রাস্তা টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করেছে।

শনিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাত ৮টা থেকে সাড়ে ১১ টা পর্যন্ত তারা সড়ক অবরোধ করে রাখে।

সোনাডাঙ্গা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মমতাজুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সকালে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে খুবি শিক্ষার্থীরা বিদায় দেয়।  

স্থানীয়রা জানান, স্থানীয় শরীফ হাসান লেলিনের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজী মাস্টার্স প্রথমবর্ষের ছাত্র মোঃ রায়হান হোসেন।

শনিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ওই বাসা ছাড়তে গেলে তখন লেলিনের সঙ্গে রায়হানের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে বাড়ির মালিক লেলিন রায়হানকে মারধর শুরু করে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষার্থীরা দল বেঁধে সন্ধ্যার পর থেকে জড়ো হতে থাকে ওই এলাকায়। পরবর্তীতে তারা লেলিনের বিচারের দাবিতে রাস্তা অবরোধ করে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজী মাস্টার্স প্রথমবর্ষের ছাত্র মোঃ রায়হান হোসেন বলেন, প্রায় ৮ মাস ধরে লেলিন নামের এক লোকের বাড়িতে থাকছি। খুব সাধারণ একটি বিষয় নিয়ে সমস্যা হয়েছে। মিটারের টাকা সাধারণত বাড়িওয়ালারা দেয়। কিন্তু তিনি আমার কাছ থেকে নিয়েছে। মিটার নষ্ট তবু আমার কাছ থেকে আনুমানিক টাকা নিয়েছে। সেটাও কোন সমস্যা না। পরবর্তীতে জানলাম আমার টাকা মিটারে না দিয়ে নতুন মিটার কেনার জন্য রেখেছেন। আমি তার কাছে কোন টাকা ফেরত চাচ্ছি না। আমি বাড়িওয়ালাকে একটি মেসেজ দিয়েছিলাম। সেখানে লিখেছিলাম মিটার কেনার টাকা বাড়িওয়ালারা দেয়। আপনি কোন সেন্সে আমার কাছ থেকে টাকা নিচ্ছেন। এটা ভালো হলে তো ভালো আর যদি ভালো না হয় তাহলে তো মরার পরে যদি আমার জান্নাতের ফয়সালা নাও হয় তাহলে আপনার মতো মানুষের মাধ্যমে হয়তো জান্নাতে যেতে পারবো।  

তিনি বলেন, গতকাল রাতে লিখেছি আমি দুই একদিনে আপনার বাসা ছেড়ে দেব। যদি এই মাসের মিটারের টাকা দেওয়া লাগে তাহলে বলবেন। এরপর লিখছিলাম ভালো থাকবেন। এটার স্ক্রিনশট আছে আমার কাছে। এরপর উনি আমাকে কয়েকবার ফোন দেন। আমি এক বন্ধুর সঙ্গে কথা বলছিলাম রিসিভ না করলে উনি লিখেন কল দাও। এরপর উনি কল দিলে আমি রিসিভ করি। উনি যা বললেন তাতে একটি মানুষ এত নিচে নামতে পারে কি করে। আমি প্রথম দিকে রেকর্ড করিনি। পরে রেকর্ডার অন করে রেকর্ড করি। ১ মিনিট ৫৯ সেকেন্ড রেকর্ড আছে। আমি সেটা ভাইরাল করে দিই। এরপর তিনি থ্রের্ড দেয়।  

মোঃ রায়হান হোসেন আরও বলেন, সকালে আবার ঝগড়া শুরু করেন। দোকানের সামনে আমার সাইকেলে লাথি মারলেন। সাইকেল আমার গায়ে পড়ে। আমি বললাম- আঙ্কেল আপনি তো আমাকে মারলেন। তিনি বললেন, তোকে আরও মারবো। এরপর বেশ কয়েকবার আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করে। ঘর পরিস্কার করে দিয়েছি তাতেও হয়নি পরিষ্কার বাবদ ৫০০ টাকা নিয়েছে। তারপরও আমাকে মারধরের হুমকি দেয়। এরপর শনিবার বিকেলে ছাত্ররা বিষয়টি জানতে আসে। তাদের সঙ্গে বাড়ির মালিক লেলিন দুর্ব্যবহার করেন। পরে ছাত্ররা বাড়ি অবরোধ করে ও বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকে। এলাকার অধিকাংশ মানুষ ছাত্রদের সঙ্গে ওই বাড়ির সামনে অবস্থান নিয়েছে।

ছাত্রদের দা‌বি, যে ছাত্রকে বা‌ড়ির মা‌লিক লা‌ঞ্চিত ক‌রে‌ছেন, তার কা‌ছে এসে ক্ষমা চাই‌তে হ‌বে। বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা রোববার এ ঘটনার প্রতিবা‌দে বি‌ক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমা‌বেশ কর‌বে বলে জানিয়েছে।

সড়ক অবরোধের সময় র‍্যাব ও পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার জন্য চেষ্টা চালায়।

বাংলাদেশ সময়: ০০৪৭ ঘণ্টা, ফেব্রুয়রি ২৭, ২০২২
এনএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।