ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

মুক্তমত

প্রধানমন্ত্রীর এবারের জাপান সফর থেকে বাংলাদেশ কী পেল?

জুবেদা চৌধুরী | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩৩৩ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৯, ২০২৩
প্রধানমন্ত্রীর এবারের জাপান সফর থেকে বাংলাদেশ কী পেল?

সেই সকাল দেখায় দিনটি শুধু একটি প্রবাদ নয়, বাংলাদেশ-জাপান সম্পর্কের ক্ষেত্রে একটি সুনির্দিষ্ট বাস্তবতা। জাপানের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশের অভ্যুদয়কে প্রতিহত করার জন্য পাকিস্তানকে সম্ভাব্য সব ধরনের সহায়তা দিলেও, জাপান একটি রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্য দিয়ে নতুন উদীয়মান দেশটিকে স্বীকৃতি দিতে দ্বিধা করেনি ১৯৭১ সালে।

ইতিহাসে লিপিবদ্ধ আছে যে 'উদীয়মান সূর্যের দেশ' প্রথম দেশগুলোর মধ্যে একটি ছিল যারা বাংলাদেশকে তার জন্মের তিন মাসেরও কম সময়ের মধ্যে স্বীকৃতি দেয়। ১৯৭৩ সালের অক্টোবরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সফরেরও আয়োজন করেছিল জাপান। এগুলো ছিল এই দুই দেশের বন্ধুত্বের উজ্জ্বল সম্ভাবনার প্রাথমিক লক্ষণ। প্রাথমিকভাবে যা সম্ভাবনা ছিল, অর্ধ শতাব্দীর সম্পর্কের মধ্যে তা বাস্তবে পরিণত হয়েছে। জাপান এখন বাংলাদেশের অন্যতম বড় উন্নয়ন সহযোগী।

কিন্তু সেটাই গল্পের পুরোটাই নয়। দুই দেশ সময়ে সময়ে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তা সত্য, তাদের সম্পর্ক সময়ের সঙ্গে সঙ্গে শক্তিশালী থেকে শক্তিশালী হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাম্প্রতিককালের জাপান সফরে ঢাকা-টোকিও সম্পর্ক কৌশলগত অংশীদারিত্বের পর্যায়ে উন্নীত হয়েছে। দুই দেশের ঐতিহাসিক সম্পর্কের নতুন দৃঢ়তার ভিত্তিতে, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী তার আস্থা ব্যক্ত করেন যে দুই দেশের জনগণ এবং দুই সরকারের মধ্যে বিদ্যমান চমৎকার বোঝাপড়া, বন্ধুত্ব ও সহযোগিতা আগামী বছরগুলোতে আরও শক্তিশালী হবে। ঐতিহাসিক নথিগুলো যদি গণনা করার মতো কিছু হয়, তাহলে বাংলাদেশ-জাপান সম্পর্কের আরও উজ্জ্বল সম্ভাবনা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। বুধবার ঢাকা ও টোকিও বিস্তৃত ক্ষেত্রে যে আটটি চুক্তি ও স্মারক স্বাক্ষর করেছে তা এই দুই দেশের সম্পর্ককে আরও এগিয়ে নিতে সহায়ক হবে।

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চারদিনের সরকারি সফরে স্বাগত জানাতে জাপান লাল গালিচা বেঁধেছে যা বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে টোকিওতে তার আগের পাঁচটি সফরের চেয়ে “আরও তাৎপর্যপূর্ণ” হবে। এটি এমন এক সময়ে এসেছে যখন জাপান 'গ্লোবাল সাউথ'কে গুরুত্ব দিয়ে একটি মুক্ত ও উন্মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক ঘোষণা করেছে এবং বর্তমান "ব্যাপক অংশীদারিত্ব" থেকে বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে "কৌশলগত স্তরে" গড়ে তুলতে আগ্রহ দেখিয়েছে।

আমরা আশা করি বাংলাদেশ ও জাপানের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য আরও বাড়বে। এছাড়াও, আমরা মাতারবাড়ি গভীর সমুদ্র বন্দর, ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল এবং ঢাকা মেট্রো রেলের মতো আমাদের মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নে জাপানের সহায়তার প্রশংসা করি।

জাপান বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী শিল্পোন্নত দেশ। দেশটি শুধু আমাদের স্বাধীনতা আন্দোলনেই নয়, বাংলাদেশের স্বাধীনতা পরবর্তী সময়েও অংশ নেয়। বাংলাদেশের দেশ গঠনের কৌশলে জাপান যে ভূমিকা পালন করেছে তা নিঃস্বার্থ বন্ধুত্বের একটি দৃষ্টান্ত। গত চার দশক ধরে জাপান ও বাংলাদেশ যে বন্ধুত্ব উপভোগ করছে তা আজকের বিশ্বে বিরল। ২০১৬ সালের জুলাইয়ে ঢাকায় সন্ত্রাসী হামলায় সাতজন জাপানি নাগরিকের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছিল যার ফলেদুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্ব পরীক্ষা করা হয়েছিল। জাতীয় যন্ত্রণা ও শোকের সেই মুহূর্তে আবারও জাপানের জনগণ ও সরকার আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে এবং বাংলাদেশের উন্নয়নে জাপানের অব্যাহত সমর্থনের বিষয়ে আমাদের আশ্বস্ত করেছে।

জাপানি উদ্যোক্তারা বাংলাদেশে ব্যবসা ও বিনিয়োগের সুযোগ নিয়ে আরও বেশি উৎসাহ দেখাচ্ছেন। আমরা বিশ্বাস করি আমাদের কালের পরীক্ষিত বন্ধু জাপান এবং এর জনগণ আমাদের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পরিবর্তনমূলক যাত্রায় আমাদের সঙ্গে থাকবে। আমরা আশা করি একটি উন্নয়নশীল থেকে একটি উন্নত দেশে উন্নীত হওয়ার সীমারেখা অতিক্রম করার প্রচেষ্টায়, আমরা জাপানকে আমাদের পাশে রাখব যেভাবে তারা এখন পর্যন্ত ছিল।

ঢাকা ও টোকিওর মধ্যে সম্পর্ক আরও শক্তিশালী হচ্ছে। পরবর্তীটি একক বৃহত্তম দ্বিপাক্ষিক দাতা এবং বিশ্বস্ত বন্ধু এবং উন্নয়ন অংশীদার হিসাবে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। এটি অপরিহার্য যে টোকিও একটি উন্নত দেশ হওয়ার যাত্রায় বাংলাদেশের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত থাকবে।

বাংলাদেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে জাপান সবসময়ই বড় ভূমিকা রেখেছে। এখন বাংলাদেশ জাপানের কাছ থেকে অনেক বেশি অবদান আশা করছে। সরকারের বাস্তববাদী নীতির কারণে বাংলাদেশ বিনিয়োগ, শিল্পায়ন ও রপ্তানির জন্য একটি আঞ্চলিক কেন্দ্র হতে যাচ্ছে বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্পষ্টবাদী ছিলেন। তিনি বৃহত্তর পরিমাণে জাপানি বিনিয়োগের আহ্বান জানান এবং সে দেশের সম্ভাব্য বিনিয়োগকারীদের নিজেদের জন্য ব্যবসা ও বিনিয়োগের সম্ভাবনা দেখতে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। দেশের জনগণ আমাদের জাপানি বন্ধুদের কাছ থেকে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়ার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার জাপান সফরে দুই দেশের মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্ককে আরও জোরদার করে বর্তমান ব্যাপক অংশীদারিত্ব থেকে কৌশলগত অংশীদারিত্বে পরিণত করেছেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী [ফুমিও] কিশিদা এবং আমি আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের পুরো বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছি। আমরা আনন্দিত যে বাংলাদেশ ও জাপান সফলভাবে সম্পর্ককে বিদ্যমান 'বিস্তৃত অংশীদারিত্ব' থেকে একটি 'কৌশলগত অংশীদারিত্ব'-এ উন্নীত করেছে।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, আজ প্রধানমন্ত্রী [ফুমিও] কিশিদা এবং আমি ‘কৌশলগত অংশীদারিত্ব”-এর যৌথ বিবৃতিটি শেষ করেছি। আমি আত্মবিশ্বাসী যে আমাদের দুই দেশের জনগণ এবং আমাদের সরকারের মধ্যে বিদ্যমান চমৎকার বোঝাপড়া, বন্ধুত্ব এবং সহযোগিতা আগামী বছরগুলোতে আরও শক্তিশালী হবে। ’

আমাদের দুই পক্ষ স্বাক্ষর করেছে-চুক্তি এবং স্মারকলিপি যা কৃষি, শুল্ক বিষয়ক, প্রতিরক্ষা, আইসিটি এবং সাইবার-নিরাপত্তা, শিল্প আপগ্রেডিং, বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পত্তি, জাহাজ পুনর্ব্যবহার এবং মেট্রো রেলের ক্ষেত্রে আমাদের ভবিষ্যত সহযোগিতাকে প্রাতিষ্ঠানিক করে তুলবে।

বাংলাদেশ ও জাপান ২৬ এপ্রিল, ২০২৩ তারিখে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর চার দিনের দ্বিতীয় দিনে কৃষি, মেট্রো রেল, শিল্প আপগ্রেড, জাহাজ পুনর্ব্যবহার, শুল্ক বিষয়ক, বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পত্তি, প্রতিরক্ষা সহযোগিতা, আইসিটি এবং সাইবার নিরাপত্তা সহযোগিতার বিষয়ে আটটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদার আমন্ত্রণে রাষ্ট্রীয় সফরে।
এদিকে, জাপানের প্রধানমন্ত্রী কিশিদা ফুমিও বলেছেন, আমরা আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে কৌশলগত অংশীদারিত্বে উন্নীত করেছি।

প্রধানমন্ত্রী কিশিদা ফুমিও বলেন, বৈঠকে উভয় দেশ কৌশলগত অংশীদার হিসেবে আইনের শাসনের ওপর ভিত্তি করে অবাধ ও উন্মুক্ত আন্তর্জাতিক শৃঙ্খলা বজায় রাখার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেছে যখন আন্তর্জাতিক ব্যবস্থা ঐতিহাসিক মোড়ের দিকে।
এছাড়াও, গত মাসে ঘোষিত একটি মুক্ত এবং উন্মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক পয়েন্টের জন্য নতুন পরিকল্পনার ভিত্তিতে, দুটি দেশ বিভিন্ন ক্ষেত্রে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও জোরদার করতে সম্মত হয়েছে, তিনি যোগ করেছেন।

এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে যে, জাপান বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী শিল্পোন্নত দেশ হওয়ায় দেশের উদ্যোক্তারা বাংলাদেশে ব্যবসা ও বিনিয়োগের সুযোগ নিয়ে বেশি উৎসাহ দেখাচ্ছেন। ঢাকা ও টোকিওর জন্য এই ধরনের জয়-উপকার পরিস্থিতি এমন সময়ে ঘটে যখন জাপান 'গ্লোবাল সাউথ'কে গুরুত্ব দিয়ে একটি অবাধ ও উন্মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক ঘোষণা করেছে এবং বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে "কৌশলগত পর্যায়ে" উন্নীত করার আগ্রহ দেখিয়েছে।  

শেখ হাসিনার সফরের আগে, বাংলাদেশ তার ১৫-দফা ইন্দো-প্যাসিফিক দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশ করেছে যেখানে একটি "মুক্ত, উন্মুক্ত, শান্তিপূর্ণ, নিরাপদ এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক" ইন্দো-প্যাসিফিককে কল্পনা করা হয়েছে কারণ দেশটি এলডিসি থেকে স্নাতক হতে চলেছে।
বাংলাদেশ জাপানের সঙ্গে বিদ্যমান বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ককে আরও গভীর করতে চাইছে, যেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাপানের উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগ বাড়াতে বলেছেন শিল্প খাতে, বিশেষ করে টোকিওর অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী চীনের সঙ্গে ঢাকার ক্রমবর্ধমান সম্পর্কের মধ্যে । তদুপরি, চীনের আরেক চির প্রতিদ্বন্দ্বী ভারত, ঢাকার সঙ্গে শিল্প, অবকাঠামো এবং প্রতিরক্ষা খাতে বেইজিংয়ের ক্রমবর্ধমান অংশগ্রহণের বিরোধিতা করছে। সম্প্রতি জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা ভারত সফর করেন, যেখানে তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে নয়াদিল্লি এবং টোকিওর মধ্যে সম্পর্ক আরও গভীর করার জন্য ক্ষেত্রগুলো নির্ধারণের জন্য আলোচনা করেন। হাইলাইট করা বিষয়গুলোর মধ্যে একটি ছিল ‘ইন্দো-প্যাসিফিক’ সহযোগিতা, যেখানে উভয় নেতাই ঢাকার সহযোগিতা ছাড়া বাংলাদেশকে অপরিহার্য অংশীদার হিসেবে উল্লেখ করেছেন। ভারতের স্থলবেষ্টিত উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোকে বঙ্গোপসাগরের সঙ্গে এবং বাংলাদেশের স্থলপথগুলোকে ট্রানজিট হিসাবে যুক্ত করার ভারত ও জাপানের যৌথ আকাঙ্ক্ষা অসম্ভব হবে। তদুপরি, আরেকটি শক্তিশালী দেশ যেটি ইন্দো-প্যাসিফিকের প্রতি আগ্রহ দেখাচ্ছে তা হলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, অন্যদিকে চীনও যেকোনো ধরনের আঞ্চলিক সহযোগিতায় বিশেষ করে যেখানে বাংলাদেশ জড়িত থাকবে সেখানে তার বিশিষ্ট উপস্থিতি নিশ্চিত করতে ইচ্ছুক।

বাংলাদেশ এরইমধ্যে এই অঞ্চলের একটি গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়ে পরিণত হয়েছে, যেখানে বিশ্বের কোনো শক্তিই ঢাকার সক্রিয় অংশগ্রহণ ছাড়া কোনো পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারবে না। এই বিশেষ কারণে, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাপান সফর অবশ্যই উভয় দেশের জন্য ব্যাপক সুফল বয়ে আনবে, অন্যদিকে জাপানি উদ্যোক্তারা বাংলাদেশে তাদের বিনিয়োগ উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়াবে। অবশ্যই, এর সর্বোত্তম আউটপুট অর্জনের জন্য-ঢাকাকে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য আরও সহজীকরণ পদ্ধতিতে অবিলম্বে নীতি গ্রহণ করতে হবে যাতে এই প্রক্রিয়াগুলোতে অনাকাঙ্ক্ষিত আমলাতান্ত্রিক লাল-টপিজমের অবসান নিশ্চিত করা যায়।

এটা উৎসাহজনক যে আমরা কয়েক দশক ধরে জাতি হিসেবে যে সম্পর্কগুলো গড়ে তুলেছি তা এখন নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

জাপানে তার চলমান সরকারি সফরের সময় বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাপানের সঙ্গে সম্পর্ককে কৌশলগত অংশীদারিত্বে উন্নীত করার পরিকল্পনা ব্যক্ত করেন। দুই বন্ধুত্বপূর্ণ দেশের নেতারা তাদের ৫০ বছরের পুরনো বন্ধুত্বকে আরও জোরদার করার জন্য বর্তমান ব্যবসা ও বিনিয়োগের সুযোগ বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা করছেন।

জাপান গত বহু বছর ধরে আমাদের উন্নয়নের অবিচ্ছেদ্য মিত্র এবং তাদের আর্থিক সহায়তা এবং বিশেষজ্ঞের পরামর্শের সাহায্যে আমরা আমাদের উন্নয়ন এবং অর্থনৈতিক অবকাঠামো নিয়ে এগিয়ে যেতে থাকি।

প্রধানমন্ত্রীর মতে, বাংলাদেশ এই অঞ্চলে একটি অর্থনৈতিক কেন্দ্রে রূপান্তরিত হওয়ার পথে রয়েছে যা আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক বাজারে সহজে প্রবেশের সুবিধা দেয় এবং দেশে আরও জাপানি ব্যবসা উভয় দেশকে ব্যাপকভাবে উপকৃত করতে পারে।
আমরা আমাদের স্বল্পোন্নত দেশের মর্যাদা থেকে স্নাতক হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অব্যাহত সহায়তার নিশ্চয়তা হিসাবে, জাপান

বাংলাদেশকে ৩০ বিলিয়ন ইয়েন প্রদান করবে, যা নিঃসন্দেহে আমাদের ভবিষ্যত লক্ষ্যে সহায়তা করবে।

কাজের মধ্যে অনেক বড় মাপের প্রকল্পের সঙ্গে, জাপানের প্রযুক্তি এবং ক্ষেত্রের দক্ষতা নিশ্চিত করবে যে পরিকল্পনাগুলো কেবল দিনের আলো দেখছে না, কিন্তু সফলভাবে বাস্তবায়নও হয়েছে৷

উভয় পক্ষের প্রতিরক্ষা কর্তৃপক্ষের মধ্যে প্রণীত সহযোগিতার স্মারক এবং বিনিময়ের পর প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম ও প্রযুক্তি হস্তান্তরের বিষয়ে দুই দেশ আলোচনা করছে তা দেখেও ভালো লাগছে।

জাপান এবং বাংলাদেশ পাঁচ দশক ধরে শক্তিশালী মিত্র, এবং শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠা, অর্থনৈতিক সহযোগিতার উন্নতি এবং সাংস্কৃতিক সহযোগিতা সম্প্রসারণের বিষয়ে তাদের যৌথ ফোকাস বিবেচনা করে, উচ্চতর অংশীদারিত্ব আগামী কয়েক দশক ধরে উভয় দেশের জন্য পারস্পরিকভাবে উপকারী হবে বলে আশা করা হচ্ছে।  

 

 

 

জুবেদা চৌধুরী

 

 

 

 

বাংলাদেশ সময়: ১৩৩০ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৯, ২০২৩
এসআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।