ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ শাবান ১৪৪৫

রাজনীতি

ফরিদপুরে বরকতউল্লাহ বুলু

কানাডায় হাজার হাজার বাড়ি করেছেন আওয়ামী পরিবারের লোকেরা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৩০৮ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২৩
কানাডায় হাজার হাজার বাড়ি করেছেন আওয়ামী পরিবারের লোকেরা

ফরিদপুর: বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু বলেছেন, আজকে বাংলাদেশের মানুষের একটাই দাবি, আমার ভোট আমি দেব, যাকে খুশি তাকে দেব। এই দাবিতে গত ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়েছে সারা বাংলাদেশে আন্দোলন সংগ্রাম।

সেই আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আমরা ১৭ জন ভাইকে হারিয়েছি। এই ১৭ জন ভাই বুকের তাজা রক্ত দিয়েছেন। আজকে আমরা যদি শেখ হাসিনার পতন না ঘটাতে পারি, তাহলে ১৭ জন ভাইয়ের রক্ত বৃথা যাবে, তাদের রক্তের ঋণ আমরা পরিশোধ করতে পারব না।

সরকারের দমন নির্যাতন ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্ত এবং বিদ্যুৎ গ্যাস ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য কামানোসহ ১০ দফা দাবিতে শনিবার ( ৪ ফেব্রুয়ারি) ফরিদপুরে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন দলের ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু।

এদিন দুপুর ২টার দিকে ফরিদপুর শহর থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে কোমরপুর আব্দুল আজিজ ইনস্টিটিউট মাঠে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, এই সরকার দেশের সম্পদ লুণ্ঠন করে গত ১৪ বছরে বিদেশে ১৪ লাখ কোটি টাকা পাচার করেছে। কানাডায় হাজার হাজার বাড়ি করেছেন আওয়ামী পরিবারের লোকেরা। কানাডায় যারা আগে থেকে বসবাস করেন আমাদের যেসবত মেধাবি ছেলেমেয়েরা কানাডায় লেখাপড়া করে, উচ্চ চাকরি করেন লজ্জায় তাদের মাথা হেট হয়ে গেছে। তারা সংগঠন করেছেন আওয়ামী ঘরানার লোকেরা যেন  কানাডায় বাড়ি কিনতে না পারে। এজন্য কানাডার সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছে তারা।


তিনি বলেন, কানাডার সরকার আইন করেছে তারা বাংলাদেশের আওয়ামী লুটেরাদের বাড়ি কিনতে দেবে না। তাই এখন তারা দুবাই গেছে। দুবাইতে ইতোমধ্যে সাড়ে সাতশ বাড়ি কিনেছে। একেক বাড়ির দাম দুইশ, তিনশ কোটি টাকা।

কারো নাম উল্লেখ না করে ববরকত উল্লাহ বুলু বলেন, আপনাদের মাদারীপুরের একজন সন্তান মাত্র চার বছরের এমপি, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ছিলেন। উনি চার বছরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১৭টি বাড়ির মালিক হয়েছেন। তারা এমনিভাবে দেশের সম্পদ লুণ্ঠন করেছেন।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সংসদে একটি আইন পাস করেছেন, কুইক রেন্টাল বিদ্যুতের নামে কেউ অভিযোগ করতে পারবে না। কুইক রেন্টাল বিদ্যুতের নামে লাখ লাখ কোটি টাকা লুণ্ঠন হয়েছে। আওয়ামী পরিবারের লোকেরা বিশ্ব ধনীদের খাতায় নাম লেখিয়েছেন।

এই বিএনপি নেতা বলেন, যখন বাংলাদেশে কিছু বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয়েছিল তখন শেখ হাসিনা বলেছিলেন, এখন তো বিদ্যুৎ আমাদের টুকরিতে করে ফেরি করে বিক্রি করতে হবে। আজকে বিদ্যুতের দাম যেভাবে বেড়েছে তাতে মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্তদের নাভিশ্বাস উঠেছে। আজকে এক পরিবার থেকে ৬০ জন এমপি আছেন বাংলাদেশে। এটা পৃথিবীর ইতিহাসে নেই।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএনপির চেয়ারপার্সনের উদেষ্টা জহিরুল হক শাহাজাদা মিয়া বলেন, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ডাকে মুক্তিযুদ্ধে গেছি, দেশ স্বাধীন করেছি। এখন তারেক রহমানের নেতৃত্বে ১০ দফা বাস্তবায়ন করে দেশে গণতন্ত্র কায়েম করব। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না।

বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য সাবেক এমপি শাহ মো. আবু জাফর বলেন, শেখ হাসিনার দিন শেষ, খালেদা জিয়ার বাংলাদেশ। ওবায়দুল কাদের যতই কায়দা করুক শেষ রক্ষা হবে না। আমাদের হাতে আর সময় নেই চূড়ান্ত আন্দোলন আমাদের গড়ে তুলতে হবে।

এ বিভাগীয় সমাবেশ সভাপতিত্ব করেন ফরিদপুর মহানগর বিএনপির সভাপতি এ এস এম কাইয়ুম। সঞ্চালনা করেন জেলা বিএনপির সদস্য সচিব একে কিবরিয়া ওরফে স্বপন ও জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক জুলফিকার হোসেন জুয়েল।

সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আজম খান ও আফজাল হোসেন খান পলাশ, রাজবাড়ী জেলা বিএনপির সদস্য সচিব কামরুল আলম, শরীয়তপুর জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আসলাম, গোপালগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক মো. রফিকুজ্জামান প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ০৩০৮ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২৩
এমএমজেড

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।