ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ আশ্বিন ১৪৩০, ০৫ অক্টোবর ২০২৩, ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৫

শেয়ারবাজার

বিনিয়োগকারীদের সম্পদ অন্যের কাছে থাকতে দেওয়া হবে না: বিএসইসি চেয়ারম্যান

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১১২ ঘণ্টা, জুলাই ২০, ২০২৩
বিনিয়োগকারীদের সম্পদ অন্যের কাছে থাকতে দেওয়া হবে না: বিএসইসি চেয়ারম্যান

ঢাকা: বিনিয়োগকারীদের সম্পদ অন্যের কাছে থাকতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) চেয়ারম্যান প্রফেসর শিবলী রুবায়াত-উল-ইসলাম।

তিনি বলেন, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর অবন্টিত ডিভিডেন্ড ক্যাপিটাল মার্কেট স্টেবিলাইজেশন ফান্ডে (সিএমএসএফ) জমা দেয়নি এমন কোম্পানিগুলোকে অডিট রিপোর্টের পরই জরিমানা করা শুরু হবে।

বৃহস্পতিবার (২০ জুলাই) ক্যাপিটাল মার্কেট স্টেবিলাইজেশন ফান্ড (সিএমএসএফ) কর্তৃক আয়োজিত সিএমএসএফের ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা কাঠামো অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিএমএসএফ চেয়ারম্যান এবং প্রধানমন্ত্রীর সাবেক মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান।

বিএসইসির চেয়ারম্যান বলেন, ইতোমধ্যে ক্যাপিটাল মার্কেট স্টাবলাইজেশন ফান্ড (সিএমএসএফ) থেকে শেয়ারবাজারে ২২৫ কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। প্রথম বছর এই ফান্ড থেকে মুনাফা এসেছে ১১ কোটি টাকা। এ বছর আরও বেশি আসবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। যারা এখানে বিনিয়োগে আসবে তারা দুই কোটি টাকা দিলে আমরাও দুই কোটি টাকা দেব। তবে অনেকে বিনিয়োগকারীদের প্রাপ্য দিচ্ছেন না। সিএমএসএফের মাধ্যমে আমরা আশা করছি গ্রাহক জাহানারা ইমামের মতো সবাই তার প্রাপ্য বুঝে পাবে।

তিনি বলেন, আমরা সব দিক থেকেই দেওয়াল দিয়ে একটি স্থিতিশীল শেয়ারবাজার তৈরি করার চেষ্টা করছি। শেয়ারবাজারে সরকারি বন্ডগুলোর লেনদেন শুরু হলে লেনদেন হাজার কোটি টাকা থেকে বেড়ে আরও অনেক বেশি হবে বলে আশা করছি।

তিনি আরও বলেন, আমাদের মার্কেটে যে আস্থা সংকট কাজ করছে। সেখান থেকে বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফিরে পাবে সেটা নিয়ে কাজ করছি। আশা করছি, খুব তাড়াতাড়ি আমাদের চেষ্টার সফলতা পাব। কারণ আমাদের কাজের ক্ষেত্রে কোন কাজটা আগে করব, সেটা আপনাদের অর্থাৎ বাজার সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকেই পরামর্শ নিব। আগে যারা লুটপাট করছে তাদের নিয়ে কাজ করব নাকি কোম্পানিগুলোর সম্পদ রক্ষায় কাজ করব। সেটা আপনারাই সিদ্ধান্ত দেবেন।

এফবিসিসিআই'র সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন বলেন, আমাদের ক্যাপিটাল মার্কেট যেভাবে এগুচ্ছে এটা আরও ভালো করতে পারত। আমাদের বিনিয়োগকারীরা না বুঝে বিনিয়োগ করে, অনেকে আবার এটাকে ফিক্সড ডিপোজিট হিসেবে ধরে নেয়। এটা কখনও কাম্য নয়। বড় ব্যবসায় অগ্রসর হলে এই বাজার থেকে ফান্ড নেওয়া কঠিন হবে।

তিনি বলেন, শেয়ারবাজার নিয়ে অনেকের ভুল ধারণা আছে। এখানে আরও বেশি সচ্ছলতা থাকা দরকার। এছাড়াও প্রোমোশনাল হওয়া দরকার, কারণ ভালো কাজগুলো সবার জানা উচিত।  

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও দেশের প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন বলেন, তফসিলি ব্যাংক এবং বাণিজ্যিক ব্যাংককে দীর্ঘ মেয়াদী দায় থেকে মুক্তি দিয়ে ক্যাপিটাল মার্কেটকে শক্তিশালী করা প্রয়োজন।  

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএসইসির কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ।

সেমিনারে সিএমএসএফ-এর রিস্ক ম্যানেজম্যান্ট কমিটি (আরএমসি) চেয়ারম্যান ড. সৈয়দ আমিনুল করিমের স্বাগত বক্তব্যের পর বিওজি এবং আরএমসি সদস্য ডা. শেখ তানজিনা দীপ্তির সিএমএসএফের ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা কাঠামো শিরোনামে একটি মূল প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ২১১১ ঘণ্টা, জুলাই ২০, ২০২৩
এসএমএকে/এসআইএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa