ঢাকা, শনিবার, ৭ বৈশাখ ১৪৩১, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১০ শাওয়াল ১৪৪৫

শিল্প-সাহিত্য

মাহফুজ মিশুর ঢাকা টকস বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

ডিপ্লোম্যাটিক করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২৩৩০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২৪
মাহফুজ মিশুর ঢাকা টকস বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

ঢাকা: যমুনা টেলিভিশনের বিশেষ প্রতিনিধি মাহফুজ মিশুর ‘ঢাকা টকস: ডিপ্লোম্যাটস অ্যান্ড মাহফুজ মিশু’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়েছে।  

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে এক অনুষ্ঠানে এর মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব মাসুদ বিন মোমেন। বইটি প্রকাশনা করেছে নিমফিয়া প্রকাশনী।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলি, বাংলাদেশ এন্টারপ্রাইজ ইনস্টিটিউটের (বিইআই) সভাপতি ও রাষ্ট্রদূত হুমায়ুন কবির, যমুনা টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ফাহিম আহমেদ, বাংলাদেশ সেন্টার ফর ইন্দো-প্যাসিফিক অ্যাফেয়ার্সের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক শাহাব এনাম খান, যমুনা টিভির বিশেষ প্রতিবেদক ও লেখক মাহফুজ মিশু এবং নিমফিয়া প্রকাশনীর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা করুণাংশু বড়ুয়া।

যমুনা টেলিভিশনের সাক্ষাৎকারভিত্তিক অনুষ্ঠান ‘চলতে চলতে’ থেকে ঢাকায় নিযুক্ত কূটনীতিকদের সাক্ষাৎকার সংকলিত হয়েছে মাহফুজ মিশুর এই বইটিতে। এতে সাক্ষাৎকার পাওয়া যাবে, বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস, রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আলেকজান্ডার ভি মান্টিটস্কি, চীনের সাবেক রাষ্ট্রদূত লি জিমিং, ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিনিধিদলের প্রধান চার্লস হোয়াইটলি, ভারতের সাবেক হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামীসহ আরও অনেকের।

বইটিতে আরও সাক্ষাৎকার দিয়েছেন– বাংলাদেশে জাতিসংঘের সাবেক আবাসিক প্রতিনিধি মিয়া সেপ্পো, জাপানের সাবেক রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি, তুরস্কের সাবেক রাষ্ট্রদূত মুস্তাফা ওসমান তুরান, অস্ট্রেলিয়ার সাবেক হাইকমিশনার গ্রেগ উইলককের। সাক্ষাৎকারের পূর্বে কূটনীতিকদের পরিচিতিও দেওয়া হয়েছে।

সাংবাদিকতার পথে দীর্ঘসময় হাঁটাহাঁটি করে সুনাম অর্জন করেছেন মাহফুজ মিশু। গণমাধ্যমকর্মী হিসেবে কাজের খাতিরে নানা সময়ে কূটনীতিকদের কাছে যেতে হয়েছে তাকে। নিতে হয়েছে গুরুত্বপূর্ণ মানুষজনের সাক্ষাৎকার। সেসব সাক্ষাৎকারই এক মলাটে বন্দি হলো এবার। মোট ১৪ জনের সাক্ষাৎকার নিয়ে ইংরেজি ভাষায় প্রকাশিত হলো ‘ঢাকা টকস: ডিপ্লোম্যাটস অ্যান্ড মাহফুজ মিশু’ বইটিতে।

এ বিষয়ে মাহফুজ মিশু বলেন, গত দশ-পনের বছরে বাংলাদেশের রাজনীতিতে কূটনীতির গুরুত্ব দৃশ্যমান হয়েছে। আগেও ছিল; তবে এটি এখন অনেক বেশি দৃশ্যমান। সাম্প্রতিক সময়ে পিটার হাস অথবা ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত যেখানেই যাচ্ছেন, সেটা ভিন্ন এক দ্যোতনা তৈরি করছে। অর্থাৎ তাদের অংশগ্রহণ এখন অনেক বেশি দৃশ্যমান। পাশাপাশি বাংলাদেশের রাজনীতিতে এবার বেশ সরব হতে দেখা গেছে সব পক্ষের কূটনীতিকদের।

বইটির বিষয়বস্তু প্রসঙ্গে মাহফুজ মিশু বলেন, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি-অর্থনীতি, বাংলাদেশের অর্জন-চ্যালেঞ্জ এবং সেই জায়গায় বিদেশিদের ভূমিকার প্রেক্ষাপট বোঝার জন্য বইটি সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। এটিকে একটি ‘একাডেমিক রেফারেন্স’ বলা যেতে পারে। পাঠকের কাছ থেকে সাড়া পাওয়া যাচ্ছে বলেও জানান তিনি।

১৬০ পৃষ্ঠার বইটির প্রচ্ছদ এঁকেছেন আনিসুজ্জামান সোহেল। বইটির মুখবন্ধ লিখেছেন পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন। বইটির মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৬০০ টাকা। পাওয়া যাবে বইমেলার নিমফিয়া পাবলিকেশনের ১২৯-১৩০ নম্বর স্টলে।  

এর আগে, ২০২৩ সালে প্রকাশিত হয় মাহফুজ মিশুর ‘চলতে চলতে গুণীজনের সাথে’। সেটিও ছিল সাক্ষাৎকারমূলক বই।

বাংলাদেশ সময়: ১১৩০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২৪
টিআর/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।